নাজনীন পলি

৩ বছর আগে লিখেছেন

একজন মা ও একজন বাবা

একজন সন্তানের জীবনে নাকি মা ও বাবার সমান প্রয়োজনীয়তা রয়েছে । কেন এই কথাটা জ্ঞানীরা বলে গিয়েছেন এটা আমি মাঝে মাঝে  বুঝতে পারি না । হ্যাঁ , এটা অস্বীকার করার উপায় নেই যে ভ্রূণ তৈরীর জন্য শুক্রাণু ও ডিম্বাণুর মিলন দরকার এবং এটা একক কোন নারী ও পুরুষের শরীরে থাকে না । তাই নারী এবং পুরুষ দুজন মিলে সন্তান জন্মের প্রাথমিক প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে থাকেন । কিন্তু তার পর বাবার কি প্রয়োজন ? সন্তান জন্ম দানের অর্থ সংস্থানের জন্য ? নাকি সন্তানের লেখাপড়া, কাপড় চোপড় ও ডাক্তারের খরচ যোগানের জন্য ?
এবার আসুন দেখি সন্তান জন্মদানের খরচের জন্য আসলেই বাবার দরকার আছে কিনা ? এক কথায় না , বাবার দরকার নাই । কারণ সন্তান জন্ম নেওয়ার সময় মেয়েরা তার নিজের মা বাবার কাছেই বেশির ভাগ সময় থাকে ( যাদের মা বাবা একেবারে গ্রামে থাকে বা অন্য দেশে থাকে তাদের কথা আমি বলছি না ) । মেয়েরা নিজের মায়ের কাছে থাকে এটা বেশিরভাগ সময় শখ করে নয় উপায়হীন হয়ে । শ্বশুর বাড়িতে নিজের মা যেভাবে যত্ন করেন সেটা পাওয়া সম্ভব হয় না । আর যদি স্বামী স্ত্রী দুজন থাকেন সেখানে স্ত্রীর নিজের যত্ন ও স্বামীর কাপড় ধোয়া , খারার রেডি করা , ঘর পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করা , ঘর গোছানো , অতিথি সেবা ইত্যাদি সংসারে যেসব কাজ থাকে সবই নিজে নিজে করা লাগে । যেহেতু গর্ভকালীন সময়ে নারীদের শরীরে অনেক পরিবর্তন আসে তাই এসময়ে সবাই কম বেশি অসুস্থ থাকে এবং তাকে অন্যের সাহায্য নেওয়ার প্রয়োজন হয় ।
এতক্ষণে নিশ্চয় প্রমাণ হল সন্তান জন্মদানের অর্থ সংস্থানের জন্য বাবার প্রয়োজন নেই ।
... continue reading
Likes Comments
০ Shares

নাজনীন পলি

৩ বছর আগে লিখেছেন

নেকড়ে অরণ্যে (প্রতিযোগিতা/২০১৬) ক্যাটাগরী-২ পর্ব-৪

 
পুরো অফিস নিস্তব্ধ । ছুটি শেষে সবাই চলে গেছে । রাজিবুল ইসলাম কাজ বুঝিয়ে দেবেন বলে হাসিকে বসিয়ে রেখেছে । সন্ধ্যা যেয়ে রাতে পা দিচ্ছে । হাসি বুঝতে পারছে না কি এমন কাজ বুঝিয়ে দেবেন বলে বস তাকে বসিয়ে রেখেছে । গতকাল হাসি তার ছোট বোনের বিয়ের জন্য বসের কাছে পঞ্চাশ হাজার টাকা ধার চেয়েছিল , আজ কি বস ওর সাথে সে ব্যাপারে কথা বলবে ? একা একা বসে থেকে হাসির একটু একটু ভয় ও লাগছে । হাসি রাজিবুলকে ছুটির জন্য তাড়া দিতেও পারছে না যদি বস টাকাগুলো আর না দেয় ।
হাসি দেখে রাজিবুল কেমন যেন টলমল পায়ে ওর দিকে এগিয়ে আসছে । রাজিবুল আসতে আসতে হাসির মুখের দিকে ঝুঁকে আসে , হাসির মনে হয় বস ওর ঠোঁটের সাথে ঠোঁট ছোঁয়াতে চায় । হাসি চট করে সরে যেতে যেয়ে বসের মুখে অ্যালকোহলের গন্ধ পায় । বোকার মত প্রশ্ন করে স্যার আপনি কি নেশা করেছেন ? এবার রাজিবুল হাসির দু’বাহু চেপে ধরে বলে, তোমার মত সুন্দরী সামনে থাকলে নেশাতো এমনিতেই হয়ে যায় । এরপর রাজিবুল নেকড়ের রূপ ধারণ করে হাসির উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে । হাসির শরীর থেকে তার বস্ত্রকে খুলে নিয়ে নগ্ন দেহে বসিয়ে দেয় নখের আঁচড় , দাত দিয়ে ক্ষত বিক্ষত করে দেয় প্রস্ফুটিত যৌবন । উত্থিত লিঙ্গ নিয়ে কুমারী মেয়ের সতীত্ব ভাঙ্গার নেশায় মত্ত হয়ে ওঠে । হাসির সব প্রতিরোধ নেকড়ের শক্তির কাছে পরাজয় মানে । কুমারীত্বের রক্ত ছিটে পড়ে সমস্ত ফ্লোর জুড়ে , রাজিবুল উল্লসিত হয় আর হাসি ব্যথায় কুঁকড়ে উঠে । কতক্ষণ পর রাজিবুলের ভিতরের নেকড়ের খিদে মিটে যায় । হাসির দিকে পঞ্চাশ হাজার... continue reading
Likes Comments
০ Shares

