"শিশুসাহিত্য" বিভাগের পোস্ট ক্রমানুসারে দেখাচ্ছে

Faisal Habib

৪ বছর আগে লিখেছেন

আবার কুকুর

একবার বাংলা পরীক্ষায়  রচনা আসলো গরু।তো শিক্ষক খাতা দেখার সময় লক্ষ্য করলেন যে সব ছাত্র ই মোটামুটি প্রাসাঙ্গিক ভাবেই লেখা শেষ করেছে কিন্তু একটা ছাত্র রচনা লিখেছে এভাবে '' গরু একটি চতুষ্পদী গৃহপালিত জন্তু।গরুর আছে চার টি পা,দুটি শিং,দুটি কান,একটি লেজ।আমার পোষা একটি গরু ছিল। একদিন আমার গরু টা রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিল হঠাত কোথা থেকে যেন একটা কুত্তা এসে গরু টারে কামোড় দিল। গরু টা মারা গেল।ভাগ্য খারাপ থাকলে যা হয় আর কি। বদ কুত্তা।
রচনা শেষ।
স্যার এই রচনার বড় সড় গোল্লা ছাড়া আর কিছুই দিতে পারলেন না।যাইহোক,পরবর্তী পরীক্ষায় রচনা আসলো রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।আবারো প্রায় সব ছাত্র... continue reading

১২২৭

চারু মান্নান

৪ বছর আগে লিখেছেন

হেমন্তের সকাল

হেমন্তের সকাল
ঘাস ফড়িং এর সবুজ ঘাস
গায়ে মেখে হেমন্তের হিম,
হলুদ বর্ণে পাক ধরেছে
সোনা ঝরা রোদে রিমঝিম।
ক্যামেলিয়া ফুলে শিশির বিন্দু
যেন মুক্তোর দানা সাদা দলে,
মধুর লোভে মৌমাছি ফুলে
ভেজা ডানায় গুনগুনিয়ে ঘুরে।
সকাল বেলা গাছের তলায়
ফুল ঝরে ভেজা ঘাসে,
ভুতু সোনা আঁচল পেতে
ফুল কুড়িয়ে মালা গাঁথে।
হেমন্তকাল/২৫,অগ্রহায়ণ/১৪২১
continue reading

৬৯৮

সমুদ্র মিত্র

৪ বছর আগে লিখেছেন

ভালবাসি

ভালবাসি চোখের জ্বলে,
বর্ষা হয়ে বৃষ্টি এলে |
ভালবাসি রৌদ্রছায়ায়,
শীত-সকালে চাদর মোড়ায় |

continue reading

৫৬৭

জাবেদ ভুঁইয়া

৪ বছর আগে লিখেছেন

শিশুতোষ গল্প লেখা প্রতিযোগিতা-২০১৫

অনলাইন বাংলা সাহিত্যের পালে নতুন হাওয়া দিয়েছে। ফেসবুক আর ব্লগের বদৌলতে বেরিয়ে আসছে অনেক নতুন নতুন লেখক। যারা নানা রকম কাব্যে, গল্পে সমৃদ্ধ করছেন বাংলার অনলাইন জগৎকে। কিন্তু এত সাহিত্যের মধ্যে শিশুদের জন্য লেখা কীরকম আসছে? উত্তর খুবই দুঃখজনক। গুগলে সার্চ করলে শতকরা ২৫টি শব্দের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ এডাল্ট পোস্টের লিংক আসে কিন্তু শিশুদের জন্য? সে হার দু একটার বেশি নয়।
এবার অনলাইন শিশুসাহিত্যকে সমৃদ্ধ করতে আলোর নিশান ম্যাগ ও শুধুই গল্পের উদ্যোগে শুরু হতে যাচ্ছে শিশুতোষ গল্প লেখা প্রতিযোগিতা।
এখানে একটা কথা বলে নেয়া যাক। তা হল আমরা শিশুসাহিত্য বলতে ঠিক কিরকম গল্পকে নির্দেশ করছি। শিশুসাহিত্য বলতে মূলত এমন সাহিত্যকে... continue reading

৮৩৯

লুৎফুর রহমান পাশা

৪ বছর আগে লিখেছেন

বুদ্ধিমান বোকা

আমাদের গফুরে, বড় সড় রাখালে
দুই পশু আছে তার বিশাল গোয়ালে
তাইতো গফুরে উঠে রোজ সকালে
পশু নিয়ে যায় মাঠে ফিরে সেই বিকালে।
সাবধানি গফুর তাই বার বার নেয় খোজ
পশু গুলো আদরের হয়ে উঠে রোজ রোজ।
একখান ছাগী আর এক খান গাই গরু
এই নিয়ে গফুরের রাখালী হয় শুরু।
গরুটা বেয়াড়া কথা কভু শোনেনা
ছাগীটাও কম নয়, ভ্য ভ্য থামেনা।
তবুও সে দুটিকেই ভালবাসে সমানে
অস্থির হয়ে উঠে না থাকলে সামনে।
 
একদিন ছাগীটা চলে গেল পাহাড়ে।
পাহাড়ে উঠে গেলে বিলটাকে মাড়িয়ে
ভাবল ছাগীখানা গফুর কি খুড়া কানা
এই খানে কত ঘাস... continue reading

