রাজৈরে ৪\\\'শ বছরের পুরনো জমিদার বাড়ি

মাদারীপুর জেলার রাজৈর উপজেলার চারশত বছরের পুরানো ঐতিহ্যবাহী জমিদারবাড়ি ধ্বংসের মুখোমুখি আর্কষণীয় একটি পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে ওঠার বিপুল সম্ভাবনা থাকা সত্বেও প্রয়োজনীয় সংস্কার সংরক্ষনের অভাব এবং সঠিক পরিকল্পনা না নেওয়ার কারণে হারিয়ে যেতে বসেছে জমিদার বাড়ীর অতীত ঐতিহ্য ও গৌরব ।
সপ্তদশ শতাব্দীতে এখানকার জমিদারদের জমিদারির গোড়া পওন হয় । ওই সময়ে নির্মিত পুরকীর্তি খালিয়া রাজারাম মন্দির, অন্নপুর্নামন্দির, কবি কিরন চাঁদ দরবেশের বাড়ি,বিপ্লবী চিওপ্রিয় রায় চৌধুরীর বাড়ি, জমিদার পঞ্চানন রায় চৌধুরীর বাড়ি, জমিদার শিশির গাঙ্গলীর জমিদার বাড়ি, জমিদার রাজারাম রায় চৌধুরীর জমিদার বাড়ি ও জেলার প্রাচীন বিদ্যাপীঠ খালিয়া রাজারাম ইনষ্টিটিউশন এ অঞ্চলে । এর কাছেই রয়েছে দর্শনীয় স্থান গণ উন্নয়ন প্রচেষ্টার শিশু স্বাস্খ্য কেন্দ্র ওশান্তিকেন্দ্র। ঐতিহ্যবাহী এ পুরার্কীতির নির্দশন সৌন্দর্য পিপাসু দর্শকদেরও মন কেড়ে নিয়েছে । বিপুল প্রাচুর্য সম্পদেও অধিকারী জমিদাররা ইংরেজ সরকার কর্তৃক বিভিন্ন উপাধিতে ভূষিত হয়েছেন।
প্রায় ২৫০ একর জমির ওপর অবস্থিত খালিয়া জমিদার বাড়িটি । জমিদার আমলে এখানে গড়ে তোলা হয় আকর্ষণীয় দ্বিতল-ত্রিতল, দালান কোঠা ও বাগানবাড়ি । এখানকার সারিবদ্ধ দালান-কোঠা, ও বাগানবাড়ি পূজার মন্ডব, শানবাধানো পুকুর ঘাট, পূজার মন্ডপ, আজও মানুষের দৃষ্টি কাড়ে। জমিদারদের প্রচন্ড দাপট প্রতাপের কথা আজও সর্বজনজনবিদিত। ওই সময়ে জমিদারদের বাড়ির কাছ ঘেঁষে জনসাধারনের চলা চলের নিষেধ ছিল ।
জমিদারদের আচার আচরন নিয়ে বহু কথা এখনও লোকমুখে রয়েছে জমিদার বংশের লোকেরা শুষ্কমৌসুমে বিলাশবহুল ঘোড়ার গাড়ি, বর্ষাকালে আর্কষণীয় পানসি নৌকা, গয়না নৌকা এবং সুজ্জিত পালকি ছাড়া বাড়ি থেকে বের হতো না। ঐতিহ্যবাহী জমিদার বাড়িটি বর্তমানে অবহেলা- অযত্নের নিদারুণ সাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে আছে । তারা কেবল জমিদারই ছিলেন না , তারা এক দিকে যেমন প্রজাবৎসল ছিলেন অন্যদিকে তেমন কবি সাহিত্যিক ও পন্ডিত ব্যক্তিদের সম্মান...[…]