Comments (7)

  • - প্রলয় সাহা

    তোমাতে আমাতে 
    কোনো দূরত্ব তাই আমি 
    দেখি না দেখি না...
    বাহ্‌ গুরুজ্বী বাহ্‌ emoticons

নাজনীন পলি

৩ বছর আগে লিখেছেন

ভুল (প্রতিযোগিতা/২০১৬, ক্যাটাগরী-১, ৩য় পর্ব)

“ভুল” 
দরজা জানালাবিহীন চার দেয়ালে বন্দী জীবন ।
চোখের দৃষ্টি স্পষ্ট কিন্তু কোথাও আলোর দেখা নেই ,
ফুসফুস শ্বাস নিতে প্রস্তুত কিন্তু চার দেয়ালের মাঝে কোন বাতাস নেই।
 কিছু কিছু ভুল থাকে প্রতিশোধকহীন জীবাণুর মত ,
একবার সে ভুল করলে সংশোধনের আর কোন উপায় নেই ।
বুক জুড়ে শুধু আফসোস আর হাহাকার ,
মৃত্যুর জন্য প্রতীক্ষা করে বসে থাকা ।
continue reading
Likes ১১ Comments
০ Shares

Comments (11)

  • - মাসুম বাদল

    স্যাল্যুট... emoticons

    • - মফিজুল ইসলাম খান

      লাখো কোটি ধন্যবাদ ।

    - চারু মান্নান

    বাহ সুন্দর কবি,,,,,,,,,,,,,

    • - মফিজুল ইসলাম খান

      অনেক অনেক ধন্যবাদ ভাইজান ।

নাজনীন পলি

৪ বছর আগে লিখেছেন

কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি

আপনাদের ব্লগে একজন পাঠক কি ধরণের মন্তব্য লিখতে পারে । আমার জানা মতে ব্লগে লেখা কেমন হয়েছে , ভুল ধরিয়ে দেখা এবং কিভাবে লিখলে গল্পটা আরও ভালো হত বা কোন অংশ বাদ দিলে ভালো হত পর্যন্তই লেখা যায় । 
কিন্তু আমাকে উদ্দেশ্য করে কিছু বললে আমি নারী বলে , আমার সুন্দর ঠোঁট আছে বলে আমি প্রশংসা পাই , লেখাতে লাইক পাই এ ধরণের মন্তব্য কেন আসবে ? ব্লগে লেখা দিয়েছি বলে নিশ্চয় অপমানিত হতে পারি না । 
আপনাদের কি এসবের বিরুদ্ধে কিছুই করার নাই ?  continue reading
Likes ১৯ Comments
০ Shares

নাজনীন পলি

৪ বছর আগে লিখেছেন

অসম্পূর্ণ (প্রতিযোগিতা-২০১৫, ৩য় পর্ব, ক্যাটাগরি-২)

গল্পঃঅসম্পূর্ণ
 
এক
নীল তার হাতের মধ্যে যে নারীর উত্তাপ টের পাচ্ছে সেই নারী কোনদিন এভাবে ওর হাত ধরে থাকবে তা ছিল স্বপ্নাতীত । আজকের দিনের সব কিছু ওর স্বপ্ন মনে হচ্ছে ।একটা ভয় এসে আবিষ্ট করে ফেলছে ওর মনকে । ভয়টা স্বপ্ন ভাঙ্গার ভয়।যদি এমন হয় এতক্ষণ বা এ কয়দিনে যা যা ঘটেছে সব ছিল ওর দিবা স্বপ্ন ; বাস্তবে এসব কিছুই ঘটেনি ।
লাবণ্য অনেকক্ষণ ধরে নীলকে ডাকছে কিন্তু নীল একই  রকম বোবা দৃষ্টি মেলে তাকিয়ে আছে। লাবণ্য শক্ত করে নীলের হাতটা চেপে ধরে । আঃ বলে ককিয়ে উঠে নীল । নীল আমরা কেসে জিতে গেছি , আজ আমি মুক্ত-  নীল , এসব কিছু সম্ভব হয়েছে তোমার জন্য উচ্ছ্বসিত হয়ে লাবণ্য বলতে থাকে । নীল গম্ভির হয়ে বলে স্বাধীন দেশের নাগরিক তুমি তোমার তো সুবিচার পাওয়ার অধিকার আছে এবং তুমি সুবিচার পেয়েছ; ব্যস এটুকুই । কিন্তু তুমি না থাকলে  এপর্যন্ত আসার শক্তি আমি পেতাম না । তুমি আমার সবচেয়ে বড় বন্ধু আর যাদেরকে  আমি আপনার ভেবেছিলাম তারা সবাই ছিল আমার সুসময়ের বন্ধু; বিপদের দিনে তারা ফিরে তাকায়নি আমার দিকে । আমি  আসলে হিরার চেয়ে কাঁচকেই মূল্যবান ভেবেছিলাম । তাইতো আজ আমি সব হারিয়ে নিঃস্ব । লাবণ্য তুমি নিঃস্ব নও , যা কিছু তুমি হারিয়েছ তার সব তুমি ফিরে পাবে নীল লাবণ্যকে সান্ত্বনা দিতে থাকে । তোমার কথায় যেন সত্য হয় নীল ।
 
দুই
নীল একমনে একা একা  হেঁটে চলেছে । লাবণ্যকে এইমাত্র বাসে তুলে দিয়ে আসলো । পুরানো স্মৃতি ফিরে ফিরে আসছে । আজ এতক্ষণ যে নারী পরম নির্ভরতায় তার হাত ধরেছিল... continue reading
Likes ২৫ Comments
০ Shares
Load more writings...