Entertainment Image
Entertainment Image

সরকারি অনুদান পেলো দেশের সেরা ছয় নির্মাতা

২০১৪-১৫ অর্থবছরে সরকারি অনুদানের জন্য মনোনীত হলো দেশের সেরা ছয় তরুণ ও অভিজ্ঞ নির্মাতা। চিত্রনাট্যের বিষয়বস্তুর উপর এবার গুরুত্ব দিয়ে ৬টি চলচ্চিত্রের জন্য নির্বাচন করা হয়েছে ৬জন পরিচালককে।
অনুদান পাওয়া সিনেমাগুলোর নির্মাতা ও ছবিগুলো হলো— নুরুল আলম আতিকের ‘লাল মোরগের ঝুঁটি’, মাহমুদ দিদারের ‘বিউটি সার্কাস’, এন রাশেদ চৌধুরীর ‘চন্দ্রাবতী কথা’, মাসুদ পথিকের ‘মায়া’, ফাখরুল আরেফীনের ‘ভুবন মাঝি’ ও শামীমা আকতারের ‘রিনা ব্রাউন’।
৩০ এপ্রিল বৃহস্পতিবার অনুদান কমিটির পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে বলে জানা গেছে। ২০১৫ সালের মধ্যে অনুদানপ্রাপ্ত সিনেমাগুলো নির্মাণ করে জমা দেয়ার শর্তে সরকারি অনুদান দেয়া হয়।
ছবি নির্মাণের জন্য সাধারণত সরকারি অনুদান হিসেবে দেওয়া হয় নগদ ৩৫ লাখ টাকা ও বিএফডিসির ১০ লাখ টাকার কারিগরি সহায়তা।
উল্লেখ্য, নির্বাচক কমিটির সদস্যদের মধ্যে ছিলেন মোরশেদুল ইসলাম, সাজেদুল আওয়াল, জাকির হোসেন রাজু, মামুনুর রশীদ, নাসির উদ্দিন ইউসুফ প্রমুখ।
[…]

Entertainment Image
Entertainment Image

পুরনো প্রেমের নতুন গল্প

প্রতি সপ্তাহেই সিনেমা মুক্তি পায়, দর্শককে একটু খানি বিনোদনের আশায় ছবি দেখতে হলে যায় কিন্তু কয়টা ছবি দর্শকের মন ছুয়ে যায়? সাম্প্রতিক সময়ে এই হার খুবই নগন্য। আর ভাল ছবির এই আকালের সময়ে শিহাব শাহীন নির্মাণ করলেন ‘ছুয়ে দিলে মন’। চলচ্চিত্রটির রিভিউ করেছেন সুদীপ্ত সাইদ।
১০ই এপ্রিল ছবিটি মুক্তি পাওয়ার পর থেকে ছবিটির গ্রহণযোগ্যতা দিন দিন বাড়ছেই-এ খবরটি আমার মনগড়া নয় এমনই তথ্য জানিয়েছেন স্বয়ং হল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিয়া আলা উদ্দীন। তিনি আরও জানিয়েছেন তরুণ প্রজন্ম ছবিটি গ্রহণ করেছে। ছুঁয়ে দিলে মন এর দর্শক আসলে তরুণরাই। শিহাব শাহীনও জানিয়েছেন তিনি অভূতপূর্ব সাড়া পাচ্ছেন। চলুন দেখে আসি এই সাড়া জাগানো ছবিটির অন্দর মহলে কি আছে? কেন ছুঁয়ে দিলো তরুনদের মন? তাদের হৃদয়ের কতটাই বা ছুঁতে পেরেছে ছবিটি।
‘ছুয়ে দিলে মন’ ছবিতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন আরিফিন শুভ ও মম। পর্দায় তাদের চরিত্র আবির ও নীলা। আবির ও নীলার প্রেম কাহিনী নিয়েই গড়ে ওঠেছে ছবির গল্প। চিরাচরিত প্রেমের উপাখ্যানই বলা যায়। যেখানে শৈশবে একে অপরের প্রেমে পড়ে আবির ও নীলা। তারপর বিষয়টি পরিবারের সবাই জেনে গেলে বিচার বসে। যে বিচারে নীলার ভুলে শাস্তি পায় আবির। এমনকি পুরো পরিবার নিয়ে হৃদয়পুর ছেড়ে ঢাকায় পাড়ি জমাতে হয় তাদের। কিন্তু কেউ কাউকেই ভুলতে পারে না। আবির পরিণত বয়সে আবার ঘটনাচক্রে নীলার কাছে ফিরে যায়। এরপর নানা ঘাত-প্রতিঘাতের ভেতর দিয়ে মিলন হয় আবির ও নীলার। গল্প এতটুকুই। এমন গল্প দর্শক অসংখ্যবার দেখেছেন। কিন্তু ‘ছুঁয়ে দিলে মন’-এ এই গল্পের উপস্থাপনায় একমাত্র ব্যতিক্রম।
শিহাব শাহীনের প্রথম ছবি এটি। নাটক-টেলিফিল্মের হাত পাকানো এই নির্মাতার প্রথম ছবিতেও টেলিফিল্মের কিছুটা আঁচ স্পষ্ট হয়ে ওঠেছে। তবে দৃশ্যধারণ আর গল্প বলার ঢঙে ছিল ভিন্নতা।...
[…]