Travel Image

বিল আর নদীর মিতালি

বিশাল বিল। নাম বোকড়। বিলের চারপাশে বলয়ের মতো দিগন্তরেখা ছুঁয়েছে গ্রাম। বিলের বুক চিরে ছুটে চলেছে নদী। মুক্তেশ্বরী। নদী আর বিলের অপূর্ব মিতালি। এক অনিন্দ্য সুন্দর দৃশ্য।
যশোরের অভয়নগর ও মনিরামপুর উপজেলার সীমান্তে বিল বোকড় ও মুক্তেশ্বরী নদীর অবস্থান।
যশোরের দুঃখ ভবদহ স্লুইস গেট। এই স্লুইস গেটের কারণে বুকে পলি জমে মরে গেছে এলাকার অনেক নদী। নদীর বুক বিল থেকে উঁচু হয়ে পড়ায় পানিপ্রবাহ রুদ্ধ হয়ে গিয়েছিল এলাকার ৫২টি বিলের। সেই থেকে শুরু জলাবদ্ধতার। ভবদহ অঞ্চলের সবচেয়ে বড় বিল বোকড়। সর্বগ্রাসী জলাবদ্ধতায় আকণ্ঠ ডুবে যায় বোকড়। বুকে পলি জমে মুক্তেশ্বরীর। একসময়ের স্রোতস্বিনী মুক্তেশ্বরী এখন আর আগের মতো নেই। জলাবদ্ধতাও ছিল একটা সময়। পরে পুনঃখনন করা হয় মুক্তেশ্বরীকে। দুই তীরে মির্মাণ করা হয় বেড়িবাঁধ। ধীরে ধীরে প্রাণ পেতে থাকে মুক্তেশ্বরী।
বর্ষায় অপরূপ রূপে সাজে বিল বোকড়। সবুজ ধানগাছে ছেয়ে যায় গোটা বিল। ধানগাছের ফাঁকে ফাঁকে চাঁই পেতে মাছ ধরে জেলে। ডিঙিনৌকায় করে বিলে গিয়ে পাতা চাই থেকে মাছ বের করার দৃশ্য মন ভরিয়ে দেয়। মুক্তেশ্বরীর স্বচ্ছ পানিতে খেলা করে আকাশ। দুলতে থাকে ঢেউয়ের তালে তালে। বিকেলে মুক্তেশ্বরী আবির্ভূত হয় এক অনন্যরূপে। সূর্য তার রঙিন আভা ছড়িয়ে দেয় নদীর বুকজুড়ে। নদীতে জাল ফেলে মাছ ধরে জেলে। আর গলা ছেড়ে গান গায় মনের আনন্দে। ঢেউয়ের পর ঢেউ ভাঙে নদীতে। ঝিরিঝিরি দখিনা বাতাসে নদীর তীর ধরে হাঁটলে পুলকিত হয়ে উঠবে যে কারও মন। ডিঙিনৌকায় করে নদীতে ঘুরে ঘুরে উপভোগ করা যায় পড়ন্ত বিকেলের নৈসর্গিক দৃশ্য। পানি আর বৈঠার ছলাৎছলাৎ শব্দে মন হয়ে ওঠে উদাসী। সব রং মুক্তেশ্বরীর বুকে ঢেলে দিয়ে পশ্চিমাকাশে আস্তে আস্তে অস্ত যেতে থাকে সূর্য। নেমে আসে সন্ধ্যা। ঠিক তখনই পুব আকাশে উঁকি...[…]

