"ভ্রমণ" বিভাগের পোস্ট ক্রমানুসারে দেখাচ্ছে

নূর মোহাম্মদ নূরু

৫ বছর আগে লিখেছেন

বিখ্যাত ভারতীয় চিত্রশিল্পী ও লেখক ডঃ অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৪৩তম জন্মবার্ষিকীতে ফুলেল শুভেচছা

খ্যাতিমান ভারতীয় চিত্রশিল্পী, নন্দনতাত্বিক এবং লেখক ডঃ অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর। ছেলেবেলা থেকেই অবনীন্দ্রনাথ চিত্রাঙ্কনের প্রতি আকৃষ্ট হন। মাত্র ন’বছর বয়সে পিতার ব্যবহ্রত রঙ পেনসিল ব্যবহার করে তাঁর হাতেখড়ি হয় চিত্রশিল্পে। অবনীন্দ্রনাথ সংস্কৃত কলেজে শিক্ষালাভ করেন। প্রথাগত অঙ্কনশিল্পের শিক্ষালাভের সুযোগ এখানে না থাকলেও তিনি তাঁর সহপাঠী অনুকুল চ্যাটার্জির কাছে কিছুদিন যাবৎ অঙ্কনচর্চা করেন। চিত্রশিল্পের পাশাপাশি ভাস্কর্য শিল্পেও সমান দক্ষতার পরিচয় দিয়েছিলেন অবনীন্দ্রনাথ। বহুমুখী প্রতিভাসম্পন্ন এই শিল্পীর অবাধ বিচরণ দেখা যায় সাহিত্য জগতে। তিনি সংস্কৃত ভাষা ও সাহিত্যে খুবই সাফল্যলাভ করেছিলেন কলেজ জীবনে। কিশোর উপন্যাসের ক্ষেত্রে তাঁর অবদান বিশেষ উল্লেখযোগ্য। চিত্রকলায় ধারাবাহিকতায় লেখালেখির জগতেও আপন ঐতিহ্যের অনুরাগী ছিলেন অবনীন্দ্রনাথ।তিনি বেশ কিছু যাত্রাপালা ও... continue reading

১৩১৮

এই মেঘ এই রোদ্দুর

৫ বছর আগে লিখেছেন

হালকা ঈদ ভ্রমণ........(২)

রিকশা করে গিয়ে পৌঁছলাম বুড়িগঙ্গা ইকো পার্কের সামনে। ইয়া মাবুদ সেখানে গিয়ে দেখি এলাহি কান্ড। মানুষের মাথা মানুষ খায়। পুরান ঢাকার সব মানুষ ঘর ছেড়ে পালিয়েছে বুঝি ইকো পার্কের হিমেল বাতাসের কাছে। আকাশটা তখন বেশ মেঘাচ্ছন্ন ছিল।
১। সাইনবোর্ড গুলো দেখলে গা রি রি দিয়ে উঠে..... কোন কিছুই রাজনীতির উর্ধ্বে নয় মনে হয়।
টিকেট কেটে ধাক্কাধাক্কি করে কোনমতে বাচ্চাদের নিয়ে ঢুকলাম পার্কের ভিতরে কিন্তু কোথাও ঠাঁই নেই বসার বা দাঁড়ানোর। এদিক সেদিক বাচ্চাদের নিয়ে হেঁটে হেঁটে ঘুরে বেড়ালাম। আসলে ইকোপার্কটা বাচ্চাদের জন্য নয় । এখানে কোন ধরণের বাচ্চাদের বিনোদন দেয়ার মতো কোন রাইড নেই। শুধু নৌকা ভ্রমণ ছাড়া।
... continue reading

১২৩১

এই মেঘ এই রোদ্দুর

৫ বছর আগে লিখেছেন

হালকা ঈদ ভ্রমণ........(১)