Entertainment Image
Entertainment Image

‘লর্ড অব দ্যা রিংস’ এর চিত্রগ্রাহক অ্যান্ড্রু আর নেই

হলিউডের জনপ্রিয় সিনেমা ‘লর্ড অব দ্যা রিংস’ এর চিত্রগ্রাহক অ্যান্ড্রু লেসনি গত ২৭ এপ্রিল মৃত্যুবরণ করেন। অস্কারজয়ী এই চিত্রগ্রাহক হঠাৎ করেই গত সোমবার হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান।
৫৯ বছর বয়সী চিত্রগ্রাহক অ্যান্ড্রু লেসনি ২০০১ সালে মুক্তি পাওয়া ‘লর্ড অব দ্যা রিংস’ এ অসামান্য অবদানের জন্য অস্কার লাভ করেছিলেন। খ্যাতনামা এই চিত্রগ্রাহক ‘লর্ড অব দ্যা রিংস’ ও ‘হবিট’ সিনেমার সবগুলোতেই তার কৃতিত্ব দেখিয়েছেন। তিনি ‘আই অ্যাম লেজেন্ড’, ‘দ্যা লাস্ট এয়ারবেন্ডার’ এবং ‘হিলিং’ সিনেমা দিয়েও খ্যাতি অর্জন করেন।
অস্ট্রেলিয়ান এই চিত্রগ্রাহকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন তার সহকর্মীরা। অ্যান্ড্রু লেসনি সর্বশেষ ‘দি ওয়াটার ডিভাইনার’ সিনেমায় অভিনেতা ও এই সিনেমার পরিচালক রাসেল ক্রোর সঙ্গে কাজ করেছিলেন।
[…]

Entertainment Image
Entertainment Image

ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে পরমব্রত-কঙ্কনার ছবি ‘কাদম্বরী’

রবীন্দ্রনাথ এবং তারই বৌদি কাদম্বরী দেবীকে নিয়ে সমাজে নানা রটনা রয়েছে। রবীন্দ্রাথের সাথে কাদম্বরীর সম্পর্কটা কি শরীরের নাকি মনের? এমন প্রশ্ন নিয়েও হয়েছে প্রচুর বিতর্ক। আর সেই তর্ক বিতর্ক কথা মারিয়ে সুমন ঘোষ নির্মাণ করেছেন ছবি ‘কাদম্বরী’। আর ছবিটি মুক্তির প্রথম দিনেই প্রদর্শীত হবে ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে। রাষ্ট্রপতি প্রনবমূখার্জী স্বয়ং উপস্থিত থেকে দেখবেন রবীন্দ্রনাথ ও কাদম্বরীর সম্পর্কের গল্প।
জানাগেছে, ছবিটিতে কাদম্বরী চরিত্রে অভিনয় করেছেন বলিউড ও কলকাতা বাঙালি অভিনেত্রী কঙ্কনা সেন শর্মা। আর রবীন্দ্রনাথের চরিত্রে অভিনয় করেছেন ভারতীয় বাংলার অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়।
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জীবনে কাদম্বরীর প্রভাব ও তাদের পরস্পরের মধ্যে সম্পর্কের গল্প নিয়ে সুমন ঘোষের নির্মিত এই সিনেমাটি মুক্তি পাবে আগামী শুক্রবার ৮মে। আর ওই দিনেই প্রেসিডেন্ট ভবনের অডিটরিয়ামের রাষ্ট্রপতির জন্য দেখানো হবে ছবিটি।
রাষ্ট্রপতি ভবনে ছবি প্রদর্শনের ব্যাপারে আনন্দিত ছবির কলাকূশলীরাও। কঙ্কনাতো টুইট করে সেই উচ্ছ্বাসই ব্যক্ত করলেন। টুইটে কঙ্কনা বলেন, রাষ্ট্রপতি ভবনে ‘কাদম্বরী’ প্রদর্শীত হচ্ছে, এতে সম্মানিত বোধ করছি’।
[…]

