Sports Image

বিসিএসএ টাইগার্স পূর্ণ করল দুই বছর




শুরুটা ১৯৯৯ সালে। বাংলাদেশে যখন মিনি বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়েছিল তখন জুনায়েদ পাইকার নামের এক ক্রিকেট অনুরাগী কিশোর শুরু করেন বিখ্যাত ক্রিকেটারদের স্বারকলিপি সংগ্রহের মিশন। এভাবে তিনি প্রচুর বিখ্যাত ক্রিকেটারদের স্বারকলিপি সংগ্রহ করে ফেলেন। ২০১১ সালে বিশ্বকাপের সময় বাংলাদেশের সাবেক ক্যাপ্টেন হাবিবুল বাশার সুমনকে আমন্ত্রণ জানিয়ে তাঁর সংগ্রহীত স্বারকলিপি মানুষের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করেন। কিন্তু প্রচারণার অভাবে তাঁর প্রদর্শনীর কথা মানুষের অজানাই থেকে যায়। পরবর্তিতে আবারো তিনি তাঁর সংগ্রহীত স্বারকলিপি প্রদর্শনীর সিদ্ধান্ত নেন। এবার আরও বড় পরিসরে এবং একটি টিভি চ্যানেল প্রচারও করে। যত দিন যেতে থাকে তত তাঁর সংগ্রহের ভান্ডার সমৃদ্ধ হতে থাকে। তখন তিনি ভাবলেন যদি সকল ক্রিকেট প্রেমীদের সংগ্রহ একত্রিত করা যায় তাহলে কেমন হয়!


এর পর তাঁর সাথে দেখা হয় জাবেদ আলি শাওন নামক আরেক ক্রিকেট অনুরাগীর। যিনি ফেসবুকে বাংলাদেশ ক্রিকেটের অনেকগুলো বড় বড় পেইজের অ্যাডমিন। দুজনে মিলে শুরু করেন সকল ক্রিকেট প্রেমীদের এক ছাতার নিচে নিয়ে আসার যুদ্ধ। একজন বাস্তবে মাঠে ঘাটে ঘুরে, আরেক জন ভার্চুয়ালে প্রচারণা চালিয়ে। তাঁদের সাথে যোগ দেয় আরও একদল ক্রিকেট প্রেমী। সকলের দোয়ায় ২০১৩ সালের ২৩শে মে বিসিএসএ টাইগার্স সংগঠনটি যাত্রা শুরু করে।

গত পরশু বিসিএসএ টাইগার্সের ২ বছর পূর্ণ হলো। দেখতে দেখতে পেরিয়ে গেলো দুইটি বছর। বিসিএসএ টাইগার্স হয়ে উঠল আরও জনপ্রিয়, আরও প্রসারিত। বাংলাদেশ ক্রিকেটকে দিয়ে এসেছে অকুণ্ঠ সমর্থন।

বিসিএসএ টাইগার্স শুধুমাত্র ফেসবুক ভিত্তিক কোনো গ্রুপ নয়। এটা একটি সংগঠন। বাংলাদেশ ক্রিকেটের পাগলা ভক্তদের একত্রিত করা ও টাইগারদের সকল ম্যাচে মাঠে গিয়ে সমর্থন দেওয়াই এই সংগঠনের মূল লক্ষ্য। শুধু সাকিব তামিমদের খেলা নয় এরা জাতীয় নারী ক্রিকেট দল, অনুর্ধ ১৯ ক্রিকেটারদেরও মাঠে গিয়ে সমর্থন দিয়ে এসেছে। সর্বোপরি বিপদে আপদে সবসময় টাইগারদের পাশে থাকে এরা।

শুধু ক্রিকেট নয় গতবছর উত্তরবঙ্গে বন্যাকবলিত মানুষদের জন্য ত্রাণ সহযোগীতায়ও এগিয়ে গিয়েছিল এই বিসিএসএ টাইগার্স।
বর্তমানে অনলাইন – অফলাইন উভয় ক্ষেত্রেই এরা টাইগারদের সমর্থনে সুপার অ্যাকটিভ। এতকিছুর সবই সম্ভব হয়েছে জুনায়েদ ও জাবেদ এর জন্য। একজন অফলাইনে বিসিএসএকে ছায়া দিয়ে রেখেছেন, তো অন্যজন ভার্চুয়ালে বিসিএসএকে দেখাশোনা করেন। এখন তাদের সঙ্গঠনের সদস্য বারোশরও অধিক। বিশেষ করে ঢাকা, সিলেট ও চট্টগ্রামে বিসিএসএ টাইগার্সের অ্যাসোসিয়েট মেম্বার বেশি রয়েছে। ভবিষ্যতে সারা বাংলাদেশে বিসিএসএ টাইগার্সের মেম্বার থাকবে এটাই আমরা আশা করি।