বাচ্চারা ঈদে একটু ঘুরবে বাইরে এটাই স্বাভাবিক । সারা বছরই তো একটা না একটা ব্যস্ততা লেগেই থাকে । কখনোৱই সময় হয়েই উঠে না । ঈদ মৌসুমে এই যা একটু বাইরে বের হতে হয়। ঈদের দিন অবশ্য আবহাওয়া অনেক ঠান্ডা ছিল এবং আমার আর বাচ্চাদের ইচ্ছে ছিল রিক্সা করে ঘুরবে কিন্তু বাচ্চাদের বাবা রোজা রেখে টায়ার্ড তাই কথা দিল যে ঈদের পরের দিন ঘুরতে যাবে। সেই অপেক্ষায় ঈদের দিন কেটেছে আমাদের । একেবারে বোরিং টাইম । কোন মেহমান নাই। আমরাও কোথাও বের হইনি ঘর থেকে । সারাদিন একটু টিভি দেখি একটু মোবাইলে নেটে ফেবু ঘাটি আবার একটু শুয়ে বসে দিনটি... continue reading

৭৩০

মরুভূমির জলদস্যু

৫ বছর আগে লিখেছেন

বান্দরবান ভ্রমণ – “মেঘলা”

২৫ জানুয়ারি রওনা হয়ে ২৬ তারিখ সকালে পৌছাই খাগড়াছড়ি। একটি মাহেন্দ্রা গাড়ি রিজার্ভ করে নিয়ে সারা দিনের জন্য বেরিয়ে পড়ি খাগড়াছড়ি ভ্রমণে। একে একে দেখে ফেলি “আলুটিলা গুহা”, “রিছাং ঝর্ণা”, “শতবর্ষী বটবৃক্ষ” আর “ঝুলন্ত সেতু”।
পরদিন ২৭ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি থেকে রাঙ্গামাটির দিকে রওনা হই একটি চান্দের গাড়ি রিজার্ভ করে। পথে থেমে দেখে নিই “অপরাজিতা বৌদ্ধ বিহার”। ২৭ তারিখ দুপুরের পরে পৌছাই রাঙ্গামাটি। বিকেল আর সন্ধ্যাটা কাটে বোটে করে কাপ্তাই লেক দিয়ে “সুভলং ঝর্ণা” ঘুরে।
২৮ তারিখ সকাল থেকে একে একে দেখে এলাম ঝুলন্ত সেতু, রাজবাড়ি ও রাজবন বিহার। দুপুরের পরে বাসে করে রওনা হয়ে যাই রাঙ্গামাটি থেকে বান্দারবানের উদ্দেশ্যে। রাতটা কাটে বান্দরবানের “হোটেল... continue reading

৮৩২

মরুভূমির জলদস্যু

৫ বছর আগে লিখেছেন

বান্দরবন ভ্রমণ – “নীলাচল”

২৫ জানুয়ারি রওনা হয়ে ২৬ তারিখ সকালে পৌছাই খাগড়াছড়ি। একটি মাহেন্দ্রা গাড়ি রিজার্ভ করে নিয়ে সারা দিনের জন্য বেরিয়ে পড়ি খাগড়াছড়ি ভ্রমণে। একে একে দেখে ফেলি “আলুটিলা গুহা”, “রিছাং ঝর্ণা”, “শতবর্ষী বটবৃক্ষ” আর “ঝুলন্ত সেতু”।া
পরদিন ২৭ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি থেকে রাঙ্গামাটির দিকে রওনা হই একটি চান্দের গাড়ি রিজার্ভ করে। পথে থেমে দেখে নিই “অপরাজিতা বৌদ্ধ বিহার”। ২৭ তারিখ দুপুরের পরে পৌছাই রাঙ্গামাটি। বিকেল আর সন্ধ্যাটা কাটে বোটে করে কাপ্তাই লেক দিয়ে “সুভলং ঝর্ণা” ঘুরে। ২৮ তারিখ সকাল থেকে একে একে দেখে এলাম ঝুলন্ত সেতু, রাজবাড়ি ও রাজবন বিহার। দুপুরের পরে বাসে করে রওনা হয়ে যাই রাঙ্গামাটি থেকে বান্দারবানের উদ্দেশ্যে। রাতটা কাটে বান্দরবানের... continue reading

