"শিশুকিশোর" বিভাগের পোস্ট ক্রমানুসারে দেখাচ্ছে

চারু মান্নান

৫ বছর আগে লিখেছেন

লাল ফড়িং এর ডানায় ভুতু সোনা

ভুতু সোনার ইচ্ছে নাকি
ভুতু সোনার ইচ্ছে নাকি
মস্ত বড় ঐ,
পড়া লেখা ভাল লাগে না
কার্টুন গেল কই?
কার্টুন যায়রে চ্যানেল বাড়ি
সময় গুনে চলে,
খাওয়ার কথা কইতে গেলে
মাথায় বাজ পরে।
খাওয়া পড়া মস্ত জঞ্জাল
ভুতু সোনার তরে,
টারজান ঘুড়ে বন জঙ্গলে
বেশতো সুখে আছে।
১৪২০@২১ ফাল্গুন, বসন্তকাল।
continue reading

৫৪৩

চারু মান্নান

৫ বছর আগে লিখেছেন

লাল ফড়িং এর ডানায় ভুতু সোনা

মুখটা ভুতুর কার্টুন
ভুতু সোনার মিষ্টি বিকেল,
হারিয়ে যায়রে ঐ,
কোচিং পাড়ায় যায়রে বেলা
খেলার মাঠ কই?
লেখা পড়ায় মন বসে না
কার্টুন দেখতে চায়,
হোম ওয়াক না করলে
মায়ের বকুনি খায়।
দিনভর এটা কর সেটা কর
রংতুলিতে ছবি আঁক,
টেবিলে বসে খাইতে গেলে
মুখটা ভুতুর কার্টুন।
১৪২০@ ১৯ ফাল্গুন, বসন্তকাল।
continue reading

৪৭৬

চারু মান্নান

৫ বছর আগে লিখেছেন

লাল ফড়িং এর ডানায় ভুতু সোনা

ভুতু সোনার মিষ্টি পুষি
ভুতু সোনার মিষ্টি পুষি
মাছ ভাজা খায়,
মাছ ভাজার গন্ধ শুকে
মিউ মিউ গায়।
গরম গরম ভাজি পেয়ে
ডগো মগো করে,
জানলার কাছে ডাকলে কাক
আঁড় চোখে দ্যাখে।
সাত সকালে ভাঙ্গলে ঘুম
বারান্দায় এসে বসে,
চড়ুই গুলোর কিচির মিচির
শিকার ধরায় মজে।
১৪২০@ ২০ ফাল্গুন, বসন্তকাল।
continue reading

৪৬৩

নূর মোহাম্মদ নূরু

৫ বছর আগে লিখেছেন

স্বাধীন বাংলাদেশের রূপকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের ৯৪তম জন্মবার্ষিকী (৯৫তম জন্মদিন) ও শিশু দিবস আজ

স্বাধীন বাংলাদেশের রূপকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের ৯৫তম জন্মদিন (৯৪তম জন্মবার্ষিকী) ও শিশু দিবস আজ। শিশু দিবস পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন সময় পালিত হয়ে থাকে। ১০২০ সালের ২৩ এপ্রিল তুরস্কে প্রথম শিশু দিবস পালিত হয়। আঞ্চলিক ভাবে বিভিন্ন দেশে ২০ নভেম্বর শিশু দিবস পালিত হলেও আন্তর্জাতিক ভাবে ১লা জুন বিশ্ব শিশু দিবস হিসেবে উদযাপন করা হয়। ১লা জুন বুলগেরিয়ায় শিশু দিবস পালন করা হয়। সনাতন ধারায় শিশুরা তাদের পরিবারের কাছ থেকে জন্মদিনের ন্যায় বিশেষভাবে মনোযোগ লাভ করে। সকল গাড়ী চালক দিনব্যাপী রাস্তায় বাতি জ্বালিয়ে শিশুদের নিরাপত্তার বিষয়ে অতিরিক্ত নির্দেশনা দিয়ে থাকে। বাংলাদেশে প্রতি বছর ১৭ মার্চ এটি পালিত হয়।... continue reading

১০ ১১৪৭

চারু মান্নান

৫ বছর আগে লিখেছেন

লাল ফড়িং এর ডানায় ভুতু সোনা

ছড়ার বইয়ে ফুলপরি
ফাগুন বিকেলে বসন্ত ঘুড়ি
বই মেলায় চুপিচুপি,
এলো মেলো হাওয়ায় উড়ে
ছড়ার বইয়ে ফুলপরি।
আকাশ নিলে ঐ যে টিঁয়া
রঙ গায়ে মাখে,
সবুজ বনে লাল ঠোঁটে
সবুজ স্বপ্ন আঁকে।
কোথায় যায় ভুতু সোনা?
ভাবনার জালে ফেঁসে,
ফুল পরিরা দল বেঁধে
রঙিন স্বপ্নের ফাঁদে।
১৪২০@৮ ফাল্গুন, বসন্তকাল।
continue reading

৪২৬

চারু মান্নান

৫ বছর আগে লিখেছেন

লাল ফড়িং এর ডানায় ভুতু সোনা

বই কিনবে পাঁচখানা
মাঘের হাওয়া যায়রে ফুড়িয়ে
আমের শাখায় বোল,
উত্তরের ক্ষেপ নেতিয়ে পরে
দক্ষিণা জানলা খোল।
পলাশ ফুলে আগুন জ্বলে
একুশ এসেছে ফিরে,
বর্ণমালার ফুল কুঁড়ি সব
বইয়ের পাতায় মিলে।
নতুন বইয়ের মিষ্টি গন্ধ
মৌ মৌ বইমেলা,
ভুতু সোনা ধরেছে বায়না
বই কিনবে পাঁচখানা।
১৪২০@ ২৮ মাঘ, শীতকাল।
continue reading