Entertainment Image
Entertainment Image

সালমানের উদারতায় মুগ্ধ কাশ্মীরের ভিক্ষুক পরিবার

বলিউডের বর্তমান সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতা সালমান খান। সম্প্রতি নানা আইনি জুটঝামেলার মধ্যে থাকলেও তিনি বরাবরই একজন পরোপকারী মানুষ। নানা সময়ে নানাজনকে সাহায্য সহযোগিতা করেছেন। ফের একজন মহানুভব সালমানকেই দেখলো ভারতবাসী।
গত সপ্তাহে সালমান কাশ্মীর ছিলেন তার পরবর্তী ছবির শ্যুটিং করতে, সেখানেই এক গরীব পরিবারের করুন কাহিনী শুনে তার হৃদয় ব্যথিত হয়। অতঃপর তিনি স্বয়ং নিয়েছেন সেই দুঃখী পরিবারটির দায়িত্ব। এ যেনো রুপকথার কোনো মহানুভব যুবরাজ!
জানাগেছে, কবির খানের ‘বজরাঙ্গি ভাইজান’ ছবির শ্যুটিংয়ের জন্যে দীর্ঘদিন কাশ্মীরে ছিলেন সলমান। পহেলগাঁও-র যে অংশে তিনি শ্যুটিং করছিলেন, সেখানে বাস ৭৫ বছর বয়সী জাইনা বেগমের। তিনি ছাড়াও তার পরিবারে আছেন এক বিধবা মেয়ে ও তার চার নাতি নাতনি। অভাবের সংসার কোনও ক্রমে চলে ভিক্ষে করে। সলমান খানের সেখানে আসার কথা কানে যাওয়াতে এক প্রতিবেশী জাইনা বেগমকে বোঝান যাতে তিনি সাহস করে একবার সলমানের কাছে গিয়ে তার দুঃখের কাহিনী বলেন। সেই প্রতিবেশির কথা শুনে সাহস আর আশায় বুক বেঁধে জাইনা পৌঁছে যান সিনেমার সেটে। সেখানে গিয়ে সালমানের চার দেহরক্ষীকে তিনি অনুরোধ করেন যাতে একবার সালমানের সঙ্গে তার দেখা করিয়ে দেন তারা। একথা সালমানের কানে পৌঁছালে, তৎক্ষণাৎ‌ তিনি জাইনাকে ডেকে পাঠান এবং মন দিয়ে তার সব কথা শোনেন।
জাইনার কষ্ট এতটাই মন ছুঁয়ে গিয়েছিল সালমানের যে তৎক্ষণাৎ‌‌ তিনি তার বড় নাতি ১৮ বছরের গোহার আহমেদ ভাটকে ছবির সেটে কাজে লাগিয়ে দেন। শুধু তাই নয়, তিনি জাইনাকে আশ্বস্ত করে বলেন যে, কাশ্মীরে ছবির শুটিং শেষ হয়ে গেলে তিনি তার বড় নাতিকে চাকরি দেবেন তার নিজের কাছে মুম্বাইতেই।
এবং কাশ্মীরের ওই ভিক্ষুক পরিবারটিকে সালমান কথা দেন যে, আর কোনোদিন তাদের কষ্টে দিন যাবে না। তাদের দায়িত্ব তিনি নিয়ে নিয়েছেন।...
[…]