Travel Image

দিনাজপুরের স্বপ্নপুরী

১৯৮৯ সালে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার আফতাফগঞ্জে এক মৃত জলাশয়কে পিকনিক স্পটে রূপান্তরিত করে তাতে প্রাণ দেয়া হয়েছে। নাম দেয়া হয়েছে স্বপ্নপুরী। ১৯৯০ সাল থেকে এর বাস্তবায়ন শুরু হয়। ইচ্ছে হলে আপনি ইট-পাথরের যান্ত্রিক কর্মব্যস্ততা থেকে ক্লান্ত, বিপর্যস্ত দেহ-মনকে এই পিকনিক স্পষ্ট স্বপ্নপুরীতে ক্লান্তি জুড়াতে, আনন্দ-উল্লাস করে বিসর্জন দিতে পারেন মানসিক বিপর্যস্ততাকে। জানতে পারেন জীব-জগতের, উপলব্ধি করতে পারেন আপনজনদের। আত্মপলব্ধির মধ্য দিয়ে বিকাশ ঘটাতে পারেন মানবতার, অবারিত আত্মিক উন্নয়নের দ্বার সভ্যতাকে পরিপূর্ণ রূপ দিতে পারেন। দেশ-বিদেশের বহু বিশিষ্ট ব্যক্তি এই স্বপ্নপুরী দর্শনে মুগ্ধ হয়েছেন। মোট ৪০০ বিঘা জমির ওপর নির্মাণ করা হয়েছে স্বপ্নপুরীর স্বপ্নের জগত। দিনাজপুর সদর থেকে মাত্র ৫২ কিলোমিটার আর ঢাকা থেকে ৩২০ কিলোমিটার দূরত্বে স্বপ্নপুরী অবস্থিত।
সুবিশাল এলাকা, তুলনাহীন প্রাকৃতিক এবং নৈসর্গিক পরিবেশ। সমগ্র এলাকা জুড়ে রয়েছে বিভিন্ন প্রকার গোলাপ, ডালিয়া, চন্দ্রমল্লিকা, লিলি, রজনীগন্ধা, গ্লোবাল, কসমস, গাদা-সূর্যমুখী ইত্যাদি ফুলসহ বিভিন্ন প্রকার ঝাউগাছ, ইপিলইপিল, ক্যাকটাস, ওইপেং, ক্রিসমাসট্রি, ঘনসবুজ ঘাসে ঘেরা বাগানের গাছের ডালে বসেছে হাজারো পাখির মেলা, যা প্রকৃতি প্রেমিক সৌন্দর্যপিপাসু পর্যটক ও পরিব্রাজকদের মনোরঞ্জন এবং বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম হতে পারে।
শিক্ষামূলক ভ্রমণ স্বপ্নপুরী পর্যটন কেন্দ্র ছাত্রছাত্রী ও আনন্দ পিপাসুদের জন্য ভিন্ন মাত্রায় সজ্জিত। যার প্রমাণ স্বপ্নপুরীতে রয়েছে শিশু পার্ক, জীবন্ত এবং কৃত্রিম চিড়িয়াখানা।
স্বপ্নপুরীর প্রবেশ দ্বারে দণ্ডায়মান বিশাল আকৃতির দুটি পরীর প্রতিকৃতি যেন পর্যটকদের স্বাগত জানাতে সদা প্রস্তুত।
ঝাউবীথি আর পাম বৃক্ষের মাঝে স্থাপিত মিলেনিয়াম ২০০০-এর প্রতীক। পর্যটকদের নামাজ পড়ার মসজিদ এবং কারুকার্যময় অজুখানা। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ও জাতীয় কবি নজরুলের ভাস্কর্য। চোখে স্বাপ্নিক বিস্ময়তা আর অন্তরে মুগ্ধতা নিয়ে স্বপ্নপুরীর লেকে স্পিড বোটে জলবিহারে মেতে ওঠা। লেকের ওপরে তৈরি করা হয়েছে কেবল কার। পর্যটকদের গোসল করার জন্য সুসজ্জিত শাপলা ঘাট।...[…]

