Entertainment Image

আজো অমলিন হয়ে আছেন মেরিলিন মনরো



১৯৬২ সালের ৫ আগস্ট চলে গেছেন পৃথিবী ছেড়ে মেরিলিন মনরো। কিন্তু আজও যেন অমলিন হয়ে আছেন তিনি।মৃত্যুর ৫০ বছরেরও বেশি সময় পেরিয়ে গেছে৷কিন্তু ‘বিউটি আইকন’ হিসেবে আজও ভক্তদের হৃদয়ে তিনি রয়ে গেছেন। মেরিলিন মনরোর অসাধারণ কিছু ছবি তুলেছিলেন বিখ্যাত ফটোগ্রাফার ব্যার্ট স্ট্যার্ন৷

১৯২৬ সালের ১লা জুন যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে জন্ম হয় মনরোর৷ আসল নাম ছিল নরমা জিন মর্টেনসন৷ এরপর মাত্র ১৬ বছর বয়সে জোর করে তাকে বিয়ে দেয়া হয়৷ কয়েক বছর পর অবশ্য তিনি বিবাহবিচ্ছেদ করেন৷

মনরো ৪০-এর দশকে কাজ করতেন অস্ত্র কারখানায়৷ সেসময় এক সেনা আলোকচিত্রী তাকে সামরিক পত্রিকার প্রচ্ছদের মডেল হওয়ার প্রস্তাব দেন৷ মনরো স্বচ্ছন্দে তাতে রাজি হন৷ এরপরেই মডেল হিসেবে তার নাম ছড়িয়ে পড়ে৷আর তখন থেকেই তার নতুন নাম হয় মেরিলিন মনরো৷

১৯৬২ সালে একটি ক্যালেন্ডারে তার নগ্ন ছবি প্রকাশিত হয়৷ স্বাভাবিকভাবেই এটা নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে৷ সাংবাদিকরা তাকে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘আমি কিছু পড়িনি তা ঠিক নয়, তবে একটি রেডিও তো ধরেছিলাম আমি৷’

খুব অল্প সময়েই সাফল্যের শিখরে পৌঁছে ছিলেন অভিনেত্রী মেরিলিন মনরো৷ পরবর্তীতে অনেক অভিনেত্রী ও সংগীত শিল্পী তাঁকে অনুকরণ করেন৷ পপ মিউজিক তারকা লেডি গাগা অথবা ম্যাডোনার কাছে তিনি ‘সেক্স সিম্বল’ বা ‘যৌন আবেদনময়ী’-র একজন আদর্শ মডেল৷

মেরিলিন মনরো কিছু গানও রেকর্ড করেছিলেন, যা আজও অবিস্মরণীয়৷ ‘আই ওয়ানা বি লাভড বাই ইউ’, ‘ডায়মন্ডস আর আ গার্লস বেস্ট ফ্রেন্ডস’ – তাঁর বিশ্বখ্যাত কয়েকটি গান৷

মেরিলিন সংক্ষিপ্ত জীবনে তিন তিনবার বিয়ের করেন৷ তৃতীয়বার মার্কিন কাহিনিকার আর্থার মিলারকে বিয়ে করেন তিনি৷ এই বিয়েতে বেশ সুখিই হয়েছিলেন মনরো৷ কিন্তু সে সুখ বেশিদিন টেকে না৷ মাত্র ৩৬ বছর বয়সে মারা যান এই কিংবদন্তি৷ মাত্রাতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ খেয়ে তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন বলে ধারণা করা হয়৷