Health Image

জ্বর হলে যে সব খাবার খাবেন



সময়টা গ্রীষ্মকাল হলেও, বেশ কিছুদিন ধরে ‍আবহাওয়ার তারতম্য দেখা দিচ্ছে। এই ভীষণ গরম আবার এই নামছে ঝুমঝুম বৃষ্টি, সেইসঙ্গে বইছে ঠাণ্ডা বাতাস। আবহাওয়ার এ তারতম্যের কারণে এসময় ঠাণ্ডা-কাশি ও গলাব্যথা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এমন অবস্থায় অনেকের জ্বরও হয়। আর জ্বর মানেই খাওয়ায় অরুচি।

প্রিয় খাবারও জ্বরের সময় পানসে লাগে। জ্বর বেশি হলে হজম ক্ষমতা কমে যায় ও শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে। তবে দ্রুত সুস্থতার জন্য এসময় সঠিক খাদ্যতালিকা মেনে চলা প্রয়োজন। জ্বরের সময় উচ্চ ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার, ভিটামিন সি ও প্রচুর পানি ও পানিজাতীয় খাবার খাওয়া প্রয়োজন। দেখে নিন ভালো করে, পরে কাজে দেবে।

রুটি

গমের রুটি সহজপাচ্য। তাই জ্বর হলে সকাল ও রাতের খাবারে হাতে গড়া গমের রুটি রাখতে পারেন। তবে রুটিতে তেল বা ঘি ব্যবহার না করাই ভালো।

পানিজাতীয় সবজি

জ্বরের সময় শরীরে পানির চাহিদা পূরণে প্রচুর পরিমাণে পানি জাতীয় সবজি খাওয়া উচিত। যেমন- মিষ্টি কুমড়া, লাউ, টমেটো, বাঁধাকপি, গাজর ও শসা। এসব সবজি শরীরের পানির চাহিদা পূরণ করে সুস্থতা ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করে।

স্যুপ

বেশিরভাগ সময় ঠাণ্ডা থেকেই জ্বর হয়। জ্বরে আরাম পেতে দু’বেলা টমেটো বা গাজরের স্যুপ খেতে পারেন। স্যুপ শরীরের ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধে সহায়তা করে।

আপেল

জ্বরের সময় প্রতিদিন অন্তত একটি আপেল খাওয়া উচিত। আপেল শরীরকে ডিহাইড্রেশন থেকে রক্ষা করে। এছ‍াড়াও এটি ভাইরাল ব্যাকটেরিয়ার সঙ্গে লড়াই করে।

জুস

জ্বরের সময় প্রচুর পানি করা প্রয়োজন। পানির পাশাপাশি বিভিন্ন মৌসুমী ফলের জুসও খেতে পারেন। এসময় লেবু কমলা ও মালটার জুস খেলে দ্রুত মুখে রুচি ফিরে আসবে।

ভেষজ চা

তুলসি, আদা, লেবু ও লবঙ্গ চা খেতে পারেন। পানিতে আট থেকে ১০ মিনিট আদা ও লবঙ্গ সেদ্ধ করুন। এবার কাপে তুলসি পাতা রেখে লেবুর রস দিন। উপর থেকে আদা ও লবঙ্গ সেদ্ধ পানি ঢালুন। চাইলে মধু মেশাতে পারেন। এছাড়াও খালি তুলসি পাতা দিয়েও চা তৈরি করতে পারেন। এই চা গলা ব্যথা, খুসখুসে কাশি ‍ও মাথাব্যথার ভেষজ ওষুধ হিসেবে কাজ করে।

দুধ ও ছানা

শরীরের শক্তি বাড়ানো ও উদ্যম ফিরিয়ে আনতে দুধের জুড়ি নেই। দুধে মধু মিশিয়ে খেলে কাশি ও মাথাব্যথায় উপকার পাবেন। এছাড়াও ব্রেকফাস্টে ছানা খেতে পারেন। এটি শরীরে শক্তি যোগাবে তো বটেই, খেতেও বেশ দার‍ুণ।