Travel Image

রাজা প্রতাপাদিত্যের ঈশ্বরীপুরে

এককালে যেখানে ছিল একটি রাজ্যের রাজধানী সেখানে আজ বন জঙ্গল। এখানে-সেখানে ভগ্নস্তূপ, ছোট ছোট কিছু নামফলক। কে বলবে এক সময় এ স্থানটি ছিল সমৃদ্ধ জনপদ। যেখানে শোনা যেত, অশ্বের হ্রেষা, সৈন্যদের ঢাল তলোয়ারের ঝনঝনানি। এখন স্থানটিতে শুধুই বাতাসের ফিসফিস আর পুরনো দালানকোঠার আড়ালে ঘুরে-ফিরে সেসব দিনের স্মৃতি। এ স্মৃতিবহুল স্থানটির নাম ঈশ্বরীপুর। যশোরের রাজা প্রতাপাদিত্যের রাজধানী। বর্তমানে এলাকাটি বংশীপুর নামে পরিচিত। সাতক্ষীরা শহর থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার গেলে শ্যামনগর। এ উপজেলা সদর থেকে সুন্দরবনের দিকে সোজা ৫ কিলোমিটার এগিয়ে গেলেই বংশীপুর বাজার। যার কিছু দূরেই সুন্দরবন। যশোরের রাজা প্রতাপাদিত্যের স্মৃতিবিজড়িত এ এলাকার অনেক ইমারত এখন পোড়াবাড়ি। পঞ্চদশ শতকে যে জনপদ ছিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এখন সেই এলাকা পরিণত হয়েছে ধ্বংসস্তূপে, অতীত স্মৃতিতে। অতীতের স্মৃতি হিসেবে এখনও এখানে রয়েছে টাঙ্গা মসজিদ, যশেশ্বরী কালীমন্দির, দুর্গ, হাম্মামখানা, বারো ওমরাহ কবর, বিবির আস্তানাসহ নগর প্রাচীরের কিছু অংশ এবং ঐতিহাসিক শাহি মসজিদ।
ইতিহাস কথা কয়
ইতিহাস অনুসারে, নবাব সোলায়মানের পুত্র নবাব দাউদ শাহের স্বাধীনতার চেতনা থেকেই কালক্রমে এখানে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল যশোর রাজ্যের রাজধানী। ১৫৭৩ সালে সিংহাসনে বসেন দাউদ শাহ। তার দুই বাল্যবন্ধু শ্রীহরিকে ‘বিক্রমাদিত্য’ এবং জানকিকে ‘বসন্ত রায়’ উপাধি দিয়ে তিনি তাদের মন্ত্রী পদে নিযুক্ত করেন। বর্তমানে সুন্দরবনঘেরা এ এলাকার জলদস্যু, মগ, পর্তুগিজদের লুটতরাজ এবং অত্যাচার দমনের জন্য নবাব দাউদ শাহ বিক্রমাদিত্য ও বসন্ত রায়কে দায়িত্ব দেন। বসন্ত রায় সাতক্ষীরায় এক গ্রামে এসে ঘাঁটি গাড়েন। এ কারণে এখানকার নাম হয় বসন্তপুর। বিক্রমাদিত্যকে দেয়া হয় অন্য এলাকার দায়িত্ব।
বিক্রমাদিত্যের পুত্র প্রতাপাদিত্য পিতার জীবদ্দশায় আরও একটি রাজ্যের নিয়ন্ত্রণ নেন। এ সময়ে নবাব দাউদ শাহের সঙ্গে বিরোধ দেখা দেয় দিল্লির সম্রাট আকবরের। সম্রাট আকবর নবাব দাউদ শাহকে শিক্ষা দেয়ার জন্য বিরাট এক...[…]