Entertainment Image
Entertainment Image

‘সুতপার ঠিকানা’ মায়ের সাথে

মনে করতে পারেন,জীবনের প্রথম কবে সিনেমা হলে গিয়ে সিনেমা দেখেছিলেন? মনে করতে পারেন কোন সিনেমা হলে কার সাথে দেখেছিলেন? ধারনা করা যায়, জীবনের প্রথম চলচ্চিত্রটি হয়তো মায়ের সাথে গিয়ে, মায়ের পাশে বসেই দেখেছিলেন। ‘সুতপার ঠিকানা’ হচ্ছে সেই চলচ্চিত্র যেটি আপনি আপনার মা’কে সাথে নিয়ে এসে দেখবেন।’
এমন আহ্বান নিয়েই আট মে সারাদেশে মুক্তি পাচ্ছে প্রসূন রহমান পরিচালিত চলচ্চিত্র সুতপার ঠিকানা। উপমহাদেশে নারীজীবনের অবস্থান ও চালচিত্র নিয়ে সরকারী অনুদান সহায়তায় নির্মিত হয় এ পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটি।
নির্মাতা জানান, নারীর জীবনে বাবার বাড়ি থেকে শ্বশুরবাড়ি, শ্বশুরবাড়ি থেকে স্বামীর বাড়ি হয়ে ছেলের বাড়িতে পরিবর্তিত ও স্থানান্তরিত হওয়ার যে চক্র প্রবাহমান সেখান থেকে বেরিয়ে নিজের ঠিকানা খোঁজার জন্যে পথে নামতে বাধ্য হওয়া এক মায়ের গল্প ‘সুতপার ঠিকানা’।
এতে কিশোরী থেকে মধ্যবয়স পর্যন্ত সুতপা নামের একজন নারীর বেড়ে ওঠা, তাঁর ত্যাগ ও সংগ্রামের গল্প বলা হয়েছে। আর এতে ১৭ বছর থেকে ৪৭ বছর বয়সী একজন নারীর চরিত্রে নিজেকে উপস্থাপন করছেন অভিনয় শিল্পী অর্পণা ঘোষ। ছবিতে আরো অভিনয় করেছেন- শাহাদাৎ হোসেন, জয়ন্ত চট্টোপাধায়, মাহমুদুল ইসলাম মিঠু, সায়কা আহমেদ, এসএম মহসীন, রাজীব সালেহীন, রবি শিকদার, আনোয়ার চৌধুরী, জুনিয়া ডলি, মীম চৌধুরী, নাভিদ মুন্তাসীর এবং কুমার নিবিড় সহ আরো অনেকে।
সুতপার ঠিকানা’র সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন কুমার বিশ্বজিৎ। ৬টি গানের মধ্যে ২ টি গেয়েছেন কুমার বিশ্বজিৎ নিজে, ২ টি গেয়েছেন সামিনা চৌধুরী, একটি চন্দনা মজুমদার আরেকটি গেয়েছেন কণা ও কিশোর।
[…]

