এস আহমেদ লিটন

৩ বছর আগে লিখেছেন

<br /><br /><img src="/uploads/users/3485/original/81461_76402_9810.jpg" />বাঁশে বাঁশে চলছে খেলা,<br />দিন দুপুরে বাঁশের মেলা।<br /><br />চাকচিক্য বিল্ডিং<br />যেন নকল আবাস,<br />তাইতো বিল্ডিং<br />কলাপসে সর্বনাশ।<br /><br />মৃত্যুর ফাঁদ এঁটে<br />গড়ছে ওরা টাকার খণি,<br />দুদিন পরে পরবে ধ্বসে<br />বাতাস হলে একটু খানি।<br /><br />লোহা সিমেন্ট বালি নয়,<br />বাঁশ আর লাকড়ী,<br />দিন দুপুরে গড়ছে ওরা<br />ইমারত মৃত্যুপুরী।<br /><br />লাশের গন্ধে হোক না<br />বাতাস কিছু ভারী,<br />নেতার পকেট ভরা<br />টাকা চায় কাড়ি কাড়ি।<br /><br />জনগনের হাহাকার<br />মিশে যায় বাতাসে,<br />দিন কেটে যায় তাদের<br />হা হুতাশে।<br /><br />লাল সবুজ নীল সাদা<br />হরেক বাঁশে হাজার মেলা,<br />ক্ষুধাতুর দুঃখী মানুষ নিয়ে<br />করছে ওরা আনন্দ খেলা।<br /><br />নেতা পুলিশ ডাক্তার কবিরাজ<br />বাদ যায় নি কেউ,<br />পুঁটি নাকি নেতার ডাকে<br />বড় রুই কাতলা সেও।<br /><br /><br /><br />

Likes Comments

এস আহমেদ লিটন

৩ বছর আগে লিখেছেন

একুশ আমার (প্রতিযোগিতা ২০১৬, ক্যাটাগরি-১ পর্ব-৪)

একুশ আমার চেতনা, একুশ আমার ভাষা,
একুশ আমার ভাইয়ের রক্ত, একুশ আমার আশা।
একুশ আমার পুর্ব গগনে সোনার রবি, সন্ধ্যা তারা,
একুশ আমার গল্প গান, একুশ আমার গর্ব বুক ভরা।
একুশ আমার হাসি কান্না, কৃষ্ণচূরা পলাশ রাঙা,
একুশ আমার রফিক জব্বার শত ভাইয়ের রক্তে রাঙা।
একুশ আমার স্বপ্ন সাজানো বাংলা ভাষা, রঙীন ফুল,
একুশ আমার আধো বলা প্রথম বুলি, মাতৃতুল।
একুশ আমার প্রথম সংগ্রাম, জেগে উঠার গান,
একুশ আমার জয় বাংলা, লক্ষ কোটি প্রাণ।
একুশ আমার প্রথম চেতনা, স্বাধীনতার সুর,
একুশ আমার প্রথম ভোর, স্লোগান মুখর।
একুশ আমার মামনির পায়ে ঘুঙুর ঘুঙুর বাঁজা নূপুর,
একুশ একুশ একুশ পিচ ঢালা রাস্তায় রক্ত রাঙা দুপুর।
একুশ আমার গানের পাখি, সুর তোলা নিত্য প্রাণ,
একুশ আমার ভোরে ভেসে আসা শিউলী ফুলের ঘ্রাণ।
একুশ আমার বিজয়ের প্রথম মাল্যদান, স্বপ্ন রাঙা পথ,
একুশ আমর বিজয় গাঁথা স্বাধীনতার প্রথম শপৎ।
 
 
 
 
continue reading
Likes Comments
০ Shares

এস আহমেদ লিটন

৪ বছর আগে লিখেছেন

মুক্তিযোদা (প্রতিযোগিতার জন্য ক্যটাগরি-১)

এলাকায় পাকসেনারা ক্যাম্প করেছে! নিজাম হুজুর বেশ সখ্যতা গড়ে তুলেছে ওদের সাথে! এলাকার খবরাখবর ইনার মাধ্যমে পায়! এলাকায় কে কে মুক্তিবাহিনীতে গেছে, কারা যেতে পারে, এসব বিষয়ে কোথায় আলাপ আলোচনা হয়, তাদের নাম ঠিকানা ও চিনিয়ে দেয়ার কাজটি এই নিজাম হুজুর করেন! এলাকা থেকে তথ্য সংগ্রহের জন্য কিছু গুপ্তচর রাখা আছে! এরা গোপনে নিজাম হুজুরে কাছে খবর পৌছে দেয়!
 মতিন সার বেশ সম্মানীয় ব্যক্তি কলেজের লেক্চারার, ওনার দুই ছেলে মেয়ে, ১৪ বছরের কিশোর সানি আর ১৬তে পা রাখা সনি! সনির চেহারা বেশ সুন্দর, চিকন, একটু লম্বা, মোটামুটি এলাকায় পাঁচজনের নাম বললে তার নাম আসে! নিজাম হুজুর খবর দিয়ে গেছেন পাকসেনারা ক্যম্পে দেখা করতে বলেছেন! এতে বেশ বিষন্ন হয়ে পড়লেন, না জানি কি বলবেন, দুশ্চিন্তায় মুখ কালো হয়ে গেছে! রাতের খাবার না খেয়ে শুয়ে পড়লেন! স্ত্রী হনুফা বেগম বারবার জিজ্ঞাসা করা সত্ত্বেও কোন উত্তর দিলেন না! সারা রাত চিন্তা করেও কোন কূল কিনারা পেলেন না! সকালবেলা ভয়ে ভয়ে নিজাম হুজুরের সাথে গেলেন! নিজাম হুজুরই অনেক অভয় দিয়েছিলেন, কোন সমস্যা নেই, আমি আছি ইত্যাদি! সত্যি তেমন কিছু হল না, এলাকার খোঁজ খবর নিলেন, মুক্তিবাহিনীদের সম্পর্কে জানতে চাইলেন,আর তাদের সাথে যোগাযোগ রাখতে বললেন! আর কড়া ভাষায় বললেন মুক্তিবাহিনী বিষয়ে কোন খবর থাকলে যেন সঙ্গে সঙ্গে পৌছে দেয়া হয়! কোন কথা না বলে শুধু সম্মতিসূচক মাথা ঝাঁকিয়ে ফিরে এলেন! কিন্তু পাকদের বলে কোন বিশ্বাস নেই! কখন কি করে বসে তাই সরে থাকাটা মঙ্গল! হনুফা বেগমকে বললেন গুছিয়ে নাও ক'দিন তোমাদের বাড়ি থেকে ঘুড়ে আসি!
এদিকে নিজাম হুজুর  তার সুন্দরী মেয়ের খবর আগেই দিয়ে রেখেছেন! এবার তারা অন্য কোথাও চলে যাচ্ছেন এখবর শুধু দিলেন... continue reading
Likes Comments
০ Shares

