Sports Image

এ্যারগ্যান্ট তিনি এ্যারোগ্যান্ট রোনালদো



স্রেফ অন্যান্যদের মতো খেলা থেকে উঠে যেতে পারতেন আহত চোখ নিয়ে ৷ কিন্তুু না ৷ তিনি যে বর এ্যারোগেন্ট ৷ এক চোখে ব্যান্ডিজ নিয়ে খেললেন পুরো মাঠ দাপিয়ে ৷করলেন গোল ,অানন্দে ভাসল ৮৯ মিলিয়ন মাদ্রিদিস্তা কাদঁল কাতালান পার ৷ মানুষ খামখেয়ালিপনা হয় ৷ তাই বলে এরকম ? ভালবাসেন গারি চালাতে ৷ তার চেয়েও বেশি বাসেন সবার আগে ট্রেনিং সেশনে যেতে ৷ নিজ গারি চালাচ্ছিলেন মাত্রাতিরিক্ত স্পিডে ৷ ফলাফল ? মারাত্মক দূর্ঘটনায় বিধ্বস্ত গারির সামনের অংশ ৷ হাহাকার পুরো ফুটবল বিশ্বে ৷ কোন হাসপাতালে রোনালদো ? হই হই রই রই ,খোজঁ খোজঁ ৷ কিন্তুু কোন খোজঁ পাওয়া যাচ্ছেনা ৷ যাবেই বা কেন, সবার আগেই সেদিনই ট্রেনিং সেশনে চলে গেলেন রোনালদো ৷ অবশ্য সেদিন পরে আর ট্রেনিং করেননি তিনি৷

এবার ইঞ্জুরিটা হাটুঁতে ৷ বর দায়িত্ব কাধেঁ এবার ৷ বাচাঁতে হবে পর্তুগালকে ৷ প্রতিপক্ষ ? সুইডেন ৷ মাঠ ? ঐ সুইডেনেরই ৷ নতুন মাঠ,নতুন দর্শক সাথে আবহাওয়াও ৷কিন্তুু ব্যাথা কি দমাতে পারে সি আর সেভেন কে ? করেননি কোন ট্রেনিং সেবার ৷ সোজা মাঠে নেমে যা করলেন তা একপ্রকার অমানুবিক ৷ গুনে গুনে তিন তিনবার করলেন গোওওওল ৷ বাকিটা ইতিহাস ৷ ঐ ম্যাচে ইঞ্জুরি নিয়ে খেলার ফল দিয়েছিলেন সিজনের পরের চার ম্যাচ না খেলে ৷ভাগ্যদেবী সাহসীদের সাথেই থাকেন বটে ৷

ইতিহাসে প্রথম কারও পায়ের জাদু আটকাতে তাকে করা হলো কালো জাদুঁ ৷ ঘানাইয়ান তান্ত্রিকের জাদুঁতে কাজে দিচ্ছেনা কোন চিকিৎসকের ওষুধও ৷ ব্রাজিল বিশ্বকাপ ৷ কোন প্রাকটিস ম্যাচ খেলতে পারেননি ৷ পারেননি ট্রেনিং সেশনে নামতেও ৷ পায়ের তীব্র যন্ত্রনার জন্য মাঠে হেটেঁছেন খুরিয়ে ৷ পেইন কিলার দিয়ে মাঠে নেমেছেন তিনি ৷ মধ্যবিরতিতে পেইন কিলার নেবার দৃশ্য চোখে আজও ভাসে ৷ কতটা পারতেন মেসি,ইব্রাহিমোভচিরা ভাঙ্গাচোরা দলকে ভাঙ্গা হাটুঁ নিয়ে এগিয়ে নিতে ? পারতেন না৷

এবারের গল্পটা সুপার কাপের ৷ ১২ বছরে ইউরোপিয়ান সুপার কাপ ওঠেনি মাদ্রিদের ঘরে ৷ প্রতিপক্ষ সেভিয়া ৷ হাটুঁর ব্যাথা তখনও সারেনি ৷ আইসপ্যাক বেধেঁ পেইনকিলার প্রয়োগ করে মাঠে নামলেন আবারো ৷ হার মানল ব্যাথা ৷ করলেন জোরা গোল ৷ ফলাফল,চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ ৷