Travel Image

মধুকবির দেশে

কবির বাড়ির পুকুর। নবগঙ্গা নদীর কাছে যাওয়ার পর মনে হলো যশোর আর বেশি দূরে নয়। মাগুরার সেই নবগঙ্গার তীরে কিছুটা সময় কাটিয়ে আবার যশোরের পথ ধরা। উদ্দেশ্য, যশোর রোড ও সাগরদাঁড়িতে গিয়ে কবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের বাড়ি দেখা। প্রকৃতিতে বিকেলের ভাবটা আসতে না আসতেই এক পশলা বৃষ্টি। যশোরে পৌঁছাতে পৌঁছাতে প্রায় সন্ধ্যা হয়ে গেল। একটি গেস্ট হাউসে রাতটা পার করলাম আমরা কজন। রাতে শুধু জামতলার মিষ্টি নিয়ে কিছু কথা হলো, আগে কয়েকবার জামতলা গিয়ে মিষ্টির দেখা পাওয়া যায়নি। ফেরার পথে এবারও ঢুঁ মারার পরিকল্পনা নিয়ে ঘুমের দেশে হারিয়ে যেতে হলো।
সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠে যাত্রা শুরু হলো। আটটার মধ্যে কেশবপুর চলে এসে ব্রেকফাস্ট বিরতি। নাশতা করে কেশবপুর উপজেলা পরিষদে হনুমান দেখতে গেলাম আমরা কজন। এবার কপাল ভালো। মাত্র একটি হনুমান দেখা গেল। একটু আগেই নাকি দলবল নিয়ে বাকি হনুমানগুলো জায়গা ত্যাগ করেছে। আবার আসবে খাবার দেওয়ার সময়।
কেশবপুর বাজার পার হয়ে হাইওয়ে থেকে বাঁদিকে ছোট্ট এক পিচঢালা সড়ক চলে গেছে। সড়কটির শুরুতেই আছে কবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের প্রতিকৃতি। এ রাস্তা দিয়ে পথ চললেই পাওয়া যাবে সাগরদাঁড়ি, মধুকবির জন্মভিটা। আঁকাবাঁকা পথ পেরিয়ে চলছে গাড়ি। দুই ধারে সবুজ ধানক্ষেত। কোথাও আছে বাবলার সারি। খেজুরগাছের মহাসমারোহ দেখতে দেখতে চলে এলাম সাগরদাঁড়ি। সাগরদাঁড়ির গায়ের কাছেই কপোতাক্ষ নদ।
গাড়ি থেকে নেমে আমরা টিকিট কেটে কবির বাড়িতে ঢুকি। প্রথম দর্শনেই পুকুরের কিনারজুড়ে দেখা যাবে একটি কবিতার পঙিতমালা—‘দাঁড়াও, পথিক বর জন্ম যদি তব বঙ্গে! তিষ্ঠ ক্ষণকাল!’ অন্যান্য পর্যটককে দেখা গেল দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে কবিতার লাইন পড়ছে। বাড়ির মধ্যে হালকা হলুদ ও সাদা রঙের দুটি ভবন দেখা গেল। মূল বাড়ি সংস্কার করে এ রূপ দেওয়া হয়েছে। বাড়িতে প্রবেশ করার পর দেখা...[…]

Travel Image

চরমুগুরিয়ার বানর

আড়িয়াল খাঁ নদবেষ্টিত মাদারীপুর অঞ্চল এক সময় বনজঙ্গলে পূর্ণ ছিল। স্থানীয়দের ধারণা সুন্দরবন একসময় বাকেরগঞ্জ পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল।এই বাকেরগঞ্জ হয়ে কিছু বানর মাদারীপুরে আসে। ধারনা করা হয় ১৯২০ সালের দিকে সহায়ক পরিবেশ থাকায় বানর বংশবৃদ্ধি করতে করতে এর সংখ্যা দাড়িয়েঁছে ২০ হাজারের বেশি।সে সময় মাদারীপুরর কুলপদ্বী,পুরন শহর ও চরমুগুরিয়ার এলাকায় বানরের বিচরণ ছিল।দেশ ভাগের আগে এ অঞ্চলে অনেক হিন্দু সম্প্রদায়ের বসতি ছিল। অনেকে বানরকে দেবতা মনে করে কলা,ফলমূল, মোয়া, মুড়ি, চিড়া ইত্যাদি খেতে দিত। আস্তে আস্তে এই বানরগুলো চরমুগুরিয়া বন্তরে মানুষের মাঝে থাকতে শুরু করে। ৯ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই বন্দরে বানরেরা মানুষের একান্ত পড়শী। ঘর-বাড়ি, দোকান-পাট, রাস্তা-ঘাট এমনকি হাটের মধ্যে অবাধে বিচরণ করত বানরগুলো। বানরগুলোকে চরমুগরিয়া বন্দরের কালীবাড়ি, স্বর্নকারপট্টি, জেটিসি, আদমজী, চাল আড়ত ও চৌরাস্তা এলাকায় বেশি বিচরণ করতে দেখা যায়। জেটিসি ও আদমজীর বানরগুলো পরিত্যক্ত পাট গুদামে এবং চৌরাস্তা নদী পাড়ের বানরগুলো জেসম একাডেমীসহ আরও দুটি পরিত্যক্ত দুটি পাট গুদামে থাকে। বর্তমানে মাদারীপুর শহরের চরমুগরিয়া বন্দরে দেড় হাজার বানর কোন রকমভাবে তাদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছ। সরেজমিন দেখা গেছে, যেখানে সব চেয়ে বেশি বানর দেখা যায় সেখানে কোন বানর নেই। এলাকার লোকজনের কাছে জিজ্ঞাসা করে জানা যায় যে এখানে (পাটের পুরারো গুদাম ঘরে) বানর থাকেনা খাবারের অভাবে তারা সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে। আমরা বাড়ির ভিতরে গিয়ে খাবার দিলে কিছু বানর দেখতে পাই। পরে জানা গেল এভাবেই সর্বত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে বানর সম্প্রদায়। কেউ গাছে ঝুলছে, কেউ বাচ্চাকে দুধ খাওয়াচ্ছে। আবার কেউ বাচ্চার মাথার উকুন মেরে দিচ্ছে।চরমুগরিয়া ডিগ্রী করেজের পাশে একটি খোলা জায়গায় শতাধিক বানর বসে রয়েছে। কোনটি খুটে কুটে মাঠের ঘাস ছিড়ে খাচ্ছে, কোনটি আবার খাবারের জন্য হাহাকামা বানরকে র...[…]