Comments (0)

  • - এই মেঘ এই রোদ্দুর

    দারুন হইছে । শুভকামনা

    - আমির ইশতিয়াক

    ভাল লাগল কাশেম ভাই।

এস আহমেদ লিটন

৪ বছর আগে লিখেছেন

শিশুতোষ (R)

শিশুতোষে মন হতে হয়
আরো শিশু,
এই শিশু মনে ভাই
আছে যীশু।
তুল তুলে এই নরম মনে
দাও গো আদর ছোয়া,
এই ছোয়াতে ধুয়ে যাবে
মনের যত ধোয়া।
সকাল দুপুর ছুটবে ওরা
আপন মনে,
সন্ধে হলে পড়তে বসবে
নিজ গুনে।
আদর যত্‌নে
মায়ের আঁচলে ঘেরা,
গুনে মানে এই শিশুরা
হবে দেশ সেরা।
খেলায় খেলায় হবে পড়া
আদর সোহাগ তুলে,
এই খেলাতে হবে বড়
যাবে নাকি ভুলে।
সন্ধে হলে সোনা মানিক
বসবে নিয়ে বই,
সকল পড়া শেষে
ঘুমতে যাবে হৈ হৈ রৈ রৈ। continue reading
Likes Comments
০ Shares

Comments (2)

  • - alo akter

    ভালই লেখাটা,খুব সুন্দর

    - Monica josna

    that's good writer

    • - Lithi akter

      goodemoticons

এস আহমেদ লিটন

৪ বছর আগে লিখেছেন

শুন্যতা

এখনো হৃদয় পটে, ভেসে উঠে,
সেই ভালবাসার দিনগুলি,
আদরে আদরে কত মাখা মাখি
মুখেতে ছিল শত ভালবাসার বুলি।
হৃদয় নিঙরানো সেই ভালবাসাটুকু,
কবে যে ঢেকে গেছে,
 কালি মাখা মেঘে, বুঝি নি আজো,
জীবনের বাঁকে বাঁকে,স্রোতসিনী নদীর তরে,
ওগো হারিয়েছি তোমায়, তুমি কি তা বুঝো?
 
চৈত্রের দাহ, বুকেতে পুড়ি,
হায়! কেঁদে কেঁদে এখনো রাত জাগি,
নিশিত রজনীতে ঝিঁঝিঁর ডাকা ডাকি,
কান্নার লোনা পানি, করি মোরা ভাগা ভাগি।
ওরাও আমারি মত, গভীর রাতে কেদেঁ কেদেঁ
হায়! ডাকিছে তাহার প্রিয়জনে,
গাছের পাতার ঝুন ঝুন শব্দে,
সে করুন সুর,
ভাসিয়া চলিছে দূর গগণে।
 
শুভ্র বিকেলে, মিঠেল রোদে,
কত ভালবাসার কল্প কাহিনী!
কত সুধা, কত মমতায় ঘেরা
ভালবাসার ঊচ্ছ্বল জীবনী!
সেই ভালবাসা হারিয়ে, সূর্য নামার আগে,
নামিয়া আসিছে তিমির অন্ধকার,
কি যে এক শুন্যতা! বেদনা হায়!
বুকের মাঝে করিছে আহাকার!
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
continue reading
Likes Comments
০ Shares

Comments (0)

  • - তাহমিদুর রহমান

    গল্প খুব ভাল হয়েছে রব্বানী ভাই। আমার খুব ভাল লেগেছে। বর্ণনাও সুন্দর।  

    • - রব্বানী চৌধুরী

      আপনার মন্তব্য পেয়ে খুব ভালো লাগলো তাহমিদ ভাই, পোষ্টে মন্তব্যের জোয়ার আসলে লেখার আগ্রহ যেমন বাড়ে তেমনি লেখার মানও বৃদ্ধি পায়। 

      অনেক অনেক ভালো থাকবেন, ঈদ মোবারক। 

    - ডাস্টবিনে কাক

    পেখম নামটা কেমন যেন! 

    • - রব্বানী চৌধুরী

      নামের বিষয়টি আলাদা, আমার নিজের নামটিও আমার কাছে ভালো লাগে না, কেমন যেন সেকেলে সেকেলে মনে হয়।

    • Load more relies...
    - টোকাই

    emoticons

    • - রব্বানী চৌধুরী

      অনেক অনেক শুভেচ্ছা জানবেন, ভালো থাকবেন। ঈদ মোবারক। 

    Load more comments...
Load more writings...