"স্বাস্থ্য" বিভাগের পোস্ট ক্রমানুসারে দেখাচ্ছে

সাইফুল ইসলাম

১ বছর আগে লিখেছেন

রুকইয়াহ শারইয়াহ এর ধারনা

রুকইয়াহ কি?
রুকইয়াহ অর্থঃ ঝাড়ফুঁক করা, মন্ত্র পড়া, তাবিজ-কবচ, মাদুলি... ইত্যাদি।
আর রুকইয়াহ শারইয়্যাহ (رقية شرعية) মানে শরিয়াত সম্মত রুকইয়াহ, কোরআনের আয়াত অথবা হাদিসে বর্ণিত দোয়া দ্বারা ঝাড়ফুঁক করা।
তবে রুকইয়া শব্দটি দ্বারা সচরাচর ঝাড়ফুঁক করা বুঝায়, এই ঝাড়ফুঁক সরাসরি মানুষের ওপর হতে পারে, অথবা কোনো পানি বা খাদ্যের ওপর করে সেটা ব্যবহার করা হতে পারে। এক্ষেত্রে রুকইয়ার পানি, অথবা রুকইয়ার গোসল ইত্যাদি পরিভাষা ব্যবহার হয়। আর সবগুলোই সালাফে সালেহিন থেকে প্রমাণিত।
ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গি
শরঈ বিধান
রাসুলুল্লাহ সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, "রুকইয়াতে যদি শিরক না থাকে, তাহলে কোনো সমস্যা নেই।”
বিশুদ্ধ আক্বিদা
উলামায়ে কিরামের মতে রুকইয়া করার পূর্বে এই আক্বিদা স্পষ্টভাবে... continue reading

১১৯

আহমেদ ইসমাঈল

৩ বছর আগে লিখেছেন

জানেন তো, ঔষুধ ছাড়াও হাই ব্লাড প্রেসার কন্ট্রোল করা যায়

প্রেসার মাপার যন্ত্র হাতে বসে থাকা ডাক্তার আর তার সামনে দুরু দুরু বুক নিয়ে বসে আছেন আপনি। আপনার কপালে হয়তোবা সুক্ষ্ন রেখার মত কিছুটা ঘাম। সামনে বসা ব্যাক্তিটি নিবিড় মনোযোগের সাথে তার যন্ত্রটির প্রেসার নির্ণায়ক কাটাটির দিকে লক্ষ্য রাখছেন। সেই সাথে চেষ্টা করছেন তার স্টেথিসকোপে কিছু শোনার। এক সময় তার কাজ শেষ হলো। সাথে সাথেই আপনার প্রশ্ন, ডাক্তার সাহেব প্রেসারের অবস্থা কি? আগের মতোই নাকি কিছুটা বেড়েছে? গম্ভীর মুখে তিনি জবাব দিলেন, না তেমন কিছুনা। সামান্য বেশি (*১)। ব্যাস। শুরু হলো আপনার টেনশন। বাড়ছে প্রেসার। মানে হৃদপিন্ড থেকে সারা শরীরের দূর থেকে দূরতর প্রান্তে সরু সরু নালীকার ভেতরে দিয়ে... continue reading

৩৯৫

শাহআজিজ

৩ বছর আগে লিখেছেন

কিডনি চিকিৎসায় ডাঃ দেবী শেঠী ও তার গ্রুপ

গত দুদফায় দেবী শেঠীর নতুন স্থাপনা নারায়ানা হেলথ , বেঙ্গালুরু ওয়েবিনারের { ওয়েব সেমিনার) মাধ্যমে লক্ষ্য দর্শককে হার্ট ও ক্যান্সার সম্পর্কিত প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন। ভারতের দলিতদের ভগবান দেবী শেঠীর এই উদ্যোগ প্রশংসনীয় । অনেক জটিল রোগের চিকিৎসা হবে নতুন এই হাসপাতালে। এবারের আয়োজন কিডনি। নিচের ছবিতে ওয়েব ঠিকানায় প্রশ্ন রাখুন এবং খেয়াল রাখুন ১০ মার্চ সকাল সাড়ে ১১ টায়। continue reading

