"স্মৃতিচারণ" বিভাগের পোস্ট ক্রমানুসারে দেখাচ্ছে

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

ঊনবিংশ শতাব্দীর প্রশিদ্ধ কবি হেমচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়ের ১১২তম মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি


ঊনবিংশ শতাব্দীর মধুসূদনের পরবর্তী কাব্য রচয়িতাদের মধ্যে সবচেয়ে খ্যাতিমান কবি হেমচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়। বাংলা মহাকাব্যের ধারায় হেমচন্দ্রের বিশেষ দান হচ্ছে স্বদেশ প্রেমের উত্তেজনা সঞ্চার। কবি হেমচন্দ্র বঙ্গদেশীয়দের কানে নব ভারত সঙ্গীত ধ্বনিত করলেন। তাঁর খ্যাতি ছিলো গগণস্পশী। বঙ্কিমচন্দ্র তার রচনার অনুরাগী ছিলেন এবং কিশোর রবীন্দ্রনাথের রচনায় পড়েছিলো তার ছায়া। হেমচন্দ্র পাঠকের সামনে খুলে দিলেন বঙ্গদর্শন গোষ্ঠী। মধুসূদনকে জাতীয় কবি হিসেবে তুলে ধরতে বঙ্গদর্শন প্রস্তুত। কবিওয়ালাদের শব্দালঙ্কার আর মিলের জগত পেছনে ফেলে অমিত্রাক্ষরে মধুসূদন নতুন ধ্বনিঝঙ্কার প্রবর্তন করলেন। আর সেই ছন্দ ও শব্দের জগতকে হেমচন্দ্র জাতীয়তাবাদের অঙ্গনে এগিয়ে নিয়ে গেলেন। ১৯০৩ সালের আজকের দিনে তিনি মৃত্যুবরণ করনে। আজ তার ১১২তম মৃত্যুবার্ষিকী।... continue reading

৭২৬

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

প্রখ্যাত বাঙালি সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ ও লেখক বিপ্লবী বিপিনচন্দ্র পালের ৮৩তম মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি


উপমহাদেশের খ্যাতিমান রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, সাংবাদিক, লেখক ও ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের অন্যতম বাগ্মীনেতা বিপিনচন্দ্র পাল। ব্রিটিশ বিরোধী এই বিপ্লবী বিরল প্রতিভার অধিকারী ছিলেন। তিনি একাধারে রাজনীতিবিদ, লেখক, সাংবাদিক ও সমাজ সংস্কারক। উপমহাদেশের রাজনীতিবিদদের মধ্যে তাঁর বাগ্মীতা ছিল অসাধারণ। ১৮৮০ সালে তিনি প্রকাশ করেন সিলেটের প্রথম বাংলা সংবাদপত্র পরিদর্শন। এছাড়া ১৮৮৩ সালে তিনি 'বেঙ্গল পাবলিক অপিনিয়ন' এবং ১৯৯১ সালে 'নিউ ইন্ডিয়া' পত্রিকার সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। বিপিনচন্দ্র ছিলেন চরমপন্থী রাজনীতির অন্যতম প্রধান প্রবক্তা। ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে তিনি অনলবর্ষী বক্তৃতা দিতেন। বিংশ শতাব্দীর প্রথম দশকে বিপিনচন্দ্র পাল তাঁর জ্বালাময়ী বক্তৃতা ও ক্ষুরধার লেখনীর মাধ্যমে দেশবাসীকে জাতীয়তাবাদী ভাবধারায় উদ্দীপ্ত করে জাগিয়ে তোলেন। তাঁর আহবানে হাজার... continue reading

৪৪৭

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

বিশিষ্ট বাঙালি কবি, নাট্যকার ও সংগীতস্রষ্টা দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের ১০২তম মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি


