Technology Image

বাংলাদেশী সার্চ ইঞ্জিনের খোঁজ



যাত্রা শুরু করেছে বাংলাদেশি সার্চ ইঞ্জিন খোঁজ। মো. ফরহাদুল আলম (১৯) নামের এক যুবক এটির আবিষ্কারক।

দেশের ব্যবহারকারীদের চাহিদার কথা মাথায় রেখেই এতে যুক্ত করা হয়েছে নানা ধরনের সুবিধা। অ্যালেক্সা র্যাঙ্কিংয়ে চীনের এক নম্বরে আছে তাদের দেশের সার্চ ইঞ্জিন ‘বাইদু’। সেখানে গুগলের অবস্থান ২২ নম্বরে। র্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশে প্রথম ও দ্বিতীয় অবস্থানে গুগল ও ফেসবুক। র্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষস্থান দখলের চেষ্টায় কুমিল্লার যুবক ফরহাদুল তৈরি করেছেন বাংলা সার্চ ইঞ্জিন খোঁজ (www.khoz.info)।

‘খোঁজ’-এ সার্চ করা যায় বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায়। এতে পাওয়া যাবে সন্তুষ্টিপূর্ণ সার্চ রেজাল্ট এবং খোঁজা যাবে ছবি বা ইমেজ, ভিডিও, গান, খবর, প্রযুক্তিবিষয়ক নিবন্ধ, শিক্ষামূলক তথ্য, উইকিপিডিয়ার তথ্য, বিভিন্ন অ্যাপস, চাকরির খবর, ব্লগের নিবন্ধ, ই-বুক, নথিপত্র, কেনাকাটা সংক্রান্ত তথ্য। এ ছাড়া ‘খোঁজ’এ থাকছে প্রয়োজনীয় বিভিন্ন সাইটের লিংক।

বাংলা সার্চ ইঞ্জিন ‘খোঁজ’-এর প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো ক্যাটাগরি ভিত্তিক সার্চ রেজাল্ট সুবিধা। একজন বাংলাদেশি অনলাইন ব্যবহারকারীর সব চাহিদাকে ভিত্তি করেই এটি সাজানো হয়েছে এর সার্চ ক্যাটাগরি। ফলে একজন ব্যবহারকারী কাঙ্ক্ষিত তথ্যটি সবচেয়ে কম সময়ে খুঁজে পাবে।

‘খোঁজ’-এর উদ্ভাবক ফরহাদুল আলম জানান, চার বছর ধরে তিনি অনলাইনে ও ব্লগে কাজ করছেন। দীর্ঘদিন ধরে তার স্বপ্ন ছিল একটি কার্যকরী বাংলা সার্চ ইঞ্জিন। এই স্বপ্ন থেকেই তিনি গুগলের সহায়তায় ও এর আদলে ‘খোঁজ’ সার্চ ইঞ্জিনটি তৈরি করেন।

ফরহাদ বলেন, দেশের প্রায় সব ইন্টারনেট ব্যবহারকারীই গুগল, ইয়াহু, বিংয়ের মতো আন্তর্জাতিক সার্চ ইঞ্জিনের ওপর নির্ভরশীল। হাতে গোনা দু-একটি বাংলা সার্চ ইঞ্জিন আছে। কিন্তু এসব সার্চ ইঞ্জিনের ক্ষমতা বেশ কম। গুগল এগুলোর চেয়ে হাজার গুণ শক্তিশালী। ফরহাদুলের মতে, বাংলাদেশের সার্চ ইঞ্জিনগুলোর এ অবস্থার জন্য আমরাই দায়ী। প্রতিটি প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্য বা সার্ভিসের উন্নতি সাধন করে তাদের গ্রাহকের চাহিদা ও মতামতের ওপর। গুগলের ব্যবহারকারী যতই বৃদ্ধি পায়, গুগল তার সুবিধাগুলোও আরো বাড়ানোর চেষ্টা করে।