Health Image

দেহের ওজন কমাতে সাহায্য করে এমন ৪ টি ফ্যাট জাতীয় খাবার



ফ্যাট জাতীয় খাবার দেহের ওজন কমাবে তা শুনে নিশ্চয়ই অবাক হচ্ছেন। কারণ আমরা জানি ফ্যাট জাতীয় খাবার খেলে আমরা আরও বেশি মোটা হয়ে যাবো। আর এখন যদি ওজন কমানোর জন্য ফ্যাট জাতীয় খাবারই যদি খেতে হয় ব্যাপারটা একটু অন্যরকম তাইনা। কিন্তু ব্যাপারটি যেমনই হোক না কেন গবেষণায় বলা হয়েছে ফ্যাট জাতীয় খাবারই আপানর দেহের ওজন কমাতে সাহায্য করবে বেশি। তাই চলুন জেনে নেই খাবার গুলো সম্পর্কে।

ঘাস খাওয়ানো গরুর মাংস

নিউট্রিশন জার্নালের গবেষণায় এসেছে যে, ঘাস খাওয়া গরুর মাংসে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিডের পরিমাণ অনেক বেশি যা আমাদের হৃদপিণ্ডের সমস্যা থেকে রক্ষা করে থাকে। ঘাস খাওয়ানো গরুর মাংসে স্বাভাবিক ভাবেই ক্যালরি কম থাকে অন্যান্য মাংসের তুলনায়। কারণ একটি সাধারণ গরুর মাংসের টুকরায় ৩৮৬ ক্যালরি থাকে এবং ফ্যাট থাকে ১৬ গ্রাম ও একটি ঘাস খাওয়ানো গরুর মাংসের টুকরায় ২৩৪ ক্যালরি ও ফ্যাট থাকে মাত্র ৫ গ্রাম।

অলিভ অয়েল

অলিভ অয়েল আমাদের দেহের অনেক উপকার করে থাকে। অলিভ অয়েল আমাদের দেহের ক্যান্সার প্রতিরোধ করে, আমাদের হৃদপিণ্ডের শক্তি বৃদ্ধি করে ও চর্বি রোধ করে থাকে। অবসিটি এর নতুন গবেষণায় এসেছে যে, অলিভ অয়েলে আছে অ্যাডিপন্সটিন নামের এক জাতীয় প্রোটিন পদার্থ ও প্রোটিন যা আমাদের দেহের ওজন ঠিক রাখতে সাহায্য করে থাকে। তাছাড়া অলিভ অয়েলের এর অ্যাডিপন্সটিন নামক পদার্থটি আমাদের দেহে হরমোনের মাধ্যমে শরীরের চর্বি কমাতে সাহায্য করে থাকে। তাই দেহের ওজন কমাতে যেকোন খাবার, চাইলে ফ্যাট জাতীয় খাবারও অলিভ অয়েল দিয়ে রান্না করুন।
ভোজনযোগ্য নারিকেল তেল

নারিকেলে আছে উচ্চ মাত্রায় ফ্যাট। এই সম্পূর্ণ ফ্যাট আসে লিউরিক এসিড থেকে ও অন্যান্য উপাদান থেকে যা ব্যাকটেরিয়া ধংস করে দেহের কলেস্টেরলের মাত্রা ঠিক রাখে। একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, নারিকেল তেল আমাদের দেহের ওজন বৃদ্ধি কমিয়ে দেয়। এবং একটি পরীক্ষায়, এক পক্ষের মানুষকে কিছুদিন নারিকেল তেল খেতে দেয়া হয়েছিল ও অন্য পক্ষের মানুষদের সয়াবিন তেল দেয়া হয়, তাপর কিছুদিন পর দেখা গিয়েছে যে যাদের নারিকেল তেল দেয়া হয়েছিল তাদের ওজন হ্রাস পেয়েছে। তাই আপনি নারিকেল তেল রাখতে পারেন আপানর খাদ্য তালিকায়।

ডার্ক চকলেট

চকলেটপ্রেমীদের জন্য সুখবর, আপনার পেটের মেদ কমাবে ডার্ক চকলেট। একটি গবেষণায় এসেছে যে কোন ব্যক্তি যদি ভারী কোন খাবার খাওয়ার আগে ৩.৫ গ্রাম ডার্ক চকলেট খেয়ে থাকেন এবং ঠিক একই সময়ে যদি কেউ মিল্ক চকলেট খেয়ে থাকে তাহলে যেই ব্যক্তি ভোজনের আগে ডার্ক চকলেট খেয়েছে তার ১৭ ক্যালরি খরচ হয়েছে। কারন গবেষণা বিশ্বাস করে যে ডার্ক চকলেটে আছে পিউর কোকো বাটার ও স্টিয়ারিক এসিড যা হজম গতি বৃদ্ধি করে। অন্য দিকে মিল্ক চকলেটে আছে ফ্যাট বাটার যা খুব দ্রুত ওজন বাড়িয়ে দেয়। আর ডার্ক চকলেট আমাদের ক্ষুধা নিবারন করে ও দেহের ওজন কমাতে সাহায্য করে।