৫২৬

প্রবাসী একজন

৩ বছর আগে লিখেছেন

জিকা ভাইরাস ! বাংলাদেশ ও সমসাময়িক বিশ্ব

মশার হুল বেয়ে এ বার হানা দিচ্ছে নতুন বিপদ জিকা। একেবারেই অচেনা রোগ। রোগের উপসর্গও খুব অস্পষ্ট। ফলে এই রোগে আক্রান্ত হলে বোঝা যাচ্ছে না সহজে। নিঃশব্দে মস্তিষ্ক শেষ করে দিচ্ছে জিকা ভাইরাস। এমনভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে মস্তিষ্ক বা ব্রেন, যা আর কিছুতেই স্বাভাবিক অবস্থায় ফেরা সম্ভব নয়।
ক্রান্তীয় এবং উপক্রান্তীয় অঞ্চলের দেশগুলিতে জিকা ভাইরাসের প্রকোপ দেখা দিতে শুরু করেছে। বাংলাদেশও এই ক্রান্তীয় অঞ্চলেই পড়ে।
জিকা ভাইরাসের প্রভাব সবচেয়ে বেশি দেখা যাচ্ছে গর্ভবতী মহিলাদের উপর। অন্তঃসত্ত্বা মায়ের গর্ভে থাকা অবস্থাতেই আক্রান্ত হচ্ছে সন্তানও। সেই সন্তান জন্ম নিচ্ছে মাইক্রোসেফ্যালিতে আক্রান্ত হয়ে। অর্থাৎ ওই নবজাতকদের মাথা শরীরের তুলনায় অস্বাভাবিক রকম ছোট আকারের... continue reading

৪৪২

সাইফুল বিন হানিফ

৩ বছর আগে লিখেছেন

সিজোফ্রেনিয়া কি?

আপনি কি জানেন ?
গান শুনে সিজোফ্রেনিয়া ভাল হয়? 
শ্বাস প্রশ্বাস ব্যায়ামের মাধ্যমে মৃদু লয়ের বাঁশী, সন্তুর, সারেঙ্গী, বেহেলা অষ্টপ্রহর মেনে নিয়মিত শুনলে পাশাপাশি ক্ষতি বিহীন সিজোফ্রেনিয়া ভাল হয়। সেই সাথে স্মৃতি শক্তি বৃদ্ধি পায় ও কর্মস্পৃহা বেড়ে যায়।
এখন আমরা জেনে নিব,সিজোফ্রেনিয়া কি ও কত প্রকার ?কারণ ও লক্ষণ ।চিকিৎসা বিজ্ঞানের অন্য কি কি মাধ্যমে সিজোফ্রেনিয়ার চিকিৎসা হয় সিজোফ্রেনিয়া / Chizophrenia
সিজোফ্রেনিয়া /Chizophrenia ( কোন কিছু মনে না রাখতে পারা বা স্মৃতিভ্রষ্ট ) ভুমিকা ঃ-সুইডেনের মনোচিকিৎসক ইউজেন ব্লিউলার ১৯১১ সালে সিজোফেন্সনিয়া শব্দটি ব্যবহার করেছিলেন। শব্দটি এসেছে মূলত গ্রিক ভাষা থেকে। এর প্রথম অংশটিকে বলা হয় ‘সাইজো’ বা ‘সিজো’, যার অর্থ ভাঙা বা টুকরো।... continue reading

৪৪৬

দিলারা জামান

৩ বছর আগে লিখেছেন

ফ্রোজেন শোল্ডারের সমস্যা ও সমাধান

ফ্রোজেন শোল্ডারের সমস্যায় ভোগেন না এমন মানুষ কমই আছেন। কাজের চাপ, ঘুমের অভাব, পুরনো চোট বা শরীরচর্চা না করা; যে কারণেই হোক না কেন ঘাড়ের ব্যথা ভোগায় অনেককেই। রোজ কী কী করলে উপকার পাবেন, প্রচন্ড ব্যথাতেই বা কী ভাবে আরাম পাবেন।
 
কী কী কারণে ঘাড়ে ব্যথা হয়?
১। এক টানা অনেকক্ষণ চেয়ারে বসে কাজ করলে
২। ঘুমনোর সময় বাজে ভাবে শোওয়ার জন্য
৩। অতিরিক্ত স্ট্রেস
৪। হঠাত্ খিঁচ ধরলে
 
প্রচন্ড ব্যথা হলে কী করবেন-
১। আদা- ঘাড়ের শিরা ফুলে গিয়ে যন্ত্রণা হয়। আদার রস, আদা চা খেলে ফোলা কমে ব্যথা জলদি উপশম হবে।... continue reading

৩৯৭

শাহআজিজ

৩ বছর আগে লিখেছেন

ডঃ দেবী শেঠীর আজকের অনুষ্ঠান দেখুন

আজ সন্ধ্যা ৭,৩০ মিনিটে প্রায় ঘণ্টা ব্যাপি ওজন বাড়ার সমস্যা , ডায়াবেটিক সমস্যা নিয়ে অর্থবহ আলাপ করলেন ডঃ শেঠী ও তার নারায়ানা হেলথের সহকারি ডাক্তারগণ । আমি খুবই উপকৃত হয়েছি অনুষ্ঠান লাইভ দেখতে পেরে। যাদের মোটাজনিত সমস্যা আছে তারা খেয়াল করে শুনুন । ধন্যবাদ।
Live webinar on obesity and weight management
https://www.youtube.com/watch?v=RZfHhrQqm3w
continue reading

৩৫৪

আতা স্বপন

৪ বছর আগে লিখেছেন

সকল অাব্বু আম্মুদের বলছি! বয়োস্বন্ধিকালিন সময়ে ছেলেমেয়ের বন্ধু হোন!

