Technology Image

নাজিমগড় রিসোর্ট



সিলেটের কথা উঠলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে সবুজ চা বাগানের কার্পেট, মাধবকুণ্ডের জলপ্রপাত, জাফলংয়ে ভারত থেকে পাথর নিয়ে নেমে আসা নদী। দিনের বেলা এসব জায়গা ঘুরে এসে রাতটা যদি শহরের হইচইয়ের মধ্যে কোনো হোটেলে কাটাতে হয় তাহলে বেড়ানোর আমেজটাই নষ্ট হয়ে যায়। রাতটা হয়ে যায় আনন্দহীন শহুরে সময়।

তবে হইচইয়ের মধ্যেও সিলেট শহর থেকে সামান্য দূরে খাদিমনগরে এক নির্জন দ্বীপ গড়ে তুলেছে নাজিমগড় রিসোর্ট। তাদেরই ব্যবস্থাপনায় মেঘালয় সীমান্তে লালাখালে তৈরি হয়েছে পিকনিক স্পট। দিনের বেলা লালাখালে নৌকায় বেড়ানো কিংবা পাশের খাসিয়া পল্লী ঘুরে দেখা, হয়তোবা চা বাগানের সরু পথে হাঁটাহাঁটি করে বিকেল-সন্ধ্যায় নিরিবিলি সময় কাটানো। এক আদর্শ অবসর যাপন কেন্দ্র এ নাজিমগড় রিসোর্ট।

নাজিমগড় রিসোর্টে থাকার জন্য আছে তিন ধরনের ব্যবস্থা। আছে বিশাল টেরেস, ছোট ছোট বাংলো ও বড় ভিলা। একেকটির ভাড়া একেক রকম, তবে আধুনিক সুযোগ-সুবিধায় পাঁচতারা হোটেলের সমান। আছে স্পা ও পুল, যেখানে দূর করতে পারেন শরীরের অবসাদ।

সবচেয়ে বড় কথা প্রতিটি স্থাপনাই গাছপালা-জঙ্গলে ছাওয়া টিলার ধারে। ভিলা, টেরেস বা বাংলোর বারান্দায় বসে হাত বাড়ালেই যেন পাওয়া যায় গাছগাছালির ছোঁয়া।

সাধারণ হোটেল-কটেজের চেয়ে নাজিমগড়ে থাকার খরচটা একটু বেশিই মনে হবে। এক রাতের জন্য সবচেয়ে কমদামি ‘প্রিমিয়ার’ কক্ষের ভাড়া পড়বে প্রায় ৭ হাজার টাকা, আর প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুইটের ভাড়া প্রায় ১৫ হাজার। এক কক্ষে থাকতে পারবেন সর্বোচ্চ ৩ জন, তবে ৮ বছরের নিচের শিশুর জন্য ভাড়া লাগবে না। এ ভাড়ার মধ্যে পাবেন দুজনের সকালের নাশতা।

এ সিজনে নাজিমগড় রিসোর্ট দিচ্ছে ‘স্পেশাল অফার’। যুগলের জন্য মাথাপিছু ১৪ হাজার ৫০০ টাকায় ২ রাত ৩ দিন কাটিয়ে আসতে পারেন রিসোর্টে। এ খরচেই থাকবে প্রতিদিন তিন বেলার খাবার, লালাখালে নৌকা ভ্রমণসহ আশপাশের দর্শনীয় স্থানে বেড়ানো এবং সুইমিংপুল, জিমন্যাশিয়াম ও ডিভিডি লাইব্রেরি ব্যবহারের সুযোগ। যদি দল বেঁধে ৪ থেকে ৬ জন যান তাহলে মাথাপিছু খরচ নেমে আসবে ১২ হাজার টাকায়।

আর আশপাশে বেড়ানো ছাড়া এ প্যাকেজে মাথাপিছু খরচ পড়বে ৯ হাজার টাকা। শুক্র ও শনিবার ছাড়া সপ্তাহের অন্যান্য দিন পাবেন ১০ শতাংশ ছাড়।
নাজিমগড়ে আগেভাগে বুকিং দিয়ে যাওয়াই ভালো, বিশেষ করে প্যাকেজের বেলায়। এ জন্য যোগাযোগ করতে পারেন ঢাকা ও সিলেটে; ফোন : ৮৮৫৩৮৫৭, (০৮২১) ২৮৭০৩৩৮, ২৮৭০৩৩৯, ০১৭৩০৭১২৬০০, ০১৭২৯০৯৭৮৪৯, ০১৯১৬২৭১৯৩৫, ০১৭৪৭২০০১০০।