Entertainment Image

ওয়েটা মেকআপে অবিশ্বাস্য চরিত্র



হারকিউলিসের অর্ধেক ঘোড়া অর্ধেক মানুষের কথা মনে আছে? কিংবা 'লর্ড অফ দ্য রিং' এর হ্যাংলা পাতলা, চোখ বড় বড় নেড়া মাথার গুলামকে? 'হেলবয়'এর সেই রেডকে, যে উত্তেজিত হলেই আগুনের মতো লাল হয়ে যেত? যদি কোন চরিত্রকেই চিনতে না পারেন, অন্তত 'অ্যাভাটার'এর কথা নিশ্চয়ই মনে আছে? এই সব চরিত্রকে শুধুমাত্র ভিডিওগ্রাফি কিংবা আফটার এফেক্টস্ নয়- মেকআপের কারসাজি এবং পরিশ্রমের ফলেই সাজিয়ে তােলা হয় চরিত্র অনুসারে। রূপকথা কিংবা কল্পবিজ্ঞানভিত্তিক যেকোন ছবিতেই এমন অনেক চরিত্র পরিচিত হয় আমাদের সঙ্গে। 'পারসি জ্যাকসন', 'ম্যালিফিশেন্ট', 'টাইটানস', 'প্রিন্সেস অব পারশিয়া', ' এক্স মেন', 'হ্যারি পটার'সহ অসংখ্য ছবির উদাহরণ টানা যায় ওয়েটা মেকআপ চিনতে। হ্যাঁ, এমন অদ্ভুতুড়ে মেকআপকে এককথায় বলা হয় ওয়েটা মেকআপ।


মূলত নিউজিল্যান্ডের এক ধরণের পোকা’র চরিত্র থেকেই রূপালী পর্দায় এইসব চরিত্র তৈরির ধারণা নেয়া হয়েছে। সেই পোকা মূলত ওয়েটা গোত্রের অর্ন্তগত। যা আমাদের দেশের অনেকটা কালো ঘাসফড়িং এর মতো। এই মেকআপ ঘরাণা ব্যবহারে অনেক ছবিই হয়েছে দর্শক সমাদৃত। 'থর', 'এক্স ম্যান', 'কিং কং', 'অ্যাভেঞ্জারস', 'আয়রন ম্যান', 'উল্ফ ম্যান', 'ক্যাপ্টেন আমেরিকা'- এগুলো সবই ওয়েটা মেকআপ ঘরাণার সিনেমা।

হলেউডের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে ওয়েটা ফিল্ম বেশ জনপ্রিয়। ওয়েটা পোকার চরিত্র থেকে ধারণা নিয়ে এই ধরণের মুভি চরিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়। মূলত চরিত্রের পজিটিভ কিংবা নেগেটিভ দিক অর্থাৎ নায়ক অথবা ভিলেন চরিত্রে ফুটিয়ে তুলতে জুড়ি নেই এই মেকআপের। এছাড়া ভৌতিক চরিত্রের জন্য এই মেকআপ দিয়ে জোম্বি, প্রেতাত্মা বা মানুষখেকো চরিত্র তৈরি করা হয়। পর্দায় যাদের দেখে আমরা ভয় পাই, তা মূলত ওয়েটা মেকআপের খেল।

অনেকে হয়তো দেখে বিশ্বাসই করবেন না যে একজন মানুষকে মেকআপ দিয়ে এমন করা হয়েছে। চরিত্রগুলো এনিমেটেড, এমন ভাবলেও দোষ দেয়ার কিছু নেই। কিন্তু আসলে এগুলো মেধা, একাগ্রতা আর পরিশ্রমের ফল। একজন অভিনয় শিল্পীকে মেকআপ এর মাধ্যমে অন্যরকম এক চরিত্রে ফুটিয়ে তোলা হয়। বাস্তবসম্মতভাবে এই ধরণের চরিত্র বা ভৌতিক চরিত্রগুলো সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলা একজন মেকআপ আর্টিস্ট এর কাজ।

কাজটি বেশ কষ্টসাধ্য, ব্যয়বহুল এবং সময়ের। অবশ্য মেকআপের জন্য একটি ইন্ডাস্ট্রিই দাঁড়িয়ে গেছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ইউনিভার্সিটির ফাইন আর্টস বিভাগগুলোয় এখন মেকআপ বিষয়ে পড়ানো হয় যার মধ্যে ওয়েটা মেকআপ অন্তর্ভুক্ত। বেশ কয়েকটা ধাপে এই মেকআপ পর্বটি শেষ করা হয়। জেলাটিন, তরল ল্যাডেক্স, তুলা, কাপড় ও রং এর সাহায্যে ফুটিয়ে তোলা হয় চরিত্রের কাঠামো। এরপর সেই চরিত্রগুলো ভিডিও করে তাতে আফটার ইফেক্ট ব্যবহার করে বিশ্বাসযোগ্য করে তোলা হয় দর্শকের কাছে।

আবার এইসব মেকআপ আর্টিস্টরা হলিউড এবং নিউজিল্যান্ডে ওয়েটা ইভেন্ট ও ওয়েটা এক্সিবিশন করে নিয়মিত। ওয়েটা মেকআপের এমন প্রদর্শনী অনেক জনপ্রিয়ও। এই মেকআপ প্রক্রিয়া জটিল হওয়ার কারণে বিভিন্ন মেকআপ মাস্টার নিজেরাই ব্যক্তিগতভাবে প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তুলেছেন। যেখানে মেকআপ আর্টিস্ট হতে চাইলে যে কেউ প্রশিক্ষণ নিতে পারেন। ওয়েটা মেকআপ বিষয়ক প্রশিক্ষণের ইংরেজি বইও অনলাইনে পাওয়া যায়। নিউজিল্যান্ড একাডেমি অব ফাইন আর্টসে মেকআপ বিষয়ে অনার্স কোর্স রয়েছে। ওয়েটা গেম, ভৌতিক জোম্বি গেমও বেশ জনপ্রিয়।