"নারী" বিভাগের পোস্ট ক্রমানুসারে দেখাচ্ছে

মো: মালেক জোমাদ্দার

৫ বছর আগে লিখেছেন

বাংলার নারী

বাইরে থেকে ফিরলে বাড়ি
হাজার কষ্ট ভুলতে পারি
যার সাথে মোর বাঁধা নাড়ী
ক্ষুদ্র জ্ঞানে বুঝতে পারি
সে যে মাতা বঙ্গ নারী।
পরশ পাথর দু'হাত তার ই
ঘর সাজাতে সেই যে নারী,
ভাবেন কেমনে দেশটা গড়ি
মহান ব্রতে লক্ষ নারী,
সৈরাচারকে নিপাত করি
হাল ধরেলেন শক্ত করি।
প্রধান মন্ত্রী হলেন নারী
বিরোধী নেতা সেও নারী।
জলে নামলো বাঁধলো শাড়ি
কৃষি মন্ত্রী হলো নারী ।
বিদেশ গমন শক্ত ভারি
পুরুষ লাগবে নয়কো নারী,
মিথ্যা প্রমাণ করলো নারী
পররাষ্ট্র মন্ত্রী প্রমাণ তারই,
স্বরাষ্ট্র থেকে কোট কাচারী
সংসদ নেতা সাহসী নারী ।
স্পিকার নারী ভাবতে দেরি
শপথ নিলেন প্রত্যয়ী নারী।
পাহাড় চূড়ায় উঠলো নারী
এবার মোরা জয় জয় করি, continue reading

৫০৪

ব্লগার বাঙ্গাল

৫ বছর আগে লিখেছেন

সম্পদে নারীর উত্তরাধিকার

মানব সমাজ যদি হয়ে থাকে নারী পুরুষের একটি সংমিশ্রিত রূপ, তবে সন্দেহ নেই নারী সে সমাজের ভারসাম্যের প্রতীক ও নিয়ন্ত্রণকারী সত্বা। নারী পরম শ্রদ্ধেয় মা, আদরের বোন, প্রেমময় স্ত্রী কিংবা স্নেহভাজন কন্যা হিসেবে পুরুষের অর্ন্তজগতকে নিয়ন্ত্রণ করে অঘোষিতভাবে। মহান আল্লাহর সৃষ্টির সহজাত প্রক্রিয়ায় নারী ব্যতীত বা নারীর সক্রিয় উপস্থিতি ছাড়া একটি সুন্দর, ভারসাম্যপূর্ণ ও সৃজনশীল সমাজ আশা করা যায় না। এজন্যেই মানব জাতির জন্য আল্লাহ প্রদত্ত জীবন বিধান ইসলাম নারীকে যথাযথ গুরুত্ব দিয়েছে।  তাকে বসিয়েছে মর্যাদার সুমহান আসনে এবং নিশ্চিত করেছে তার সামগ্রিক অধিকার। সন্তানকে মার সঙ্গে সর্বোচ্চ সদাচরণ ও সেবার আদেশ দেওয়া হয়েছে। স্বামীকে দেওয়া হয়েছে স্ত্রীর ভরণ-পোষণসহ সার্বিক... continue reading

৬৬৭

ম. গ. রেজওয়ান

৫ বছর আগে লিখেছেন

একটি শিক্ষনীয় গল্প

মেয়েকে বিয়ে দেয়ার পর যখন সে আবার বাবার বাড়ি আসে তখন মা খুব আগ্রহ ভরে জানতে চায় যে ঐ বাড়িতে তার কেমন লেগেছে ? মেয়ে জবাবে বলেঃ আমার ওখানে ভালো লাগেনা। মানুষগুলো কেমন যেন। পরিবেশটাও আমার ভালো লাগছেনা। মেয়ের ভেতর এক ধরনের হতাশা দেখতে পায় তার মা। দেখতে দেখতে বেশ কিছুদিন কেটে যায়। মেয়ের চলে যাবার সময় চলে আসে। চলে যাবার ঠিক আগের দিন মা তার মেয়েকে নিয়ে রান্না ঘরে প্রবেশ করেন। মা হাড়িতে পানি দেন এবং তা গরম করতে থাকেন। এক সময় যখন তা ফুটতে থাকে তখন মাহাড়িতে গাজর, ডিম আর কফির বিন দেন।