৪৪৬

চারু মান্নান

৫ বছর আগে লিখেছেন

লাল ফড়িং এর ডানায় ভুতু সোনা

ভুতু সোনার পুষি
ডোরা কাটা কালো সাদা
ভুতু সোনার পুষি,
ইঁদুর ধরা কৌশল তাই
যেন বাঘের মাসি।
মাছে ভাতে সতেজ মোরা
তাই পুষিও সহজাত,
কোন কিছুতেই মন ভরে না
খাওয়া পেলে দুধভাত।
মাছের কাঁটা লোভনীয় বটে
গলায় যায়রে বিঁধে,
এনিয়ে বিনিয়ে খাওয়া চাই
লাগলে বেজায় ক্ষিধে।
১৪২০@ ৮ ফাল্গুন, বসন্তকাল।
continue reading

৬১২

নাসির আহমেদ কাবুল

৫ বছর আগে লিখেছেন

টনি ও টমি

মাঘ মাসের উত্তুরে হিমেল হাওয়া। তার ওপর একটু আগে কয়েক পশলা বৃষ্টি হয়েছে! এ জন্যে শীতটা খুব জেঁকে বসেছে। সবাই কাঁপছে শীতে। বুড়ি মা তার প্রিয় কুকুরটিকে সাবধান করে দিয়ে বললেন, ‘শীতের মধ্যে খুমিয়ে পড়ো না যেন! একটি গরু-ছাগলও যেন চুরি না যায়! হাঁস-মুরগীগুলোও যেন খেঁকশিয়ালে নিতে না পারে।’
বুড়ি মা’র কথা রাখতে পারেনি টনি। ঘুমিয়ে পড়েছিল সে। আর এই সুযোগে খোঁপ থেকে বড় মোরগটি চুরি করে নিয়ে গেছে ধূর্ত একটি খেঁকশিয়াল!
কুকুরটি নাম টনি। প্রায় বছর পনের ধরে বুড়ি মা’র প্রতিটি নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করে আসছে। কোনদিন এতোটুকু ভুল হয়নি। কিন্তু রাতে প্রচন্ড শীতের মধ্যে খড়ের গাদায় আশ্রয় নিয়ে ঘুমিয়ে... continue reading

১৪ ৭০১

তাপস কিরণ রায়

৫ বছর আগে লিখেছেন

বর্ষার রূপ

(ছোটদের এ কবিতাটি আমার তারিখ-৭/৬/১৯৬৬-তে লেখা)  
 
ওই দেখো এলো ভাই ঘন ঘোর বর্ষা,
চাষিদের মনে বুঝি এলো আজ ভরসা।
থেকে-থেকে ডেকে-ডেকে বিদ্যুৎ চমকে--
সকলকে বলে যায় যেন কি ধমকে। 
 
দিন নেই রাত নেই টুপটাপ পড়ে,
শনশন ভনভন--ঝড় কি যে ঝরে !
ব্যাঙগুলো একটানা দিন রাত ডাকে--
জল,জল,আরও জল--ফুর্তিতে হাঁকে। 
 
নীড়ে ফেরা পাখীগুলি ভয়ে জড়সড়,
ঝড় হয়ে হল সারা--বাসা পড়ো পড়ো। 
দুপুরের ফুরসতে ক্ষণেকের রৌদ্র,
মনে হয় যেন আজ এসে গেল ভাদ্র। 
 
সোনা সোনা রোদ ঝরে,ক্ষণেকের তরে,
মিশমিশে কালো মেঘ,আকাশের'পরে। 
এই বুঝি চিরদিন জগতের খেলা,
‘কালো’ আর ‘ভালো’ নিয়ে চলে সারা বেলা।। continue reading

১০ ৪১৫

নাসির আহমেদ কাবুল

৫ বছর আগে লিখেছেন

রাক্ষস এক বাজপাখির গল্প

হঠাৎ করেই বনের পাখিরা দুঃশ্চিন্তায় পড়ে গেলো। ওদের এই দুঃশ্চিন্তার কারণ একটি বাজপাখি। এটি যেন পাখি নয়, যেন রাক্ষস! সারাদিন শুধু খাই খাই। হাঁস খাবে, মুরগি খাবে, চড়–ই খাবে, টিয়া খাবে, ময়না খাবে- আরো কত কি! বাজপাখিটির ক্ষেতে কোন ক্লান্তি নেই। কিছুতেই যেন পেট ভরতে চায় না।
বাজপাখিটির সকালের নাস্তায় ছোট-বড় মিলে দশ থেকে বারোটি পাখি লাগে। দুপুরের খাবারের জন্য পনের থেকে বিশটি, আর রাতে এর কম হলে চলে না। এ ছাড়াও সারাদিন সময়-সুযোগ পেলেই টিয়া, ময়না, চড়–ই, টুনটুনি আর বুলবুলি মিলে আট থেকে দশটি পাখি শিকার করে খায় বাজপাখিটি।
এভাবে প্রতিদিন প্রায় পঞ্চাশটি পাখি বাজপাখিটি শিকার করে খায়। এতে দিন দিন... continue reading

১৫ ৭৯০