Sports Image

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেরা চার দল



ফুটবল লিগের সব থেকে মর্যাদার আসর হচ্ছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের মাধ্যমে ইউরোপ সেরা ক্লাব বলে ধরে নেওয়া হয়। ২০১৪-১৫ মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ চার দল নিয়ে আজকের এ আয়োজন।

রিয়াল মাদ্রিদঃ

ইউয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সব থেকে সফল ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ। সর্বচ্চো ১০ বার শিরোপা জয়ের স্বাদ লাভ করে রিয়াল মাদ্রিদ।২০০২ সালের পর গত বছর বহুল কাঙ্ক্ষিত এই শিরোপা জয়ের স্বাদ লাভ করে রিয়াল। এ মৌসুমেও রিয়াল মাদ্রিদকে হট ফেবারিট বলা হচ্ছে। শেষ চারের এক মাত্র টিম রিয়াল মাদ্রিদ, যারা গ্রুপ পর্বে শতভাগ জয় লাভ করেন। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়াল মাদ্রিদের ২০১৪-১৫ মৌসুমের পারর্ফমেন্সঃ গ্রুপ পর্বঃ জয় ৬টি। গোলঃ পক্ষে ১৬ টি, বিপক্ষে ২টি। শেষ ১৬- শালকে ০৪ এর সাথে ৫-৪ এগ্রিগেডে জয় লাভ। কোয়াটার ফাইনালঃ নগর প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের সাথে ১-০ গোলে জয় লাভ।

বার্সেলোনাঃ

স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনার এবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতার সম্ভবনা বেশি বলে অনেক ফুটবল বোদ্ধারা মনে করেন। ৪ বারে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতা বার্সা শেষ ম্যাচে পিএসজিকে হারিয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসেই রয়েছে। গ্রুপ পর্বে ১টি ম্যাচে পরাজয়ের তিক্ত স্বাদ পেতে হয়েছিলো জাদুকরি মেসির বার্সাকে। গ্রুপ পর্বে ৫ জয় লাভ করে বার্সা। নিজেদের পক্ষে ১৫টি গোলের দেখা পান ইনরিকের দল। বিপক্ষে গোলের সংখ্যা ৪টি। শেষ ১৬ তে ম্যান সিটির সাথে ৩-১ এগ্রিগেডে জয় লাভ করে। কোয়ার্টার ফাইনালঃ পিএসজির সাথে ৫-১ এগ্রিগেডে জয় লাভ।

বায়ার্ন মিউনিখঃ

শিরোপার অন্যতম দাবিদার জার্মান জায়ান্ট এফসি বায়ার্ন মিউনিখ। ৫ বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের চ্যাম্পিয়ন হয় তারা। এর মধ্যে সর্বশেষ ২০১৩ শিরোপা লাভ করে তারা। বার্সার মত বায়ার্নও গ্রুপ পর্বে ৫টি ম্যাচে জয় লাভ করে। গ্রুপ পর্বে বায়ার্নের গোল সংখ্যা ছিল ১৬( পক্ষে) , ৩টি (বিপক্ষে) । শেষ ১৬- তে শাখাতার সাথে ৭-০ এগ্রিগেডে জয় লাভ করে তারা। কোয়াটার ফাইনালে ১ম লেগে পোর্তোর সাথে ৩-১ পরাজয়ের পর ৭-৪ এগ্রিগেডে জয় লাভ করে সেমিতে পার রাখলো বায়ার্ন।

জুভেন্টাসঃ

ইতালিয়ান জায়ান্ট জুভেন্টাস ২ বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা লাভ করে। সর্বশেষে ১৯৯৬ সালে ইউরোপ সেরা হয় তারা। এবারো তাদের কাপ জয়ের সম্ভবনা আছে বলে অনেকেই মনে করেন। গ্রুপ পর্বে মাত্র ৩টি ম্যাচে জয় লাভ করে জুভেন্টাস। শেষ ১৬ তে জার্মান ক্লাব বরশিয়া ডর্টমুন্ডকে ৫-০ গোলে হারিয়ে কোয়াটার ফাইনালে ওঠে তারা। কোয়াটার ফাইনালঃ তুলনা মুলক সহজটিম মোনাকোর সাথে ১-০ এগ্রিগেডে জয় লাভ করে সেমিতে পা রাখে এই ইতালিয়ান জায়ান্টরা। সর্বপরি বলা যায় শেষ চার যোগ্য দলই লড়ায়ে রয়েছে। ইতিহাসের দিকে একটু লক্ষ করলে আমরা দেখতে পাবো যে, চ্যাম্পিয়ন্স লিগের টপ ৫ টি দলের ৪টি এবার সেমিতে লড়ার করবে।