Lifestyle Image

ভালোবাসার মানুষকে যা বলবেন না



খুব অজান্তেই আপনি আপনার মনের মানুষটির মনে আঘাত করে বসতে পারেন। অথচ আপনি আপনার মনের মানুষটিকে খুবই ভালবাসেন। কিন্তু তারপরও আপনার সামন্য ব্যবহারে আপনার সঙ্গীটি মনে আঘাত পেতে পারে। আর এ আঘাত আপনি নিশ্চয় তাকে দিতে চান না। তাহলে জেনে নিন সঙ্গীর সঙ্গে চমৎকার সম্পর্ক ধরে রাখতে আপনি কোন ব্যাপারগুলোতে সতর্ক থাকবেন। এগুলো হলো:

১. আপনার সঙ্গী আপনার চেয়ে কোন একটি ব্যাপারে ছোট হতেই পারেন। শিক্ষাগত যোগ্যতা, সামাজিক পদমর্যাদা, উচ্চতার দিক দিয়ে ছোট কিংবা কম বেতন পান ইত্যাদি। কিন্তু ছোট হলেই এসব ব্যাপারে কখনোই খোটা দেবেন না। এতে তিনি মনে আঘাত পেতে পারেন, তেমনি সংসার ভেঙ্গে যাওয়ারও ভয় থাকে।

২. আপনি যেমন অনেক সময়ই নিজের আয় ব্যয় সম্পর্কে জবাবদিহি করতে চান না তেমনি সঙ্গীর আয়-রোজগারের ব্যাপারে যতটা সম্ভব কম কথা বলুন। তার আয় কম, সংসার চলছে না, আয় বাড়াতে হবে ইত্যাদি কখনোই বলবেন না। তাছাড়া আপনার সঙ্গী কীভাবে খরচ করবে, কেন খরচ করবে এসব নিয়ে বেশি কথা জিজ্ঞেস করে বিরক্ত করবেন না। আর বারবার অর্থনৈতিক ব্যাপারে কাউকে উত্যক্ত করা মানে তাঁকে ছোট করার চেষ্টা করা। তাই এ কাজটি করা থেকেও বিরত থাকুন।

৩. আপনি যেমন আপনার পরিবারের সদস্য, আত্মীয়-স্বজনকে ভালবাসেন, তেমনি আপনার সঙ্গীও তার পরিবার-পরিজনকে ভালবাসে। তাই একে অপরের আপনজনদের নিয়ে খারাপ কথা বলা থেকে বিরত থাকুন। আর অবশ্যই বাইরের কারো সামনে তাকে ছোট করে কটু কথা না বলাই ভাল। এতে আপনার প্রিয় মানুষটি আপনার উপর ক্ষুব্ধ হতে পারেন।

৪. কখনোই নিজের মনের মানুষটির সাথে অন্য কোন মানুষের তুলনাতে যাবেন না। কারণ মনের মানুষ সবসময়ই তুলনাহীন। অনেকেই বলেন, দেখ মানুষকে তোমার চেয়ে কত ভাল লাগছে আর তুমি ক্ষ্যাতের মত। এইসব কথাবার্তা কখনোই বলবেন না। এতে মনোমানিল্য হবে এবং সংসারে আপনাকে করবে অসুখী।

৫. বর্তমান যুগে ছেলেদের মেয়ে বন্ধু আর মেয়েদের ছেলে বন্ধু তেমন কোন বড় বিষয় নয়। কিন্তু বিয়ের পর যদি আপনি আপনার মনের মানুষের সামনে বন্ধুদের সাথে অত্যধিক মেলামেশা করেন তবে সঙ্গীটির মনে অহেতুক সন্দেহ চলে আসতে পারে। আবার তিনি মনে করতে পারেন যে তার চেয়ে আপনার বন্ধুরাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আর এ কারণেই তিনি মন খারাপ করে থাকবেন। খুবই সামান্য বিষয় তবু এড়িয়ে চলাই ভাল।

পরিশেষে, সর্বস্ব উজাড় করে নিঃস্বার্থভাবে আপনার মনের মানুষকে ভালবাসুন। সুখে শান্তিতে থাকুন।