এভাবে বিশ মিনিট পর... continue reading

৪৩২

ম. গ. রেজওয়ান

৫ বছর আগে লিখেছেন

একটি শিক্ষনীয় গল্প

মেয়েকে বিয়ে দেয়ার পর যখন সে আবার বাবার বাড়ি আসে তখন মা খুব আগ্রহ ভরে জানতে চায় যে ঐ বাড়িতে তার কেমন লেগেছে ? মেয়ে জবাবে বলেঃ আমার ওখানে ভালো লাগেনা। মানুষগুলো কেমন যেন। পরিবেশটাও আমার ভালো লাগছেনা। মেয়ের ভেতর এক ধরনের হতাশা দেখতে পায় তার মা। দেখতে দেখতে বেশ কিছুদিন কেটে যায়। মেয়ের চলে যাবার সময় চলে আসে। চলে যাবার ঠিক আগের দিন মা তার মেয়েকে নিয়ে রান্না ঘরে প্রবেশ করেন। মা হাড়িতে পানি দেন এবং তা গরম করতে থাকেন। এক সময় যখন তা ফুটতে থাকে তখন মাহাড়িতে গাজর, ডিম আর কফির বিন দেন।

এভাবে বিশ মিনিট পর... continue reading

৬৭৪

hasan milu

৫ বছর আগে লিখেছেন

মঙ্গল গ্রহে প্রথম বাংলাদেশী নারী

বর্তমানে নাসায় সহযোগী গবেষক হিসেবে কর্মরত বাংলাদেশি নারী লুলু ফেরদৌস মঙ্গলের প্রথম বাসিন্দাদের একজন হতে যাচ্ছেন। একটি ডাচ অলাভজনক প্রতিষ্ঠান সাত মাস আগে ঘোষণা দেয়, ২০২৫ সালে মঙ্গলগ্রহে স্থায়ীভাবে মানুষের বসবাস শুরু করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে যারা স্বেচ্ছায় মঙ্গলে বসতি গড়তে চান, তাদের কাছ থেকে প্রতিষ্ঠানটি আবেদনপত্র আহ্বান করে। আবেদনকারীদের একজন লুলু ফেরদৌস। লুলু জানান, ২ লাখের বেশি আবেদনপত্র জমা পড়ে এই প্রোগ্রামে।পুরো প্রোগ্রামে মাত্র চারজন মহাকাশচারীকে এ সুযোগ দেওয়া হবে। তিনি এই চারজনের একজন হতে যাচ্ছেন। পরিবারের সদস্যদের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জানাতে গিয়ে লুলু বলেন, আমার সিদ্ধান্তের কথা জানার পর পরিবারের সবাই তো বাকরুদ্ধ হয়ে গিয়েছিল।... continue reading

৪০৩

ব্লগার বাঙ্গাল

৫ বছর আগে লিখেছেন

ইসলামের দৃষ্টিতে নারীর কৃত্রিম রূপচর্চা

নকল চুল বা অন্যের চুল লাগানো, উলকি উৎকীর্ণ করা [চামড়ায় ছুঁচ ফুটিয়ে দিয়ে তাতে রং ঢেলে নকশা আঁকা বা নাম লেখা] সৌন্দর্যের জন্য দাঁত ঘষে সরু করা বা দাঁতের মাঝে ফাঁক সৃষ্টি করা নিষিদ্ধ।
আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তার [আল্লাহর] পরিবর্তে তারা কেবল দেবীদের পূজা করে এবং তারা কেবল বিদ্রোহী শয়তানের পূজা করে। আল্লাহ তাকে [শয়তানকে] অভিসম্পাত করেছেন এবং সে [শয়তান] বলেছে, আমি তোমার দাসদের এক নির্দিষ্ট অংশকে [নিজের দলে] গ্রহণ করবই এবং তাদেরকে পথভ্রষ্ট করবই, তাদের হৃদয়ে মিথ্যা বাসনার সৃষ্টি করবই, আমি তাদেরকে নিশ্চয় নির্দেশ দেব, ফলে তারা পশুর কর্ণচ্ছেদ করবেই এবং তাদেরকে নিশ্চয় নির্দেশ দেব, ফলে তারা আল্লাহর... continue reading

৬৪৬

ব্লগার বাঙ্গাল

৫ বছর আগে লিখেছেন

ইসলামের দৃষ্টিতে জন্ম নিয়ন্ত্রণ (পর্ব-২)

(পূর্ব প্রকাশের পর)
সামাজিক ও নৈতিক অবক্ষয় : জন্মনিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা গ্রহণের ফলে পারিবারিক জীবনে স্বামী-স্ত্রী সম্পর্কের মধ্যে যে ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে তাতে ক্রমশ, পারস্পরিক সদ্ভাব ও ভালবাসা হরাস এবং অবশেষে ঘৃণা ও অসন্তোষ সৃষ্টি করে। তাছাড়া নারীদেহের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে যে বৈকল্য দেখা দেয় এবং তার মেজায দিন দিন রুক্ষ হয়ে উঠে, ফলে দাম্পত্য জীবনের সকল সুখ-শান্তি বিদায় নেয়। সন্তানই স্বামী-স্ত্রীকে চিরদিন একত্রে সংসার গঠনের ভূমিকা রাখে। এজন্য বলা যায়, সন্তানই পরিবার গঠনের সেঁতুবন্ধন।
ইউরোপ ও আমেরিকাতে দাম্পত্য জীবন অত্যন্ত দুর্বল হয়ে যাচ্ছে এবং জন্মনিরোধ আন্দোলন প্রসারের সঙ্গে তালাকের সংখ্যাও দিন দিন দ্রুত গতিতে বেড়ে চলেছে, সেখানে এখন দাম্পত্য জীবন ও পারিবারিক... continue reading

৭০৫

কেতন শেখ

৫ বছর আগে লিখেছেন

মা্ দিবসের কবিতা - অতীন্দ্রিয় ইন্দ্রধনু

অতীন্দ্রিয় ইন্দ্রধনু
 
কেতন শেখ
 
তোমার ভালোবাসায় কান্নাহাসির পাট চুকিয়েছে অনেক পদ্য,
অনেক পংক্তি আর বাণী তোমাকে করেছে
মনুষ্যধর্মের সর্বসিদ্ধি আর কল্যাণের অঙ্কিত প্রতিমূর্তি।
 
সেসব লেখা হয়েছে বহুযুগে, শতাব্দীর পর শতাব্দীতে ....
আরও লেখা হবে।
 
আমার বুকে মহার্ণবের ঢেউয়ের মতো
সেসব কাব্যকথা বিরামহীন খেলা করে।
আরও খেলা করবে, আমৃত্যু।
 
আমার নিরূপিত জীবনযাত্রায়
প্রশ্নাতীত অথচ বিস্ময়কর ভালোবাসার স্পর্শানুভূতি তোমার।
কখনও ফল্গুধারার মতো, কখনও মিছিলের মতো,
কখনও ঘরমুখি, কখনও বিপ্লবী।
 
মায়াময়ী অস্তিত্বে তোমার কারণে আজও মনুষ্য আমি,
পার্থিব সব আকর্ষণ আর টানাপোড়নেও
পদাঙ্গুলি ঠেকিয়ে... continue reading

৬৭৭

সোহেল শিকদার রনি

৫ বছর আগে লিখেছেন

নারী

একজন পুরুষের সাথে দ্বীনদার নারী হলেন রাজার মাথায় স্বর্ণখচিত মুকুটের মতন, অন্যদিকে একজন পুরুষের সাথে খারাপ নারী হলো বৃদ্ধ ব্যক্তির মাথায় চাপানো ভারী বোঝার মতন।
continue reading

৪৩৮

সোহেল শিকদার রনি

৫ বছর আগে লিখেছেন

নির্ভরশীল

লোহা যত শক্ত হোক না কেন আগুনের কাছে কিছু না । আগুন যত গরম হোক না কেন পানির কাছে কিছু না । চাঁদ যত সুন্দর হোক না কেন সূর্যের কাছে কিছু না । সূর্য এত সুন্দর যা রাতের কাছে কিছু না । আর নারী যত সুন্দর হোক না কেন ছেলেদের কাছে কিছু না । তাই সব কিছু একটি অরেকটির উপর দুর্বল থাকে ।
continue reading

৭৭২