১৫৪৯

মরুভূমির জলদস্যু

৫ বছর আগে লিখেছেন

বান্দরবন ভ্রমণ – “শৈলপ্রপাত”

২৫ জানুয়ারি রওনা হয়ে ২৬ তারিখ সকালে পৌছাই খাগড়াছড়ি। একটি মাহেন্দ্রা গাড়ি রিজার্ভ করে নিয়ে সারা দিনের জন্য বেরিয়ে পড়ি খাগড়াছড়ি ভ্রমণে। একে একে দেখে ফেলি “আলুটিলা গুহা”, “রিছাং ঝর্ণা”, “শতবর্ষী বটবৃক্ষ” আর “ঝুলন্ত সেতু”। পরদিন ২৭ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি থেকে রাঙ্গামাটির দিকে রওনা হই এাকটি চান্দের গাড়ি রিজার্ভ করে। পথে থেমে দেখে নিই “অপরাজিতা বৌদ্ধ বিহার”। ২৭ তারিখ দুপুরের পরে পৌছাই রাঙ্গামাটি। বিকেল আর সন্ধ্যাটা কাটে বোটে করে কাপ্তাই লেক দিয়ে “সুভলং ঝর্ণা” ঘুরে। ২৮ তারিখ সকাল থেকে একে একে দেখে এলাম ঝুলন্ত সেতু, রাজবাড়ি ও রাজবন বিহার। দুপুরের পরে বাসে করে রওনা হয়ে যাই রাঙ্গামাটি থেকে বান্দারবানের উদ্দেশ্যে। রাতটা কাটে বান্দরবনের “হোটেল... continue reading

১১২৮

মরুভূমির জলদস্যু

৫ বছর আগে লিখেছেন

বান্দরবন ভ্রমণ – নীলগিরি

২৫ জানুয়ারি রওনা হয়ে ২৬ তারিখ সকালে পৌছাই খাগড়াছড়ি। একটি মাহেন্দ্রা গাড়ি রিজার্ভ করে নিয়ে সারা দিনের জন্য বেরিয়ে পড়ি খাগড়াছড়ি ভ্রমণে। একে একে দেখে ফেলি “আলুটিলা গুহা”, “রিছাং ঝর্ণা”, “শতবর্ষী বটবৃক্ষ” আর “ঝুলন্ত সেতু”।
পরদিন ২৭ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি থেকে রাঙ্গামাটির দিকে রওনা হই একটি চান্দের গাড়ি রিজার্ভ করে। পথে থেমে দেখে নিই “অপরাজিতা বৌদ্ধ বিহার”। ২৭ তারিখ দুপুরের পরে পৌছাই রাঙ্গামাটি। বিকেল আর সন্ধ্যাটা কাটে বোটে করে কাপ্তাই লেক দিয়ে “সুভলং ঝর্ণা” ঘুরে। ২৮ তারিখ সকাল থেকে একে একে দেখে এলাম ঝুলন্ত সেতু, রাজবাড়ি ও রাজবন বিহার। দুপুরের পরে বাসে করে রওনা হয়ে যাই রাঙ্গামাটি থেকে বান্দারবানের উদ্দেশ্যে।
বান্দরবনে পৌছতে পৌছতে রাত... continue reading