বাংলা সাহিত্যের পঞ্চকবির অন্যতম বিশিষ্ট বাঙালি কবি, নাট্যকার ও সংগীতস্রষ্টা দ্বিজেন্দ্রলাল রায়। সুরকার, কবি ও নাট্যকার হিসেবে দ্বিজেন্দ্রলাল বাংলা সাহিত্যে স্থায়ী আসন লাভ করেছেন। ডি. এল. রায় নামে যিনি সমধিক পরিচিত ছিলেন। তাঁর বিখ্যাত গানঃ ধনধান্যে পুষ্পে ভর, বঙ্গ আমার!, জননী আমার, ধাত্রী আমার, আমার দেশ, ইত্যাদি আজও সমান জনপ্রিয়। তিনি প্রায় ৫০০ গান রচনা করেন। এই গানগুলি বাংলা সংগীত জগতে দ্বিজেন্দ্রগীতি নামে পরিচিত। এ ছাড়াও তিনি অনেকগুলি নাটক রচনা করেন। তাঁর নাটকগুলি চার শ্রেণীতে বিন্যস্ত - প্রহসন, কাব্যনাট্য, ঐতিহাসিক নাটক ও সামাজিক নাটক। দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের বিখ্যাত নাটকগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য একঘরে, কল্কি-অবতার, বিরহ, সীতা, তারাবাঈ, দুর্গাদাস, রাণা প্রতাপসিংহ, মেবার-পতন,... continue reading

৬০১

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

ইরাকের সাবেক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের ৭৮তম জন্মবার্ষিকীতে শুভেচ্ছা

ইরাকের সাবেক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেন। পুরা নাম সাদ্দাম হোসেন আবু আল মাজিদ আল তিকরিতি। দুই দশকের বেশি সময় ধরে কঠোর হাতে ইরাক শাসন করেছেন তিনি। ১৯৭৯ সালের ১৬ জুলাই থেকে ২০০৩ সালের ৯ এপ্রিল পর্যন্ত ইরাকের রাষ্ট্রপতি ছিলেন। ২০০৩ সালের মার্চ মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন ইরাকে ব্যাপক গণ বিধ্বংসী অস্ত্র থাকার অভিযোগে ইরাকে সামরিক অভিযান চালায়। ৯ এপ্রিল মার্কিন বাহিনী বাগদাদ দখল করে নিলে সাদ্দাম ক্ষমতাচ্যুত হন। একই বছরের ১৩ ডিসেম্বর তাঁকে তাঁর জন্ম স্থান তিকরিত থেকে মার্কিন বাহিনী আটক করে। ২০০৫ সালের ১৯ অক্টোবর ইরাকের উচ্চ আদালতে দুজাইল গ্রামের হত্যাকান্ড মামলায় সাদ্দাম হোসেনের আনুষ্ঠানিক বিচার শুরু হয়।... continue reading

১১৬৫

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

ইংরেজ ঔপন্যাসিক হেনরি ফিল্ডিং এর ৩০৮তম জন্মবার্ষিকীতে ফুলেল শুভেচ্ছা

বিশিষ্ট ইংরেজ লেখক হেনরি ফিল্ডিং (Henry Fielding)। ঔপন্যাসিক ও নাট্যকার উচ্চমার্গের রসবোধ এবং ব্যঙ্গাত্মক দক্ষতার জন্য সুবিদিত ছিলেন হেনরি ফিল্ডিং। ব্যঙ্গ রচনায় তিনি ছিলেন অতি পারঙ্গম। টম জোনস তার বিখ্যাত রস-উপন্যাস। সাহিত্যকর্মের পাশাপাশি আইন প্রণয়নেও তার গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল। তিনি ১৭৪৯ সালে লন্ডনের পুলিশ বাহিনী বো স্ট্রিট রানার্স প্রতিষ্ঠায় প্রধান ভূমিকা রাখেন। ১৭০৭ সালের আজকের দিনে ইংল্যান্ডে জন্মগ্রহণ করেন হেনরি ফিল্ডিং। আজ তাঁর ৩০৮তম জন্মবার্ষিকী। ইংরেজ নাট্যকার ও ঔপন্যাসিক হেনরি ফিল্ডিং এর জন্মবার্ষিকীতে শুভেচ্ছা।
হেনরি ফিল্ডিং ১৭০৭ সালের ২২ এপ্রিল ইংল্যান্ডের সমারসেটের সারফমে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পড়াশোনা ইটন কলেজে। ১৭২৮ সালে তিনি লিডেন সফরে বের হন। এখানে বিখ্যাত বৃটিশ কূটনীতিক... continue reading

