Sports Image

হতেও পারে অস্ট্রেলিয়া-বাংলাদেশ ওয়ানডে সিরিজ



আগামী অক্টোবর মাসে বাংলাদেশের বিপক্ষে দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশে আসবে অস্ট্রেলিয়া। বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা টাইগারদের বিপক্ষে কেবল টেস্ট সিরিজই খেলবে- এমনটাই বলসে আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্ল্যান। তবে নতুন খবর, অস্ট্রেলিয়ার আসন্ন বাংলাদেশ সফরে আয়োজন করা হতে পারে ওয়ানডে সিরিজও!

ওয়ানডে ফরম্যাটে খেলেই চলতি বছরের বিশ্ব আসরের শিরোপা জিতে ৪ বছরের জন্য বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছে অস্ট্রেলিয়া। অপরদিকে একদিনের ক্রিকেটে এই মুহূর্তে নিজেদের ইতিহাসের সেরা সময় পার করছে বাংলাদেশ। সব মিলে বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার ওয়ানডে লড়াইটা যে ধ্রুপদী হবে, এ ব্যাপারে সন্দেহ নেই কারো। তবে পূর্বনির্ধারিত টেস্ট সিরিজটি ধ্রুপদী লড়াইয়ের অপেক্ষায় থাকা ক্রিকেটপ্রেমিদের অপেক্ষাকে দীর্ঘায়িতই করছে শুধু।

তবে ক্রিকেটপ্রেমিদের আকাঙ্ক্ষা পূরণে এবার নড়েচড়ে বসেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড- বিসিবি। অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া- সিএ’এর সাথে আলোচনা সাপেক্ষে বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের সাথে ওয়ানডে সিরিজ আয়োজন করতে চায় তারা। সফরে টেস্ট সিরিজের পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়া যেন ওয়ানডে সিরিজও খেলে, এজন্য অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিএ’কে শীঘ্রই বাংলাদেশ বোর্ডের পক্ষ থেকে প্রস্তাব দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফরে আলোচনা সাপেক্ষে কি ওয়ানডে সিরিজ আয়োজন করা সম্ভব? এমন প্রশ্নের জবাবে সম্প্রতি একটি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘এখানে বসে এসব বললে হবে না। দুবাইয়ে যে আইসিসি মিটিং আছে, ওখানে দ্বিপাক্ষিক সিরিজের ব্যাপারে আলাপ হবে।’ অজিদের সহজেই ওয়ানডে সিরিজের প্রস্তাবে রাজী করানো যাবে- এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে পাপন বলেন, ‘যেহেতু দুটি টেস্ট আছে, ওয়ানডে খেলানোর জন্য রাজি করানো খুব কঠিন হবে না; যদি ওদের উইন্ডো ওপেন থাকে। আমরা চাইলাম, কিন্তু ওদের খেলার মতো ফ্রি সময় থাকলো না, তা তো হবে না। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক ভালো। আশা করি আমাদের প্রস্তাবে রাজী হবে’।

এদিকে সমর্থকদের কাছে ‘তিন মোড়ল’ হিসেবে পরিচিত অস্ট্রেলিয়া, ভারত ও ইংল্যান্ড বাংলাদেশের ক্রিকেটের পাশে আছে জানিয়ে বিসিবি সভাপতি বলেন, সৌহার্দ্যের পাশাপাশি বাংলাদেশের লড়াকু পারফরমেন্স এখন টাইগারদের মর্যাদা ঐ তিন দেশের কাছে আরও সমুন্নত করবে, ‘অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, ভারত- যারা ক্রিকেটে এগিয়ে আছে, এই তিনটা বোর্ড সব সময় বাংলাদেশ ক্রিকেটের পাশে ছিলো… এখনও আছে। আগে ওদের কাছে গেলে মনে হতো আমাদের ফেভার করছে। কিন্তু এখন এরকম পারফরমেন্সের পর ওদের সামনে বুক ফুলিয়ে দাঁড়াতে পারবো।’