১০৪৩

মরুভূমির জলদস্যু

৫ বছর আগে লিখেছেন

রাঙ্গামাটি ভ্রমণ – ঝুলন্ত সেতু, রাজবাড়ি ও রাজবন বিহার

২৫ জানুয়ারি রওনা হয়ে ২৬ তারিখ সকালে পৌছাই খাগড়াছড়ি। একটি মাহেন্দ্রা গাড়ি রিজার্ভ করে নিয়ে সারা দিনের জন্য বেরিয়ে পড়ি খাগড়াছড়ি ভ্রমণে। একে একে দেখে ফেলি “আলুটিলা গুহা”, “রিছাং ঝর্ণা”, “শতবর্ষী বটবৃক্ষ” আর “ঝুলন্ত সেতু”।
পরদিন ২৭ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি থেকে রাঙ্গামাটির দিকে রওনা হই একটি চান্দের গাড়ি রিজার্ভ করে। পথে থেমে দেখে নিই “অপরাজিতা বৌদ্ধ বিহার”। ২৭ তারিখ দুপুরের পরে পৌছাই রাঙ্গামাটি। বিকেল আর সন্ধ্যাটা কাটে বোটে করে কাপ্তাই লেক দিয়ে “সুভলং ঝর্ণা” ঘুরে।
কাপ্তায়ে নৌভ্রমণ শেষে হোটেলে যখন ফিরেছি তখন রাত হয়ে গেছে। রাতের খাবার শেষ করে রুমের সামনে হোটেলের ছাদে পাতা দোলনায় বাচ্চারা দুলতে লাগলো আর আমরা তিন তালার রুমে চলে গেলাম,... continue reading

১২২৪

শফিক সোহাগ

৫ বছর আগে লিখেছেন

নুহাশপল্লী ভ্রমণ

নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের স্বপ্নের নুহাশপল্লীর কথা কম বেশি সবারই জানা আছে । হুমায়ূন আহমেদ নির্মিত বিভিন্ন নাটক ও টেলিফিল্মে নুহাশপল্লীর আকর্ষণীয় দৃশ্যগুলো দেখে তা সরাসরি দেখার বাসনা জেগেছিল মনে । যা ইতিমধ্যে পূরণ হল ! নুহাশপল্লী কর্তৃপক্ষ দর্শনার্থীদের জন্য কিছু নিয়মাবলী এবং দর্শনের কাল (মাস) নির্দিষ্ট করে দিয়েছেন । যা সম্পর্কে পূর্বে অবগত হওয়া বাঞ্ছনীয় । অন্যথায় ভিতরে প্রবেশ করতে না পারার হতাশা নিয়ে নুহাশপল্লীর গেইট থেকে ফিরে আশা অসম্ভব কিছু নয় । ভাগ্যক্রমে সেই হতাশা থেকে আমরা রক্ষা পেয়েছিলাম । প্রিয় পাঠক, আপনাদের যেন সেই পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে না হয় সে চেষ্টা করবো ।  
গাজীপুর জেলার... continue reading

১৫ ২৩৫৫

শফিক সোহাগ

৫ বছর আগে লিখেছেন

ঘুরে এলাম বঙ্গবন্ধু সাফারীপার্ক

২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৪ ইং । গাজীপুরে অবস্থিত নুহাশপল্লী ভ্রমণে গিয়েছিলাম । আমার সাথে ভ্রমণ সঙ্গী হিসেবে ছিল আরোও ৫ জন । ছোট আপু, আপুর মেয়ে আমার একমাত্র ভাগ্নি রাইমা (বয়স ৬ মাস), বড় ভাবী ( পটল ভাবী), ভাতিজি তাসমিয়া এবং ভাতিজা তামিম । যাওয়ার সময় আমার বন্ধু সায়েম জানালো, নুহাশপল্লী থেকে খুব কাছেই রয়েছে বঙ্গবন্ধু সাফারীপার্ক । সময় পেলে আমরা যেন সাফারীপার্ক ঘুরে আসি । সায়েমের কথা মত নুহাশপল্লী ভ্রমণ শেষে আমরা বঙ্গবন্ধু সাফারীপার্কও  ঘুরে এলাম । বঙ্গবন্ধু সাফারীপার্কের আকর্ষণীয় ছবিগুলো পোস্ট করলাম ।
 


বঙ্গবন্ধু সাফারীপার্কের ম্যাপ


 




 







 



 



 
 

 
 
... continue reading

৭৪৭