৪৩৪

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

খ্যাতনামা সঙ্গীত শিল্পী, সুরকার ও প্রশিক্ষক সুধীরলাল চক্রবর্তীর ৬৬তম মৃত্যুৃবার্ষিকীতে শ্রদ্বাঞ্জলি

আধুনিক, রাগপ্রধান, গজল, ঠুমরী প্রভৃতি গানে পারদর্শী, খ্যাতনামা সঙ্গীত শিল্পী, সুদক্ষ সুরকার ও প্রশিক্ষক সুধীরলাল চক্রবর্তী। মধুর আমার মায়ের হাসি চাঁদের বুকে ঝরে, মাকে মনে পড়ে আমার, মাকে মনে পড়ে’ গানটিকে অমরত্ব দান করেছিলেন সুধীরলাল সরকার। বড়ই পরিতাপ ও মর্মবেদনার বিষয় গানটির সুরকার ও দরদী শিল্পী, সুধীরলাল চক্রবর্তী আজ যেন বিস্মৃতির অতলে তলিয়ে গেছেন। কবি নজরুলের বন্ধু, অসংখ্য কালজয়ী গানের সুরকার ও শিল্পী, সেরা সঙ্গীত শিক্ষক এবং গীতা দত্ত, সতীনাথ মুখোপাধ্যায়, উৎপলা সেন, শ্যামল মিত্রের মত সেরা শিল্পী গড়ার কারিগর, সুধীরলাল চক্রবর্তীর কোনও জীবনী বা পরিচিতি এখন আর খুঁজে পাওয়া যায়না। ভারতের প্রতিবাদী ধারার গণসংগীত শিল্পী কবীর সুমনের মতে "সূক্ষ্ম... continue reading

৩৫৪

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

ব্রিটিশ কৌতুক অভিনেতা, বিখ্যাত পরিচালক ও শ্রেষ্ঠতম মূকাভিনেতা চার্লি চ্যাপলিনের ১২৬তম জন্মবার্ষিকীতে ফুলেল শুভেচ্ছা

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ কৌতুক সম্রাট স্যার চার্লস স্পেনসার চ্যাপলিন জুনিয়র। চার্লি চ্যাপলিন নামেই যিনি সমাধিক পরিচিত। ১৮৮৯ সাল। যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানী টমাস আলভা এডিসন ফিল্মের জন্য ক্যামেরা আবিষ্কার করলেন। পৃথিবী জুড়ে হৈ হৈ শুরু হয়ে গেলো। একই বছরে অস্ট্রিয়ায় জন্ম নিলো পৃথিবীর নির্মম ঘাতক হিটলার। সে বছরই আরেক শিশু জন্ম নেয়, যে কিনা পৃথিবীর মানুষকে হাসাতে হাসাতে লুটোপুটি খাইয়ে ইতিহাসের সেরা কৌতুক অভিনেতা এবং নির্মাতা হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেন। সেই মানুষটির নাম ‘চার্লি চ্যাপলিন’। প্রকৃতি যেন নিজের জন্যই এই কাকতালীয় ঘটনাটির সূত্রপাত ঘটিয়েছিল। যদি ক্যামেরা না হতো তাহলে পৃথিবীর ইতিহাসে চলচ্চিত্র বলে কোনো কিছুর উদ্ভব হতো না এবং চ্যাপলিনও পৃথিবীর মানুষকে হাসাতে... continue reading

