Travel Image

উয়ারী – বটেশ্বর



এই দুই জায়গা একদা ছিল রাজধানী। প্রাচীন আমলেই গড়ে উঠেছিল উয়ারি – বটেশ্বর। যুদ্ধরাজ বম্বেট শক্তিমান গ্রিকবীর আলেকজান্ডার যে জাতির ভয়ে পালিয়ে গিয়েছিলেন সে জাতির বসবাস ছিল এই দুই গ্রামেই। সেই জাতির নাম গঙ্গারিডি। নরসিংদীতেই ছিল তাদের বসবাস। উয়ারি – বটেশ্বরে আড়াই হাজার বছরের প্রতনিদর্শন আবিষ্কারের কাহিনী একটি জনপদের অস্তিত্বের কথা প্রমাণ করে দেয়। ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক দিলীপ কুমার চক্রবর্তী উয়ারী দুর্গনগরীকেই এই জনপদের রাজধানী মনে করেন। এখানে পাওয়া গেছে প্রাচীন দূর্গনগরী, বন্দর, রাস্তা, র্পাশ্বরাস্তা, পোড়ামাটির ফলক, পাথরের পুঁতি, মুদ্রাভান্ডারসহ উপমহাদেশের প্রাচীনতম রৌপ্যমুদ্রা যা নরসিংদী জেলা সদর থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে বেলাব উপজেলার আমলার ইউনিয়নে উয়ারী – বটেশ্বরে অবস্থিত। উয়ারি – বটেশ্বরে পাওয়া গেছে স্বল্প মূল্যবান পাথরের গুটিকা, কাচের গুটিকা, রৌদ্রমুদ্রা, উচ্চমাত্রায় টিনমিশ্রিত ব্রোঞ্জ নির্মিত নবযুক্ত পাত্র। উত্তরভারতীয় মসৃণ কালো মৃৎপাত্র প্রভৃতি নির্দশনগুলোকে প্রতাত্ত্বিকরা খ্রিস্টপূর্ব ৪৫০ অব্দ থেকে খ্রিস্টীয় প্রথম শতক র্পযন্ত সীমায় ব্যবহৃত হয়েছে বলে ধানণা করেছেন। উয়ারী গ্রামে একটি অস্থায়ী জাদুঘর প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঢাকা অথবা সিলেট থেকে সড়কপথে রওনা দিলে আপনি মরজাল বাসস্ট্যান্ডে নেমে যাবেন। মরজাল থেকে ৪ কি. মি. দূরে উয়ারী – বটেশ্বর। এ পথে রিকশা নিয়ে আসা যাবে।

মনোহরদী উপজেলা সদর থেকে কয়েক মাইল দূরে গেলে বনাঞ্চল দেখতে পাবেন। এখানে বানরসহ নানান জাতের বন্যপ্রাণী বসবাস। এছাড়া রঘুনাথ মন্দির ঘুরে দেখুন। এটি খুবই আকর্ষনীয়।




নরসিংদী যেভাবে যাবেন
ঢাকা-চট্টগ্রাম রোডের কাঁচপুর ব্রিজ পার হয়ে বামে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ধরে একটু এগুলেই নরসিংদী। ঢাকা থেকে নরসিংদীর দূরত্ব মাত্র ৫৪ কিলোমিটার। গুলিস্তান, সায়েদাবাদ ও আব্দুল্লাহপুর থেকে নরসিংদীর বাস পাওয়া যায়। বিভিন্ন পরিবহন ৫ মিনিট পর পর নরসিংদী যাচ্ছে। যেতে সময় লাগে দেড় ঘণ্টা। ভাড়া ৬০ টাকার মতো। ট্রেনেও নরসিংদী যেতে পারবেন। ঢাকার কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে নরসিংদী যেতে ট্রেনে সময় লাগে ১ ঘণ্টার মতো, ভাড়া ৩০ টাকা।

যেখানে থাকবেন
নরসিংদী সকালে এসে ঘুরেফিরে রাতে ফেরত যেতে পারবেন। শহরে থাকা-খাওয়ার বেশ কয়েকটি ভালো হোটেল আছে, আছে নরসিংদী শহরে ডাকবাংলোও, রয়েছে হোটেল।