Entertainment Image
Entertainment Image

ফারুকীর তিতা কথা

বাংলাদেশে ভাস্কর্য শিল্পের পথিকৃৎ নভেরা আহমেদ আর নেই। গতকাল মঙ্গলবার ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে তিনি মারা গেছেন। দেশ ছেড়ে দীর্ঘদিন প্রবাস যাপন করা এই নিভৃতচারী শিল্পীকে নিয়ে লিখেছেন নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী।
আসুন এবার একটু তিতা কথা বলি।
এই বাংলা বাঘিনী সইতে পারে না । কখনো কখনো বাঘও সইতে পারে না । আমাদের মতো দেখতে কেউ যদি আমাদের চেয়ে সাইজে বড় হয়ে যায়, তখন আমরা যেনো অস্তিত্বের সংকটে পড়ে যাই। তাকে টেনে হিঁচড়ে নামানোর আগ পর্যন্ত আমি নিজের অস্তিত্ব টের পাই না । আর ঘটনা যদি হয় কোনো বাঘিনীর সংগে তাহলে তো কথাই নাই । তাকে অপদস্থ করতে করতে নর্দমায় নামানোর আগে থামাথামি নাই।
ভাস্কর নভেরা আহমেদ তেমনি এক বাঘিনী । এই অঞ্চলের ভাস্কর্য শিল্পের মাতা। কোন অভিমানে তিনি দেশ ছেড়ে বিদেশে আড়ালে রইলেন তার দালিলিক প্রমাণ আমাদের হাতে না থাকলেও আমরা বুঝতে পারি তার পেছনে আমাদের পিতামহদের কি কি পাপ আছে, কি কি ভাবে আমরা নভেরার মনে বিষ ঢুকিয়ে দিয়েছি।
এই শিল্পী সব অভিমান সাথে নিয়ে চলে গেছেন অন্য দুনিয়ায়।
উনি কখনোই উনাকে ডিফেন্ড করতে আসেন নাই, প্রচার করতে আসেন নাই। সামনে আর কখনো আসবেনও না ।
কিন্তু তবু তিনি বাংলায় আধুনিক ভাস্কর্যের মা হয়েই থাকবেন। শহীদ মিনারের সৃষ্টির পেছনে তাকে কোনো কৃতিত্ব তাকে দেয়া হউক বা না হউক।
[…]

Entertainment Image
Entertainment Image

‘ঋতুপর্ণ ঘোষ বলেছিলো আমাকে হৈমন্তির মতো দেখায়..’

আমার জীবনে অনেকবার মনে হয়েছে রবীন্দ্রনাথের সময় কেন আমি জন্ম নিলাম না। তাহলে তার সাথে প্রেম করতে চাইতাম। তার সঙ্গে যোগ আমার সেই ছোটবেলা থেকেই। বাবা রাইটার ছিলো। পারিবারিকভাবেই তার সৃষ্টিকর্মের সংস্পর্শে ছিলাম। তার গল্প, তার গান, তার, কবিতা এসব আমি পড়েছি। আমার কাছে মনে হয়েছে রবীন্দ্রনাথ পড়লে মানুষের মনে প্রেম জাগে, বিশালতা জাগে, সংকীর্ণতা দূর হয়। রবীন্দ্রনাথের গান কালকে রাতেও শুনছিলাম। ভালো লাগে ঘুম থেকে উঠে তার গান শুনতে।
রবীন্দ্রনাথের কোন নাটক করা হয়নি আমার। অনেক অফার এসেছে। কিন্তু আমি ফিরিয়ে দিয়েছি। আমার কাছে মনে হয়েছে রবীন্দ্রনাথের নাটক চিত্রায়িত করতে যথেষ্ট আয়োজন ও যোগ্যতা দরকার। রবীন্দ্রনাথ এমন কোন হালকা ব্যাপার না। দুই আড়াই লাখ টাকা বাজেটে রবীন্দ্রনাথের নাটক বানাতে যাওয়া ধৃষ্টতা।
রবীন্দ্রনাথ নিয়ে আমার একটা মজার অভিজ্ঞতা আছে। তখন আমি অনেক ছোট। কলকাতায় একটা নাচের অনুষ্ঠানে গিয়েছি নাচ করতে। সেখানে একটা ফাইভ স্টার হোটেলে উঠেছি আমরা। সেখানে উঠেছেন ঋতুপর্ণ ঘোষও। বাইরে বৃষ্টি হচ্ছিলো। উনি বারান্দায় খুব চিৎকার করছিলেন। গিয়ে দেখলাম উনি ছাদে বৃষ্টিতে ভিজতে চান। কিন্তু কতৃপক্ষ ছাদের তালা খুলছে না। অনেক কষ্টে ছাদের তালা খোলা হলো। তিনি আমাদের সবাইকে নিয়ে ছাদে উঠলেন। আমরা বৃষ্টিতে ভিজলাম ছাদে। ছাদে ভিজতে ভিজতে ঋতুপর্ণ ঘোষ বলেছিলো আমাকে হৈমন্তির মতো দেখায়..
[…]