Travel Image

নীলাভ তারাখচিত তারা মসজিদ



এ দেশের বুকে এখনও বেঁচে থাকা সুন্দর সুন্দর স্থাপনাগুলো দেখে বোঝা যায় মধ্যযুগে প্রাচ্যদেশের মানুষ অনেকটাই সৌখিন ছিলেন। ছোট ছোট কারুকাজ খচিত বিভিন্ন স্থাপনাগুলো ছড়িয়ে রয়েছে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে। এমনই একটি সুন্দর স্থাপনা হল পুরান ঢাকায় অবস্থিত তারা মসজিদ।

নির্মাণ :
পুরান ঢাকার আরমানিটোলার আবুল খয়রাত সড়কে অবস্থিত এই মসজিদটি। খ্রিষ্টীয় আঠারো শতকে ঢাকার জমিদার মির্জা গোলাম পীর ওরফে মির্জা আহমদ জান মসজিদটি নির্মাণ করেছিলেন। এই বিশিষ্ট স্থাপনাটিকে মির্জা গোলাম পীরের মসজিদ বা সিতারা মসজিদ বলেও অভিহিত করা হয়ে থাকে। সতের শতকে দিল্লি, আগ্রা ও লাহোরে নির্মিত মোঘল স্থাপত্য শৈলী অনুসরণে এই মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছিল বলে ধারণা করা হয়।


মসজিদটির বিশিষ্টতা :
প্রথম থেকেই মসজিটি আয়তাকার ছিল। মির্জা গোলাম পীর দ্বারা নির্মিত আদি মসজিদটির পরিমাপ ছিল, দৈর্ঘ্যে ৩৩ ফুট (১০.০৬ মিটার) এবং প্রস্থে ১২ ফুট (৪.০৪ মিটার), গম্বুজ ছিল তিনটি। এর ভিতরে মাঝের গম্বুজটি অনেক বড় ছিল। সাদা মার্বেল পাথরের গম্বুজের উপর নীলরঙা তারার নকশা যুক্ত ছিল। এই তারাখচিত নকশার কারণেই মসজিদটি তারা মসজিদ নামে পরিচিত হয়ে উঠে। এর পূর্ব দিকে মসজিদে প্রবেশর জন্য ৩ টি এবং উত্তর দিকে ১ টি এবং দক্ষিণ দিকে ১ টি দরজা ছিল।

১৯২৬ খ্রিষ্টাব্দে ঢাকার তৎকালীন স্থানীয় ব্যবসায়ী আলী জান বেপারী মসজিদটির সংস্কার করেন। এসময় মসজিদটির আকার বৃদ্ধি করা হয় এবং পূর্বদিকে একটি বারান্দা যুক্ত করা হয়। পাশাপাশি মসজিদের মেঝে মোজাইক করা হয়। চিনিটিকরি কৌশলের এই মোজাইকে ব্যবহার করা হয় জাপানী রঙিন চীনা মাটির টুকরো এবং রঙিন কাঁচের টুকরো। ১৯৮৭ খ্রিষ্টাব্দে মসজিদটির পুনরায় সংস্কার করা হয়। এসময় পুরনো একটি মেহরাব ভেঙে দুটো গম্বুজ আর তিনটি নতুন মেহরাব বানানো হয়। সব মিলিয়ে বর্তমানে এর গম্বুজ সংখ্যা ৫ টি। ফলে মসজিদের জায়গা সম্প্রসারিত হয়েছে।

সম্প্রসারিত হওয়ার পরে মসজিদের বতর্মান দৈর্ঘ্য ৭০ ফুট (২১.৩৪ মিটার), প্রস্থ ২৬ ফুট (৭.৯৮ মিটার)। এছাড়া মসজিদের দেয়াল ফুল, চাঁদ, তারা, আরবি ক্যালিওগ্রাফিক লিপি ইত্যাদি দিয়ে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে।