"বিজ্ঞান প্রযুক্তি" বিভাগের পোস্ট ক্রমানুসারে দেখাচ্ছে

শাহআজিজ

২ বছর আগে লিখেছেন

রহস্যময় ভ্রাম্যমান পাথরের রহস্য উন্মোচিত এক শতাব্দীব্যাপী গবেষনার পর!

ক্যালিফোর্নিয়ার ডেথ ভ্যালি ন্যাশনাল পার্কের সমতল ভুমিতে কিছু পাথর দেখা যায় যেগুলো কোনো রকম মানুষ বা প্রানীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই একস্থান থেকে অপর স্থানে ঘুরে বেড়ায় এবং এদের যাওয়ার পথে ভুমিতে চিহ্নরেখা রেখে যায়! এধরনের আচরণের কারনে পাথরগুলোকে sailing stone, sliding stone বা gliding stone (পিছলে যাওয়া পাথর) বলা হয়। চিহ্নরেখাগুলো পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায় এদের গতিপথ নিজে নিজে পরিবর্তিত হয়েও যেতে পারে। তবে এই সরণ চোখে পর্যবেক্ষণ করা দুঃসাধ্য কেননা পাথরগুলো অধিকাংশ সময়ই (বছরাধিক কালও হতে পারে) স্থির থাকে এবং হঠাৎ হঠাৎ কয়েক সেকেন্ডের জন্য সচল থাকে।
যেসব পাথরের তলা অমসৃণ সেগুলো সাধারণত একটি খাঁজকাটা পথরেখা এঁকে সোজা পথে... continue reading

৩৭৪

শাহআজিজ

২ বছর আগে লিখেছেন

Kazi Md. Obaydul Hoq

৩ বছর আগে লিখেছেন

"বর্তমানে উৎপাদিত প্লাস্টিক দিয়ে রেপিং করা যাবে সারা বিশ্ব"

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে বর্তমান,বিশ্বে যে পরিমান প্লাস্টিক উৎপাদন হয়েছে তা দিয়ে অনায়াশে সমগ্র বিশ্বকে খুব সহজেই রেপিং করা যাবে ...... সাম্প্রতিক এক গবেষনায় এই তথ্য উঠে এসেছে। মানুষের এ অবিবেচক আচরন ভবিষ্যত প্রজন্মকে আরো ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিচ্ছে।আমাদের এই পৃথিবী এমনিতেই নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঝুঁকিতে রয়েছে,উপরন্তু মানব সৃষ্ট এইসব ধ্বংসাত্বক কার্যক্রম সেইসব ঝুঁকি আরো বাড়িয়ে দিচ্ছে।এই কারনেই ক্লাইমেট চেঞ্জ ,ক্লাইমেট রিফিউজি সাড়া পৃথিবীব্যপি খুবি পরিচিতি  টার্ম।দুর্যোগে আক্ক্রান্ত হবার ঝুঁকিতে বাংলাদেশ রয়েছে প্রথম সারিতেই।তাই প্লাস্টিক ব্যবহারে আমাদের আরো সচেতন হতে হবে। আম্রা যদি এখনই এইসব ঝুঁকি মোকাবেলায় কার্যকরী ভুমিকা না রাখি,তাইলে পৃথিবীর সাথে আমাদের এই প্রিয় মাতৃভুমিও ধংসের মধে পড়বে,পড়েছেও।
... continue reading

৮১৩

টোকাই

৪ বছর আগে লিখেছেন

থ্রি ডি প্রিন্টার

বর্তমানে নতুন একটি প্রযুক্তির নাম হল থ্রি ডি প্রিন্টার । আমরা ব্যাবহারিক কাজে যেমন কোন কিছু প্রিন্ট করি - ছবি , কোন ডকুমেন্ট , বই , পত্র পত্রিকা , ব্যানার ইত্যাদি ; সেগুলো হল টু ডি । মানে হল দ্বিমাত্রিক ।  এখন ত্রিমাত্রিক প্রিন্ট করার প্রযুক্তি চলে এসেছে । অর্থাৎ এই প্রযুক্তিতে কোন কিছু প্রিন্ট করলে তার দৈর্ঘ্য - প্রস্থের পাশাপাশি উচ্চতা থাকবে । বাস্তবে কোন কিছু যেমন দেখি তেমন । যেমন ধরুন আপনার একটি ছবি প্রিন্ট করলে টু ডি-তে একটি পৃষ্ঠার মধ্যে দেখতে পাবেন । কিন্তু থ্রি ডি-তে পুরো বাস্তব মুখের ছবি পাবেন । বোঝার সুবিধার্থে , মূর্তি দেখতে... continue reading

৮৮৯

অর্বাচীন পথিক

৪ বছর আগে লিখেছেন

মঙ্গলের পথে মঙ্গল-অমঙ্গলের ধ্বনি

মঙ্গল গ্রহের কথা কে না জানে এই পৃথিবীতে। লাল এ গ্রহকে নিয়ে পৃথিবীর মানুষের জল্পনা কল্পনার শেষ নেই। তবে কিছটা হলেও শিথিল হতে যাচ্ছে সেই জল্পনা কল্পনার। পৃথিবী থেকে লাল এই গ্রহের দুরত্ত প্রায় ৫ কোটি ৫০ লাখ কিলোমিটার। তবে প্রযুক্তির কল্যাণেই সেই দুরত্ত এখন কমে এসেছে। আর তাই চলছে সেই খানে মানুষ বসবাস করানোর সকল প্রস্তুতি। কয়েক বছর পর অথাৎ ২০২৫ সালে মানুষ প্রথম বসবাস শুরু করবে এই লাল গ্রহে।
২০২৫ সালে বসবাসের উদ্দেশে মানুষের যাএা শুরু হচ্ছে মঙ্গল গ্রহে :
মঙ্গল গ্রহে মানুষ পাঠানোর এ আয়োজন করেছে নেদারল্যান্ডসের একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান মার্স ওয়ান। আর তার এই... continue reading

১০ ৬৮৬

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

প্রতিষেধক বিদ্যার জনক, জীবানু গবেষক এডওয়ার্ড অ্যান্থনি জেনার এর ১৯২তম মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি

ব্রিটিশ জীবাণু গবেষক এডওয়ার্ড অ্যান্থনি জেনার। তাঁকে বলা হয় ‘প্রতিষেধক বিদ্যার জনক’। স্মলপক্সের ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের জন্য বিখ্যাত তিনি। আজ থেকে ৬০, ৭০ বছর আগেও বসন্ত ছিলো এক মারাত্বক আতঙ্ক। যখন কোনো গ্রামে বসন্ত দেখা দিতো, তা ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করতো, মহামারী আকারে মৃত্যুর কারণ ঘটাতো হাজার হাজার লোকের। বসন্ত রোগে আক্রান্ত হলে খুব কম লোকই বেঁচে উঠতো। যদিও বা কেউ কেউ প্রাণে বাঁচতো, কিন্তু সারা জীবনের জন্য শরীরে বয়ে বেড়াতে হতো সেই মারাত্বক রোগের বীভৎস ক্ষতচিহ্ন। এই কালব্যাধির হাত থেকে যে মহান ব্যক্তি রক্ষা করেছেন পৃথিবীর মানুষকে, তিনি হলেন বিখ্যাত বিজ্ঞানী এডওয়ার্ড অ্যান্থনি জেনার। তিনি সর্বপ্রথম ১৭৯৬ সালে ভ্যাক্সিন আবিষ্কার করেন। গুটি... continue reading

৫৩০

মেঘলা মেয়ে

৪ বছর আগে লিখেছেন

স্লো কম্পিউটার ফাস্ট করতে যা করবেন


কম্পিউটার পুরাণ হয়ে গেলে নতুনের তুলনায় ধীরগতির বা স্লো হয়ে যেতে পারে। স্বাভাবিকভাবেই ইলেক্ট্রনিক যন্ত্রপাতি আস্তে আস্তে স্লো হয় অর্থাৎ কাজ করতে সময় একটু বেশি নেয়। কিন্তু তারও একটা সীমা আছে। প্রোগ্রাম খুলতে খুব বেশি দেরি করে, ক্লিক করার পর দীর্ঘক্ষণ ঝিম মেরে থাকে, একসাথে একাধিক প্রোগ্রাম খুলে কাজ করা যায়না কিংবা সময সময় হ্যাং করে ইত্যাদি সমস্যা অস্বভাবিক। অনেকে এই সমস্যার সমাধানে শুধু RAM বাড়ানোর পরামর্শই দেন। কিন্তু সেটা আসল সমাধান না। আসুন জেনে নেই এই সমস্যা হলে কোন পরামর্শগুলো আপনার জন্য সবচেয়ে ভাল কাজ করবে। পরামর্শ দিয়েছে computer hope.
 
