Beauty Image

এক্সট্রা গ্লোয়িং ত্বক পেতে গাজরের ফেসমাস্ক ও ফেসপ্যাক



শুধু মাত্র শীতকালীন সবজি বললে ভুল হবে গাজর এমন একটি সবজি যেটা প্রায় সারা বছর জুড়েই পাওয়া যাই। আকর্ষনীয় রঙ ও স্বাদের জন্য ছোট বড় সবার কাছেই এই সবজিটি জনপ্রিয়। গাজরের প্রচুর পুষ্টিগুণ আছে যা আমাদের শরীর ও ত্বক দুটির জন্যই খুবই উপকারী। গাজরে প্রচুর পরিমণে বিটা ক্যারোটিন থাকে যা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। গাজরে উপস্থিত অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ভিটামিন-এ ব্রণ হওয়া এবং চামড়া ঝুলে পড়া রোধ করে ত্বককে ভেতর থেকে সুন্দর করে তুলতে সাহায্য করবে। শুধু তাই নয় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ভিটামিন-এ ত্বকের রোদে পোড়াভাব দূর করে সেই সঙ্গে ত্বকের অযাচিত ভাঁজ, কালো দাগ, ত্বকের রঙের অসামাঞ্জস্যতা দূর করে সুন্দর হয়ে উঠতে সাহায্য করবে।

আমার আজকের আর্টিকেল কেবল গাজর খেলে ত্বকের কী কী সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন এই নিয়ে নয়, আজ আমি আপনাদের গাজরের এমন কিছু ঘরোয়া মাস্ক ও প্যাকের কথা নিয়ে বলবো যা আপনার এক্সট্রা গ্লোয়িং ত্বকের স্বপ্ন বাস্তব করতে সাহায্য করবে। নীচের ফেসমাস্ক ও প্যাকগুলো থেকে আপনি চাইলে যেকোন একটা রেসিপি ফলো করেই পেতে পারেন এক্সট্রা গ্লোয়িং।

এক্সট্রা গ্লোয়িং ত্বকের জন্য গাজরের ফেসমাস্ক ও ফেসপ্যাক:

০১. গাজর, লেবু, মধু ও অলিভ অয়েল ফেসমাস্ক

যা যা লাগবেঃ
-২ টা ভালোভাবে ছিলে সিদ্ধ করে চটকানো গাজর।
-১ চা চামচ ফ্রেস লেবুর জুস।
-২ টেবিল চামচ মধু।
-১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল(যদি আপনার স্কিন অয়েলি হয় তাহলে অলিভ অয়েল দেওয়া থেকে বিরত থাকুন)

সব উপাদান একসাথে সুন্দর মসৃণ পেস্ট বানিয়ে আপনার পরিষ্কার করে ধোয়া মুখের ত্বকে অ্যাপ্লাই করুন। ৩০ মিনিট এভাবে রেখে হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে কমপক্ষে ২ বার এই ফেসমাস্ক ইউজ করেই দেখুন আপনার ত্বক উজ্জ্বল হতে শুরু করবে।

০২. গাজর, পেঁপে ও দুধের ফেসপ্যাক

যা যা লাগবেঃ

-২ টেবিল চামচ গাজর পেস্ট।
-২ টেবিল চামচ পেঁপে পেস্ট।
-১ টেবিল চামচ দুধ।

এই ৩ উপাদান এক সাথে মিশিয়ে আপনার ত্বকে লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর কুসুম কুসুম গরম পানিতে আপনার মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাক ইউজ করার কয়েক সপ্তাহ এর মধ্যে আপনি আপনার ত্বকের গ্লোর তারতম্য নিজেই লক্ষ্য করবেন।

০৩. গাজর ও মধুর ফেসপ্যাক
যা যা লাগবেঃ
-১ টেবিল চামচ গাজরের জুস।
-১ টেবিল চামচ মধু।

গাজরের জুস ও মধু বাটিতে ভালোভাবে নেড়ে একটি কটন বলের সাহায্যে আপনার মুখে লাগান। ১৫ মিনিট রেখে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ডাল ও ড্রাই স্কিনের জন্য ভালো। এই প্যাক আপনার ত্বক মশ্চারাইজ করার সাথে সাথেই ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করবে।

০৪. গাজর, দারুচিনি ও মধু ফেসপ্যাক

যা যা লাগবেঃ
-গাজরের জুস ১ টেবিল চামচ।
-২ টেবিল চামচ মধু।
-২ চিমটি দারুচিনি পাউডার।

সব উপাদান ভালোভাবে মিক্সড করে আপনার পরিষ্কার ত্বকে লাগান। ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। যাদের ত্বকে একনি ও পিম্পল রয়েছে তাদের ত্বকের জন্য এটি আদর্শ, কারণ এই প্যাক ত্বকের গ্লো বাড়ানোর সাথে পিম্পলও কমাবে।

০৫. গাজর, দই, বেসন ও হলুদের ফেসমাস্ক

যা যা লাগবেঃ

-১ টা গাজর পেস্ট।
-২ টেবিল চামচ দই।
-১ টেবিল চামচ বেসন।
-৩ চিমটি হলুদের গুঁড়া।

এই সব মিশ্রণ একসাথে মিশালে একটা ঘন পেস্ট আকার ধারণ করবে। এবার পেস্ট আপনার ত্বকে ভালোভাবে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এই মাস্কটি ত্বকে অনেকটা এক্সফলিয়েটর কাজ করবে। এটি ত্বকের আনইভেন টোন সারাবে, ত্বক স্মুথ করবে ও মরা কোষ তুলতে সাহায্য করবে। এই মাস্ক যদি আপনি নিয়ম করে টানা এক মাস ইউজ করেন আপনার এক্সট্রা গ্লোয়িং হওয়ার সাথে ত্বকের কমনীয়তা কয়েক গুণ বেড়ে যাবে।

গাজরের প্যাক ও মাস্কের উপকারিতাঃ

* গাজরের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট অ্যান্টি-এজিং হিসেবে কাজ করবে।
* গাজর ত্বকের মশ্চারাইজার ধরে রাখবে।
* গাজর ত্বকের কোষ পুনর্নবীকরণ প্রক্রিয়ার গতি বাড়াতে সাহায্য করে।
* গাজরের ভিটামিন এ ও বিটা ক্যারোটিন ত্বককে উজ্জ্বল করে।