Travel Image

বাঁশ-বেতের তীক্ষ্ণ ফলার কারুশিল্প

অপরুপ সৌন্দর্যে মহিমান্বিত আমাদের এই বাংলাদেশ। চারদিকে সবুজের সমারোহ, বয়ে যাওয়া নদীর কলতান, পাখির কলকাকলী পাহাড়-পর্বত সব কিছু মিলিয়ে প্রকৃতি অপার এক মহিমা বিরাজ করছে আামাদের এইভূ-খন্ডে । প্রাগৈতিহাসিক যুগ থেকে বিভিন্ন জাতি- গোষ্ঠি বাস করছে এই ব-দ্বীপে। বর্ণ,ধর্ম,জাতি এবং উপজাতির পরিচয়ের উর্ধ্বে ওঠে এসে ভ্রাতৃত্বপুর্ন সহাবস্থানে নজির আমাদের ইতিহাসকে করেছে গৌরবান্বিত। আমাদেরইএটি ক্ষুদ্র জাতি গোষ্ঠির নাম ঋষি সম্প্রদায়। তারা আমাদের সমাজ এবং দেশেরই একটি সম্প্রদায় হলেও তাদেরকে নাগরিক উন্নয়নের ছোয়া র্স্পশ করেছে কমই। যে কারনে তারা অবহেলিত এবং অসহায় একটি সম্প্রদায়ে রুপ নিয়েছে। মাদারীপুর জেলার রাজৈর উপজেলার ৮-১০ কিঃমিঃ উওর পশ্চিমে খালিয়া গ্রাম ব্রিটিশ আমলের প্রতিবাদী কবি কিরণ চাদ দরবেশ এর জম্মস্থান এখানে। এখানে ঋষি সম্প্রদায়ের প্রায় ২৫-৩০টি পরিবার বাস করে । কবি কিরন চাদ দরবেশের অনেক লেখনিতেও ঋষি সম্প্রদায়ের কথা আছে। খালিয়া, শংকদী গ্রাম ছাড়াও গোপলগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় ঋষি সমপ্রদায়ের কিছু পরিবারের অস্তিত্ব পাওয়া যায়। ঋষি সম্প্রদায়ের লোকদের নিচু বর্ণের হিন্দু জাতি বলে আবার কেউ এদের উপজাতিও বলে । ঋষিদের মতে তারা হিন্দু ধর্মের একটি জাতি। নিজেদেরকে ক্ষতিয় বলে দাবী করেন। ক্ষতিয় মানে যোদ্ধা । কথিত আছে আগের দিনের ঋষিরা সাহসী যোদ্ধা । ঋষিদের নামের শেষে সিং,দাস, রায়, বিশ্বাস উপাধি দেয়া হয়। তাদের ধর্মীয় রীতিনীতি আচার অনুষ্ঠান হিন্দুদের মতোই। ঋষিরা নিজস্ব সংস্কৃতি ও ভাষার অধিকারী । তাদের ধর্মীয় আচার- অনুষ্ঠানে রয়েছে নিজস্ব স্বকীয়তা। সনাতন ধর্মাবলম্বী । পূজা-পর্বন নিজেদের রীতি বা পশ্চিমা রীতিতে করে থাকে। বড় উৎসব দুর্গাপুজা । এছাড়া। এছাড়া দীপাবলী বা কালীপূজায় অনেক আনন্দ করে থাকে তারদের বাড়ীতে মন্দিরও আছে । বাংলাদেশি হিন্দু সমাজ ব্যবস্থায় যেমন কলাগাছ পুতে সাতপাক অবশ্যই ঘুরতে হয় । গোত্র ভিওিক বিবাহ...[…]

