শফিক সোহাগ

১ বছর আগে লিখেছেন

আজ ঐতিহাসিক ১০ এপ্রিলঃ শফিক সোহাগ

আজ ঐতিহাসিক ১০ এপ্রিল। ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তির কাণ্ডারি বঙ্গতাজ তাজউদ্দীন আহমদের নেতৃত্বে প্রথম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার গঠন করা হয় । বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে রাষ্ট্রপতি, সৈয়দ নজরুল ইসলামকে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি এবং তাজউদ্দীন আহমদকে প্রধানমন্ত্রী করে স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার গঠন করা হয় । সেদিনই বাংলাদেশ সময় রাত ১০ টায় আকাশবানী কলকাতা রেডিও থেকে তাজউদ্দীন আহমদ জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন । তাঁর এই ভাষণে সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বর্বরতার বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের অকুতভয় সংগ্রাম এবং স্বাধীন বাংলা সরকার গঠনের কথা । পাক হানাদারদের রুখে দেয়ার জন্য সারা বাংলাদেশের বিভিন্ন অংশে কাকে কোন দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এবং বিভিন্ন অংশে ইতিমধ্যে পাক বাহিনীকে পরাস্ত করার সংবাদ ফুটে উঠেছিল তাঁর এই ভাষণে । স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের সেবায় আত্মনিয়োগ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, “আমরা আহ্বান জানাচ্ছি সমস্ত বুদ্ধিজীবী, টেকনিশিয়ান, ইনজিনিয়ার, সংবাদপত্র সেবী, বেতার শিল্পী, গায়ক ও চারুশিল্পীদের, তারা যেন অনতিবিলম্বে বাংলাদেশ সরকারের সাহায্যে এগিয়ে আসেন । আমাদের সামনে বহুবিধ কাজ-তার জন্য বহু পারদর্শীর প্রয়োজন এবং আপনারা প্রত্যেকেই স্বাধীন বাংলাদেশের সেবায় আত্মনিয়োগ করবার সুযোগ পাবেন”।, তাজউদ্দীন আহমদের দৃঢ় বিশ্বাস ছিল যে, এই যুদ্ধে বাঙালি জাতিই বিজয়ী হবে । তিনি তাঁর ভাষণে বলেন, “এ যুদ্ধে যে আমাদের জয় অবশ্যম্ভাবী তাতে সন্দেহের কারণ নেই । আপনারা ইতিমধ্যে সাহস ও ত্যাগের বিনিময়ে যে বিজয় অর্জন করেছেন শত্রুপক্ষ আজকে তা স্পষ্টই বুঝতে পেরেছে । তারা ভেবেছিল যে, আধুনিক সমর সজ্জায় এবং কামানের গর্জনের নীচে স্তব্ধ করে দিবে বাঙ্গালির ভবিষ্যৎ আশা-ভরসা । আর চোখ রাঙিয়ে ভয় দেখিয়ে বাঙ্গালিকে তারা বুটের নীচে নিষ্পেষণ করবে । কিন্তু তাদের সে আশা আজ ধূলিসাৎ হয়ে গেছে । আমরা তাদের মারমুখী আক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করে টিকে আছি এবং তাদেরকে যে প্রতিনিয়ত হটিয়ে  দিচ্ছি এতে তাদের সমস্ত ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়ে গেছে । তাদের খাদ্য সরবরাহের সকল পথ আজ বন্ধ, ঢাকার সাথে আজ তাদের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন । উড়োজাহাজ থেকে খাবার ফেলে এদেরকে ইয়াহিয়া খান আর বেশি দিন টিকিয়ে রাখতে পারবে না । ওদের জ্বালানি সরবরাহের লাইন আমাদের মুক্তিবাহিনী বন্ধ করে দিয়েছে । ইয়াহিয়ার উড়োজাহাজ আর বেশি দিন বাংলাদেশের আকাশে দেখা যাবে না । বাংলাদেশের সাড়ে সাত কোটি উত্তাল জনসমুদ্রের মাঝখানে ওরা আজকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপের মত । বাংলাদেশের আকাশে শীঘ্রই ঝড়ের মাতন শুরু হচ্ছে । ওরা জানে ওরা হানাদার । ওরা জানে ওদের বিরুদ্ধে পৃথিবীর সমস্ত মানুষের ভ্রুকুটি ও ঘৃণা । ওরা ভীত, - ওরা সন্ত্রস্ত, - মৃত্যু ওদের সামনে পরাজয়ের পরোয়ানা নিয়ে হাজির । তাই ওরা উন্মাদের মত ধ্বংসলীলায় মেতে উঠেছে”।, তাজউদ্দীন আহমদ আরোও বলেন, “যারা আমাদের সংগ্রামে শরিক হতে চান তাদের জন্য রইল আমাদের আমন্ত্রণ । যাদের পক্ষে নেহাৎই মুক্ত এলাকায় আশা সম্ভব নয় তাদেরকে আমরা আশ্বাস এবং প্রেরণা দিচ্ছি বাংলাদেশের সাড়ে সাত কোটি মানুষের পক্ষ থেকে, শহীদ ভাই বোনদের বিদেহী আত্মার পক্ষ থেকে । শহীদের রক্ত বৃথা যেতে পারে না । ইনশাআল্লাহ্‌, জয় আমাদের সুনিশ্চিত”। 

Likes Comments
০ Share