কম্পিউটারের Speed বাড়ানোর জন্য সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ন বিষয় হচ্ছে RAM... continue reading

৭০৮

ফাতেমা সুমিন

৪ বছর আগে লিখেছেন

এই কেমন জরিপে বাংলাদেশ

সম্প্রতি গুগলে প্রকাশিত 'সেক্স' শব্দটি অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে কোনো দেশের অবস্থানবিষয়ক এক প্রতিবেদনে বাংলাদেশের নাম উঠে এসেছে। 
এক্ষেত্রে চলতি বছর বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয়। শ্রীলঙ্কা প্রথম এবং ভারত দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। খবর মিররের।   গুগলের প্রতিবেদন অনুযায়ী দেশের অবস্থানবিষয়ক তালিকা করতে প্রথমে কোনো দেশের নির্দিষ্ট শব্দের অনুসন্ধান কতটা করা হয় এর তথ্য নেওয়া হয়। এর ওপর ভিত্তি করে ওই দেশে নির্দিষ্ট শব্দটি অনুসন্ধানের মান দেওয়া হয়। পরে সব দেশের পাওয়া নাম একসঙ্গে নিয়ে তৈরি হয় তালিকা। ‘সেক্স’ শব্দটি অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে দেশের অবস্থানের তালিকা করতেও এ পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়েছে।
  continue reading

৫৫৯

মেঘলা মেয়ে

৪ বছর আগে লিখেছেন

গুগলের নেক্সাস ৬-রিভিউ !

বহু প্রতীক্ষার পরে এবার বাজারে আসছে গুগলের “নেক্সাস ৬” অনেকদিন ধরেই সবাই অপেক্ষা করছিলো এই ডিভাইসটির জন্য। গুগল ঠিক যথা সময়ে এটি অবমুক্ত করল। অন্যান্য প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের মতো গুগল এবার তাদের নেক্সাসে কিছু পরিবর্তন নিয়ে এসেছে। সব থেকে বেশি যে পরিবর্তনটি চোখে পড়বে সেটি এর ডিসপ্লে। নেক্সাস ৬ এর ডিসপ্লে সাইজ দেয়া হয়েছে ৬ ইঞ্চি। যেটি কিছুদিন আগে বাজারে আসা আইফোন ৬ প্লাস কিংবা গ্যালাক্সি নোট ৪-এর চেয়েও বড়। বাজারের চাহিদার দিকে লক্ষ্য রেখে গুগল এবারের নেক্সাস ৬ ফোনে দিয়েছে ৬-ইঞ্চি আকারের বিশাল ডিসপ্লে।
অনেকের মনে ভ্রান্ত ধারণা থাকতে পারে যে এতো বড় ডিসপ্লে দেবার কারনে এর ডিসপ্লের মান বা... continue reading

৬০৪

Zobaer Bin Liaquot

৪ বছর আগে লিখেছেন

নোকিয়া একটি অতীতের নাম !!!

মোবাইল বলতে একসময় অনেকেই নোকিয়াকেই বুঝত। নিম্নবৃত্ত হতে শুরু করে সমাজের উচ্চবৃত্তদের হাতের মুঠোতে সবচেয়ে বেশী শোভা পাওয়া মোবাইলটির নাম নিঃসন্দেহে নোকিয়া। বর্তমান প্রতিযোগিতার বাজারে নোকিয়ার হারিয়ে যাওয়া এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।
১৮৬৫ সালে ফ্রেডরিক ইডেস্টামেরকাগজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান কতৃক নোকিয়া প্রথম প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৭১ সালে ইডেস্টাম তার এক ঘনিষ্ট বন্ধু লিও ম্যাচলিনের সাথে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে নোকিয়া কোম্পানি আকারে আত্মপ্রকাশ করে। প্রথম দিকে নোকিয়া বিভিন্ন পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য পার্লস এনালাইজার জাতীয় ইলেক্ট্রনিক্স সামগ্রী প্রস্তুত করত। ১৯৮৭ সালে নোকিয়া সর্বপ্রথম মোবিরা সিটিম্যান নামে এন এম টি নেটওয়ার্কের অধীনে মোবাইল ফোন বাজারজাত করে।
১৯৯৪ সালে তাদের ২১০০ সিরিজের ফোন... continue reading

৭৫৩