Lifestyle Image

বাসায় গৃহকর্মী রাখার সময় লক্ষ্য রাখুন ৮ টি বিষয়



শহুরে ব্যস্ত জীবনে সারাদিন বাইরের কাজ সামলে এসে ঘরের কাজ করাটা বেশ ঝামেলাদায়কই বটে! আর ক্যারিয়ার সচেতন দম্পতিদের জন্যে এই সমস্যাটি বেশ প্রকট হয়ে উঠছে দিন দিন। তাই বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই আমাদের নির্ভর করতে হয় একজন সাহায্যকারী মানুষের, গৃহকর্মীর। বাসায় একজন কাজের মানুষ থাকলে জীবন অনেকটাই সহজ হয়ে যায়। কিন্তু নানা সময়ে এই কাজের মানুষ আর নিয়োগদাতা দু পক্ষেরই কিন্তু অভিযোগের শেষ নেই। অথচ নিয়োগের আগে কিছু বিষয় লক্ষ্য রাখলেই কিন্তু সমস্যার একটা বড় অংশই সমাধান করা যায়।

জেনে নিন বাসায় গৃহকর্মী রাখার আগে যে ৮ টি বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে

১। কাজের পরিমাণ ও বেতন
কাজের মানুষ রাখার আগেই পরিবারের অন্যান্যদের সাথে কথা বলে নিন, ঠিক কি ধরনের কাজ আসলেই আপনাদের করানো প্রয়োজন। কাজের ধরণ ও পরিমাণ অনুযায়ী বেতন নির্ধারণ করুন। তবে তা যেন হয় অবশ্যই যে গৃহকর্মী আপনার বাসায় কাজ করবে তার সাথে আলোচনা সাপেক্ষে। চেষ্টা করুন প্রতি মাসের শেষেই তার পাওনা পরিশোধ করার।

২। অন্য কারো পরিচিত কিনা
গৃহকর্মী রাখার আগে নিশ্চিত হয়ে নিন সে আপনার আশপাশের প্রতিবেশিদের পরিচিত কিনা! চেষ্টা করুন বন্ধু বান্ধব, আত্মীয় বা প্রতিবেশিদের পরিচিত কাউকেই আপনার বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে নিয়োগ করার। এতে তার কাজ সম্পর্কে যেমন ধারণা পাবেন, তেমনি পরবর্তী সময়ে কোন জটিলতা তৈরী হলে সেটিও সহজে সমাধান করা যাবে।

৩। পরিচয়পত্রের ফটোকপি অথবা ছবি
নতুন গৃহকর্মীর ভোটার আইডির একটি ফটোকপি ও এক কপি ছবি নিজের কাছে রাখুন। এটি নিরাপত্তা ও স্বচ্ছতার জন্যে নানা সময়ে কাজে লাগতে পারে।

৪। ফোন নম্বর ও ঠিকানা
গৃহকর্মীর বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকা ও ফোন নম্বর নিয়ে রাখুন। পরবর্তী সময়ে কোন দরকারে কাজে লাগতে পারে।

৫। কোন নির্দিষ্ট কাজে অনীহা আছে কিনা
অনেক সময় কোন কোন গৃহকর্মী কোন একটি নির্দিষ্ট কাজের প্রতি অনীহা দেখায়।যেমন, টয়লেট পরিস্কার করা, ছোট বাচ্চাদের যত্ন নেয়া ইত্যাদি। সেক্ষত্রে নিয়োগের আগেই সে সম্পর্কে জেনে নিন। তাহলে পরবর্তীতে সমস্যা হবে না।

৬। অন্যান্য সুবিধাদি সম্পর্কে তাকে জানান
বেতন ছাড়াও আর যা যা সুবিধা আপনার পক্ষ থেকে আপনি দেবেন বলে মনে করেন, সে সম্পর্কে তাকে জানান। যেমন, উৎসব ভাতা, নাস্তা, পোষাক ইত্যাদি। এতে আপনার প্রতি তার ভালো ধারণা তৈরী হবে।

৭। তার নিরাপত্তা সম্পর্কেও ভাবুন
বাসার পুরুষ সদস্যদের তার প্রতি আচরণ, শিশুদের আচরণ এ সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে নিন। আপনার গৃহকর্মী যেন আপনাদের দিক থেকে কোন ধরনের নির্যাতন বা হয়রানির শিকার না হয়। মানুষ হিসেবে এই মানবিক নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্বটুকু ন ইজের জায়গা থেকে ঠিকভাবে পালন করুন। গৃহকর্মীর সাথে পরিবারের সদস্যের মতই যেন আচরণ করা হয় সেদিকে খেয়াল রাখুন।

৮। বাসার চাবি না দেয়াই ভালো
যতই আন্তরিকতা বা বিশ্বস্ততা থাকুক না কেন, গৃহকর্মীকে বাসার চাবি দেয়া থেকে বিরত থাকুন।
আপনার বাসায় যে মানুষটি গৃহকর্মী হিসেবে নিয়োজিত হয়ে প্রতিদিন আপনার জীবনকে সহজ করে তুলছেন, তাকে মাঝে মাঝে ধন্যবাদ দিন। নিজের নিরাপত্তার পাশাপাশি মানুষ হিসেবে তার নিরাপত্তা, বিনোদন, প্রয়োজনগুলোকেও প্রাধান্য দিতে ভুলবেন না যেন!