Travel Image

নৈসর্গিক দৃষ্টিনন্দন লাউয়াছড়া

ছোট্ট শহর শ্রীমঙ্গল। দৃষ্টিজুড়ে সবুজ, উটের পিঠের মতোন টিলা আর মনোরম চা বাগান- কোন স্থান ভ্রমণ পিপাসুদের কাছে মেলে ধরবার জন্য যথেষ্ট। আরও যা রয়েছে তা হচ্ছে লাউয়াছড়া বন যা এক কথায় অনবদ্য। রেইন ফরেষ্ট হিসেবে খ্যাত এই বনে রয়েছে হরেক প্রজাতির বন্যপ্রাণী আর বৃক্ষাদি। রয়েছে ১৬৭ প্রজাতির বৃক্ষরাজি। লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান শ্রীমঙ্গল হতে মাত্র ১০ কিঃমিঃ আর ঢাকা থেকে ১৯৬ কিঃমিঃ। এর আয়তন ১২৫০ হেক্টর। বিরল প্রজাতির উল্লুকের বাস এখানে। মোট ১৬টি উল্লুক পরিবার হাজারো পর্যটকের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। উল্লুক গিবনস্ লেজ বিহীন বন্য প্রাণী, অনেকটা বানরের মত। ভারত, চায়না, মায়ানমার এবং বাংলাদেশসহ ৪টি দেশে ওদের প্রজাতি সমাজবদ্ধ হয়ে বসবাস করছে। আর কোন দেশে উল্লুকের বসবাসের তথ্য পাওয়া যায়নি। উল্লুক সাধারণত পরিবারবদ্ধ হয়ে কমপক্ষে ২ থেকে ৫সদস্য মিলে বসবাস করে। পুরুষ উল্লুক কালো রঙের এবং মহিলারা হয়ে থাকে সাদা ও বাদামী মিশ্রিত। উল্লুক পাহাড়ের উচু ও বড় বড় গাছের ডালে বাস করে। সব চেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে উল্লূকের হই হুল্লা ডাক। অনেক দুর থেকে শুনা যায় উল্লুকের ধ্বনি। যা চুম্বকার্ষনের মতই টেনে নেয় পর্যটকদের। এছাড়াও এই বনের উল্লেখযোগ্য প্রাণীর মধ্যে রয়েছে বানর, চশমা বানর, মুখপোড়া হনুমান, লজ্জাবতী বানর, মায়া হরিণ, বন্য শুকর ইত্যাদি। ২৪৬ প্রজাতির পাখি রয়েছে। এরমধ্যে ৮ প্রজাতির সুচক পাখিও আছে। সুচক পাখির মধ্যে ভিমরাজ, পাহাড়ী ময়না, কাওধনেস, বন মোরগ, ফোঁটা কন্টি সাতভায়লা এবং শ্যামা। লাউয়াছড়ার নৈসর্গিক দৃশ্য আর একটানা ঝিঁঝিঁ পোকার গুঞ্জন সত্যিই প্রশান্তি দেয় চোখ আর মনের। শুধু কি তাই? বিভিন্ন ধরণের হরিণ হয়তো অনেকেই দেখেছেন, কিন্তু মায়া হরিণ! হ্যাঁ, মায়া হরিণ অবলোকন করতে হলেও লাউয়াছড়া। ভোরে লাউয়াছড়ার ফুট ট্রেইলে হাটতে থাকুন। চারদিকে র্নিঝুম...[…]

