মোদাচ্ছের হোসেন বাবুল

৩ বছর আগে লিখেছেন

বাঁচাও সুন্দরবন, বাঁচাও বাংলাদেশ

উন্নয়ন, চলছে উন্নয়ন প্রয়োজনে-অপ্রয়োজনে
চলছে উন্নয়ন, বিশ্ব উষ্ণায়ন
 
ভগবানের দালাল পেতেছে ফাঁদ
কেড়ে নিতে পুর্ণিমা চাঁদ
হিজাব পড়ে ক্ষমতায় চড়ে
বিশ্ব হায়েনায় মিলায়েছে হাত
 
নমঃ নমঃ মরি! মরি!
ধর্ম অবমাননা সইতে কী পারি?
সুন্দরবন দিবো উজার করি
তোমার চরণতলে হে দয়াময়
ক্ষমতায় যেন সদা থাকি
তোমার তুষ্টে তোমায় সেবিতে পারি
কৃপা রেখো ওহে কৃপাময়
 
আরাধনা চলছে, চলছে আরাধনা
বাহিরে উন্নয়ন, অন্তরে কৃপা কামনা
রূপপুর-রামপাল-সমুদ্র তলদেশ
কার স্বার্থে চলছে সব?
ভাবো বাংলাদেশ!
 
সাঁওতাল-মারমা-বাঙ্গালী
দেখো- কাঁদে মা, করে আকুতি
জাগো সবাই, বাঁচাও আমায়, আমি বাঁচতে চাই
বীণে সুন্দরবন, ধীরে বাংলাদেশ নাই
 
জাগো জাগো জাগো জননীর সন্তানেরা
মায়ের আঁচল কেড়ে নিতে উদ্ধত লুটেরা
হাতে রাখো হাত, গড়ো একতা, হও সমাবেশ
বাঁচাও সুন্দরবন, বাঁচাও বাংলাদেশ
 
১৭.০৮.২০১৬
continue reading
Likes Comments
০ Shares

মোদাচ্ছের হোসেন বাবুল

৫ বছর আগে লিখেছেন

দুরবিন দিয়ে দুর আকাশ দেখা যায়। কিন্তু কাছের মানুষটিকে খুঁজে পাওয়া যায় না।

Likes Comments

মোদাচ্ছের হোসেন বাবুল

৫ বছর আগে লিখেছেন

দুরবিন দিয়ে দুর আকাশ দেখা যায়। কিন্তু কাছের মানুষটিকে খুঁজে পাওয়া যায় না।

Likes Comments

মোদাচ্ছের হোসেন বাবুল

৫ বছর আগে লিখেছেন

তুমি কি আসবে!

তুমি কি আসবে!
কফিহাউজ‍ শিল্পকলায়
সৃষ্টির সন্ধানে হারিয়ে যাব
কথার রাজ্যে- কথায় কথায়
তুমি কি আসবে!
 
তুমি কি আসবে!
কাক ডাকা ভোরে কুয়াশার মাঝে
খোলা আকাশের নীচে
শিশির মাখা দুর্বা ঘাসের মাঠে
নরম গালিচায় হেঁটে
সুচনা করবো নতুন সুর্য নতুন দিনের
তুমি কি আসবে!
 
তুমি কি আসবে!
পল্টন ময়দান, মুক্তাঙ্গন, প্রেসক্লাব
টিএসসি সড়ক দ্বীপ অথবা
অধিকার আদায়ের কোন রণাঙ্গণে
সমবেত চিৎকারে কাঁপিয়ে দেব
প্রতিবাদের ঝরে উড়িয়ে দেব
রক্তের বন্যায় ভাসিয়ে দেব
শোষকের ভীত
তুমি কি আসবে!
 
তুমি কি আসবে!
সৈকতে, বিশাল সমুদ্রের অনন্ত ঢেউয়ে
শক্ত হাতে আকড়ে ধরে
গাঁ ভাসাবো অসীমে
অসীম থেকে অনন্তে
সীমাবদ্ধতা ভুলে পুনঃজন্ম নেব
নব শুদ্ধতায়, বিশালকায়
তুমি কি আসবে!
 
তুমি কি আসবে!
ভরা পূর্ণিমায় আমার আঙ্গিনায়
জোছনাস্নাত রাতে করবো জোছনাস্নান
প্রকৃতির মাঝে মিলে মিশে হবো
একাকার
আদিম-পুরনো-নতুন খেলায়
তুমি কি আসবে!
তুমি কি আসবে!
continue reading
Likes Comments
০ Shares

মোদাচ্ছের হোসেন বাবুল

৫ বছর আগে লিখেছেন

হাতটি দাও!

হাতটি দাও! আহা দাওনা!
হ্যাঁ এভাবেই-
আঙ্গুলের ফাঁকে আঙ্গুল ঢোকাও
ঠিক আছে, এবার মৃদু চাপ দাও
কী! কিছু অনুভব করছো!
আমি তোমার অস্তিত্ব অনুভব করছি
স্পন্দন পাচ্ছি, হিমোগ্লাবিনের উদ্দমতা টের পাচ্ছি
তুমি আরো কিছু পাচ্ছো কী!
এই! এইতো! ভালোভাবে লক্ষ্য করো-
কী সুন্দর উত্তপ্ততা মিশিয়ে যাচ্ছে!
এতো আপন, এতো ঘনিষ্ট আর কিছু আছে কী!

এখন শপথ নেয়া যায়-
আমৃত্যূ একসাথে থাকার
একসাথে চলার
বাঁচার লড়ায়ে যুদ্ধে যাবার
যুদ্ধ চালিয়ে যাবার, যতদিন রবে
খুনি, ধর্ষক, শোষক, প্রতারক বুর্জোয়ার অস্তিত্ব
অথবা নিজের।

শপথ নেয়া যায়-
কল্পিত স্বর্গ-মর্ত্য ভুলে
একটি সুন্দর পৃথিবী গড়ার
একটি সুন্দর পৃথিবীতে
একটি শিশু আনার, গড়ার
যে শুধুই মানুষ হবে।
continue reading
Likes Comments
০ Shares

Comments (3)

  • - আমির আসহাব .

    - মোকসেদুল ইসলাম

    - লুৎফুর রহমান পাশা

Load more writings...