পিতামাতারা তাদের বয়ঃসন্ধি বা টিনেজার সন্তাদের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে অনেক সময় চিন্তায় পড়ে যান। আসলে বয়ঃসন্ধি সময় টা খুবই ক্রিটিকাল একটি সময়। এই সময় টিনেজার ছেলেমেয়েরা অধিকাংশ সময় বিভিন্ন ভুল করে থাকে এমনকি এই সময়ে তারা এমন কিছু কার্যকলাপ করে যা তাদেরকে আজীবন ভুগতে হয়। সাধারণত ১৩-১৯ বছরের সন্তানদের কে টিনেজার হিসাবে ধরা হয়।
এই বয়সের সন্তানদের বাবা মায়ের উচিত আলাদা যত্ন নেওয়া। সাধারণত আমাদের সমাজে বাবা মায়ের এই বিষয়টা তেমন খেয়াল করেনা। অনেকে বাবা মায়ের কাছে মনে হয় সন্তান বড় হচ্ছে তারা তাদের ভালো তারা বুঝে নিতে পারবে। কিন্তু এই সময়ে একটু আলাদা যত্ন নেওয়া উচিত।
বয়ঃসন্ধিকাল... continue reading

৫৭৩

নাসরিন ইসলাম

৪ বছর আগে লিখেছেন

ত্বক ও স্বাস্থ্যের জন্য শঙ্খ

প্রাচীন আয়ুর্বেদে শঙ্খ বা CONCH অথবা সী শেল এর ভূমিকা অপরিহার্য। ভারতীয় উপমহাদেশের সৈনিকরা প্রাচীনকাল থেকে যুদ্ধ ক্ষেত্রে এর ব্যবহার করে আসছে। সৌন্দর্যচর্চায় এর ভূমিকাও ঠিক তেমনটাই পুরনো। আপনারা যারা রূপচর্চায় মনোযোগী তারা নিশ্চয়ই শঙ্খের গুঁড়া এবং তার অসামান্য গুণের কথা আবছা ভাবে হলেও শুনে থাকবেন। কিন্তু বেশিরভাগ মানুষ এখনো রূপচর্চায় শঙ্খের গুঁড়া কীভাবে ব্যবহার করতে হয় তা জানেন না বললেই চলে। আমাদের সেই পাঠকদের কথা ভেবেই আজকের এই আর্টিকেল।
শঙ্খকে সোজা বাংলায় বলে ‘শাঁখ’। সনাতন ধর্ম এবং জীবন প্রণালীতে এর উপস্থিতি উল্লেখ্য।
 
এটা মূলত দুই ধরনের হয়ে থাকে। 
১। ডানাবর্তীঃ যেক্ষেত্রে শঙ্খের ঘূর্ণন ডানদিকে হয় এবং
২। বামাবর্তীঃ... continue reading

৫২৯

সোহেল আহমেদ পরান

৪ বছর আগে লিখেছেন

ধূমপানঃ ক্ষতিকর পরোক্ষ প্রভাব

প্রাক-কথাঃ
‘ধূমপান‘ শব্দটি ‘ধূম’ এবং ‘পান’ শব্দদ্বয়ের সমন্বয়ে গঠিত। ধূম হলো ‘ধোঁয়া’ বা বাষ্পের প্রতিশব্দ। যেহেতু তামাকজাতীয় পদার্থের ধোঁয়া গ্রহণ করা হয় বা পান করা হয়, তাই একে ‘ধোঁয়া পান’ করা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়, সে হিসেবে ধূমপান শব্দটি গঠিত। ধূমপান হচ্ছে তামাক জাতীয় দ্রব্যাদি বিশেষ উপায়ে প্রক্রিয়াজাত করে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে শ্বাসের সাথে তার ধোঁয়া শরীরে গ্রহণের প্রক্রিয়া। সাধারণ যেকোনো দ্রব্যেরপোড়ানো ধোঁয়া শ্বাসের সাথে প্রবেশ করলে তাকে ধূমপান বলা গেলেও মূলত তামাকজাতীয় দ্রব্যাদির পোড়া ধোঁয়া গ্রহণকেই ধূমপান হিসেবে চিহ্নিত করা হয়।
ধূমপানের প্রকারভেদঃ
ধূমপান দুই ধরনের হতে পারে। যথা-
সক্রিয় ধূমপান :ধূমপায়ী যে অবস্থায় জলন্ত সিগারেট বা বিড়ি বা চুরুট থেকে উদ্ভুত ধোঁয়াকে... continue reading

৪৮৬