Travel Image

মোগল সম্রাট শাহজাহানের পুত্র সুবাদার শাহ সুজার আমলের হোসেনী দালান

হোসনী দালান পুরানো ঢাকায় অবস্থিত শিয়া সম্প্রদায়ের একটি ইমারত। বাংলায় নির্মিত মোগল শাসনামলের দর্শনীয় স্থাপনার মধ্যে ঢাকার হোসেনী দালান একটি গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহ্য নিয়ে আজও টিকে রয়েছে। দালানটি মূলত একটি স্মৃতিসৌধ। হজরত ইমাম হোসেন (রা.) এর স্মৃতির উদ্দেশ্যে এটি নির্মিত হওয়ার কারণে এর নামকরণও হয়েছে তারই নামানুসারে অর্থাৎ হোসেনী দালান। হোসেনী দালানটি নির্মিত হয় মোগল সম্রাট শাহজাহানের পুত্র বাংলার সুবাদার শাহ সুজার আমলে। শাহ সুজা ছিলেন শিয়া মতাবলম্বী শাসক। তিনি যখন সুবাদার হয়ে বাংলায় আগমন করেন, তখন তার সঙ্গে করে তিন শতাধিক শিয়া অনুচর ও তাদের পরিবার এদেশে নিয়ে আসেন। শাহ সুজার নৌবাহিনী প্রধান-শিয়া মতাবলম্বী অনুচর সৈয়দ মীর মুরাদ এই হোসেনী দালান তৈরি করেন।
কথিত রয়েছে, সৈয়দ মীর মুরাদ এক রাতে স্বপ্নে দেখতে পান, কারবালার যুদ্ধের স্মৃতির উদ্দেশ্যে একটি স্মৃতি সৌধ নির্মাণ করছেন এবং স্বপ্নে মীর মুরাদকেও অনুরূপ একটি দালান নির্মাণের নির্দেশ দিচ্ছেন। স্বপ্নে নির্দেশ লাভ করে মীর মুরাদ ১৬৪২ খিস্ট্রাব্দ নাগাদ হোসেনী দালানটি নির্মাণ করেন। বাংলায় মোগল নির্মিত অন্য সব স্থাপনার মতো এটিও মোগল স্থাপত্য রীতি-নীতি অনুসারে নির্মিত হয়। ঢাকার নায়েব নাজিমগণ শিয়া মতাবলম্বী হওয়ার কারণে দীর্ঘদিন তারাই হোসেনী দালানটির মুতাওয়াল্লী ছিলেন।
দালানের দুই দিকে রয়েছে দুইটি মিনার, দক্ষিণ দিক ঘেঁষে বিশাল পুকুর আর উত্তর দিকে প্রশস্ত মাঠের পর বিশাল গেটওয়ে। ভবনটি দ্বিতল আকৃতি বিশিষ্ট। নিচে রয়েছে কবরখানা। দ্বিতীয় তলায় রয়েছে জরিখানা, হুক্কাখানা, নিশিত খাঁ নামের তিনটি কক্ষ। হোসেনী দালানটি নির্মাণের পর এখান থেকে বিভিন্ন উৎসবে জাঁকজমকপূর্ণ ও সজ্জিত মিছিল বের হতো। এছাড়া রয়েছে নহবতখানা, যেখানে প্রতিটি চাঁদ দেখার রাত থেকেই শুরু হতো নহবত বাজানো।[…]

Where do you want to travel?

Your journey will lead you to famous domestic and foreign beauty spots.