৬০০

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

আধুনিক যুক্তরাষ্ট্রের স্থপতি, সফল রাষ্ট্রনায়ক এবং সুদক্ষ কূটনীতিক ফ্রাঙ্কলিন ডি রুজভেল্টের ৭০তম মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৩২তম প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কলিন ডেলানো রুজভেল্ট, সংক্ষেপে এফডিআর। কর্মদক্ষতার বিচারে যিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টদের মধ্যে সবার শীর্ষে স্থান করে নিয়েছেন। আমেরিকা তথা বিশ্বের দীর্ঘতম সময়ব্যাপী ক্ষমতায় থেকে স্বাভাবিকভাবে মৃত্যুর রেকর্ড গড়েছেন ফ্রাংকলিন ডিলান্ডো রুজভেল্ট। তিনি দীর্ঘ ১২ বছর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তবে দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়ার পরও কাজ করে গেছেন দেশের জন্য। জাতিসংঘ সৃষ্টিতেও তাঁর বিশেষ অবদান রয়েছে। বিংশ শতাব্দীর মধ্যভাগে পৃথিবী যখন অর্থনৈতিক মন্দা ও যুদ্ধের কবলে পড়ে বিধ্বস্ত এমন সময় তিনি পৃথিবীর কেন্দ্রীয় এক চরিত্রে পরিণত হন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালে উইনস্টন চার্চিল এবং যোসেফ স্ট্যালিনের মতো বিশ্ব নেতার সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের... continue reading

৭৭০

তানজিমুল ইসলাম

৪ বছর আগে লিখেছেন

বন্ধু বনাম ভার্চুয়াল সম্পর্ক

      
আমার একমাত্র ঘনিষ্ঠ বন্ধু।প্রায় দু’বছর ধরে আমেরিকা যাবার তোড়জোড় শুরু করেছে।অবশেষে,দু’দিন আগে VISA পেলো।VISA পাবার দিন ঠিক রাত দেড়টায় আমাকে ফোন দিয়ে বলল-“Ticket কাটা হয়ে গেছে।১৭ তারিখ বিকেল ৫টায় ফ্লাইট।আমি চলে যাচ্ছি”
লক্ষ্য করলাম কথা বলার সময় তার গলা কাঁপছে।আমি নিজেকে সামলে নিলাম আর কিছু ভার্চুয়াল কথা বললাম।যেমনঃ”ধ্যুত,এটা কোনো ব্যাপার না।globalization এর যুগে আমেরিকাতো ঘরের কাছে|web cam এ কথা হবে,viber এ call দিবি,আর facebook তো আছেই।ইত্যাদি ইত্যাদি…

ফোনটা রেখে ভাবলাম,ফেইসবুকে কি আমরা একসাথে বসে চায়ের দোকানে আড্ডা দিতে পারব!রাস্তায় দেখা হলে কি web cam এ পিঠ চাপরে বলতে পারব ‘দোস্ত’ কেমন আছিস!ইচ্ছে করলেই কি পারবো সেই ছোট-খাটো বিষয়... continue reading

৪৪৭

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে গেরিলা যোদ্ধা শাফী ইমাম রুমীর (বীর বিক্রম) ৬৩তম জন্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছা

শাফী ইমাম রুমী, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের তারুণ্যদীপ্ত উজ্জ্বল বীর গেরিলা যোদ্ধা। তিনি ছিলেন শহীদ জননী খ্যাত জাহানারা ইমামের জ্যেষ্ঠ পুত্র। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের টর্চার সেলে গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা রুমীকে অমানুষিক অত্যাচার করে। রুমীর দুই পা শিকল দিয়ে বেঁধে মাথা নিচের দিকে ঝুলিয়ে ফুটন্ত গরম পানির মধ্যে ফেলে দেয়, আবার ওপরের দিকে তুলে ঝুলিয়ে রাখে। তার পরও এ বীর মুক্তিযোদ্ধার মুখ থেকে নরপশুরা কোনো কথা বের করতে পারেনি। পরবর্তীতে নির্মমভাবে শহীদ হন রুমী। স্বাধীনতার পর শহীদ রুমী বীরবিক্রম (মরণোত্তর) উপাধিতে ভূষিত হন। জাহানারা ইমাম রচিত "একাত্তরের দিনগুলি" গ্রন্থে রুমী অন্যতম প্রধান চরিত্র। স্বাধীনতা যুদ্ধে তার মৃত্যুর... continue reading

৫৬৭