৭৪৬

চারু মান্নান

৪ বছর আগে লিখেছেন

ছোট্ট সেই ভুতু সোনা

ছোট্ট সেই ভুতু সোনা
ছোট্ট সেই ভুতু সোনা
কৈশোরে চঞ্চল মনা,
লেখা পড়া বেজায় কষ্ট
ধু ছাই শুধু সময় নষ্ট।
এমনি করে স্কুল বাসা
মন লাগে না কিছুতেই খাসা,
রং তুলিতে রঙ মাখালে
ভূতেরা যেন সঙ সাজে।
নদীর ঘাটে কলসি কাঁকে
বধূরা সব নাইয়ে জলে,
সবুজ গাঁয়ের উনুন চালে
বাগ বাকুম কবুতর ডাকে।
১৪২১/১৩/কার্তিক/হেমন্তকাল।
continue reading

৫৪৮

বুলি

৪ বছর আগে লিখেছেন

ট্রাইসাইকেল

ছোট বেলা থেকেই সাইকেলের প্রতি তীব্র দুর্বলতা। একটা ট্রাই সাইকেলের খুব শখ ছিল।কখনই বাবাকে বলিনি এই কথা। বললেই হয়ত কিনে দিতেন কিংবা দিতেন না। জানি না। এমন না বাবার কেনার সামর্থ্য ছিল না। ছিল। ভালোভাবেই ছিল। বাবা ব্যাংক ম্যানেজার। একটা ট্রাই সাইকেল কেনা হয়ত তার জন্য কোন বড় ব্যাপার হত না। তবু ও চাইনি।
 
ছোট বেলা থেকেই আমাদের শিখানো হয়েছে অপ্রয়োজনীয় জিনিসের জন্য বায়না না ধরতে। খেলনা কেনা বিলাসিতা মাত্র। বড় ভাই বোন দের খেলনা দিয়েই খেলে কাটিয়েছি ছোট বেলাটা। সেই উত্তরাধিকার প্রাপ্ত খেলনার তালিকায় কোন ট্রাই সাইকেল ছিল না। কয়েকটা খালি স্নো ক্রিমের ডিব্বা, কিছু পুতুল,... continue reading

৬২৯

কবীর কবীর

৪ বছর আগে লিখেছেন

বর্ণ দিয়েই ছড়া

  ‘জীবনস্মৃতি’ আর ‘ছেলেবেলা’ দুটো বইয়েই কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নিজের ছোট বয়সের অনেক কথা লিখে গেছেন তিনি। সে সব পড়লে দেখি, রবি নামের ছোট ছেলেটি তার পড়ারবই একেবারেই পড়তে চাইত না। মাস্টারকে ফাঁকি দেওয়ার দুটো বেশ পাকাপোক্ত উপায় সে বের করেছিল- মাথাব্যথা করছে আর পেট কামড়াচ্ছে। দুটোই বাইরে থেকে দেখে বুঝবার কোনো উপায় নেই। জ্বরের কথা বলত না, কেননা জ্বরে তো গা গরম হবে, গায়ে হাত দিলে বুঝতে পারা যাবে যে জ্বর এসেছে। মাস্টারের হাত ফস্কে পালানোর এ ছিল এক কায়দা। পালানো কেন? পিটুনি খাওয়ার ভয়ে। আগের আমলে মাস্টারদের বিশ্বাস ছিল- ছাত্রদের মারধর না করলে তাদের মগজে কিছু ঢোকানো যায় না। ফলে... continue reading

৬৫৯

চারু মান্নান

৪ বছর আগে লিখেছেন

কত পড়বে ভুতুসোনা?

কত পড়বে ভুতুসোনা?
দিন গড়িয়ে বিকেল শেষ
পড়া লেখার পানশালা,
কত পড়বে ভুতুসোনা?
ঘর যেন পাঠশালা।
অধুনাকালে অধ্যয়নের এমন রীতি
সবাই টের পাই,
ছেলে বেলা কিশোর যৌবন
স্বপ্নের গান গাই।
রং লাগানো রামধনু
রং ছড়িয়ে যায়,
নীল আকাশে সাদা মেঘ
ভুতুর গান গায়।
১৪২১@১ আশ্বিন,শরৎকাল।
continue reading

৫৭৩

চারু মান্নান

৪ বছর আগে লিখেছেন

ভুতু সোনার গাঁও

ভুতু সোনার গাঁও
শরত এলেই আকাশ জুড়ে
সাদা মেঘের ভেলা,
উদাস আকাশ নিল হারিয়ে
স্বপ্ন দেখার মেলা।
মেঘের ভেলা যায় রে ভেসে
ভুতু সোনার গাঁও,
দিগন্ত ঐ সাজে রে ভাই
মেঠো পথে যাও।
সবুজ মাঠের ক্ষেত জুড়ে
বাউল হাওয়ার ঢেউ,
লাউয়ের মাচায় ফুলের কুঁড়ি
হাওয়ায় দোলে মৌ।
১৪২১@ ২২ ভাদ্র, শরৎকাল।
শরত এলেই আকাশ জুড়ে
সাদা মেঘের ভেলা,
উদাস আকাশ নিল হারিয়ে
স্বপ্ন দেখার মেলা।
মেঘের ভেলা যায় রে ভেসে
ভুতু সোনার গাঁও,
দিগন্ত ঐ সাজে রে ভাই
মেঠো পথে যাও।
সবুজ মাঠের ক্ষেত জুড়ে
বাউল হাওয়ার... continue reading

৬০৪