"ধর্ম ও দর্শন" বিভাগের পোস্ট ক্রমানুসারে দেখাচ্ছে

অনুরাগী

৪ বছর আগে লিখেছেন

“বুদ্ধিজীবী”দের ঘুম ভাঙানো জরুরী

নিজের ঢোল নাকি নিজেরই বাজাতে হয়! অন্যকে বাজাতে দিলে ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনাই বেশী, না হয় বাদক যথাযথ বাজাতে পারবেন বলে ভরসা করা কঠিন। বিষয়টি সর্বজন স্বীকৃত না হলে যে আজকাল এটাকে ঠেলে ফেলে দেয়া যাবে না। তাই সবাই মিলে “আপনা ঢোল আপনি বাজান”র প্রতিযোগিতায় নেমেছেন। আমার কাছে বরাবরই বুদ্ধিজীবী ও প্রগতিশীল শব্দদ্বয় ভয়ানক। এই দুই বিশেষণে বিশেষিতদের পরিচয় পেলে আঁতকে উঠি কিংবা সূচ ফুটানো বেলুনের মতই চুপসে যাই, আত্মরক্ষার সুপথ খুঁজি আপন মনে। দ্বিধান্বিত হতে হয় নিজের দায়বদ্ধতার কথা ভেবে-ঘুরে দাঁড়ানোর উপায় কি? ভবঘুরে মনে কখন যে কী আসে তাঁর সমাধান খুঁজে পাওয়া মুশকিল হয়ে যায়। গত দেড় দশক ধরে... continue reading

৪০৫

রাজু আহমেদ

৪ বছর আগে লিখেছেন

শহীদের আত্মায় হাস্যকর নিবেদন

শহীদ বা শাহাদত ইসলাম ধর্মের একটি আরবী পরিভাষা বা পরিশব্দ । শহীদ বলতে সাধারণত আল্লাহর রাস্তায় জীবন উৎসর্গকারীকে নির্দেশ করে । শাহাদত শব্দের শাব্দিক অর্থ হচ্ছে স্বাক্ষ্য, সনদ, সার্টিফিকেট, প্রত্যয়নপত্র ইত্যাদি । ভাবার্থে শহীদ শব্দের অর্থ জান্নাতের দিকে অগ্রসর অথবা আল্লাহর নিকট উপস্থিত হওয়া বুঝায় । পারিভাষিক অর্থে যারা আল্লাহ মনোনীত ধর্ম ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার রাহে জীবন কুরবানী করেন তাদেরকে শহীদ বলা হয় এবং ইসলামে শাহাদতের মৃত্যুর গুরুত্ব অপরিসীম । কেননা যিনি/যাদের শাহাদতের মৃত্যু নসীব হয় তারা পরকালে বিনা হিসাবে জান্নাতে দাখিল হবেন মর্মে আল্লাহ ও তার রাসূলের (সাঃ) পক্ষ থেকে সুস্পষ্ট ঘোষণা হয়েছে । মহাপবিত্র আল কুরআন এবং কুরআনের... continue reading

৩৩৯

তারিক আনাম

৪ বছর আগে লিখেছেন

রূপক গল্পঃ "নিজ আমলের [কর্মের] প্রতিফল"

জনৈক বাদশাহ একদিন তার তিন মন্ত্রীকে ডেকে একটি করে থলি নিয়ে রাজপ্রাসাদের বাগানে যেতে বললেন। এবং সেখান থেকে তাদের থলিগুলি উত্তম ফল-ফলাদি দ্বারা পূর্ণ করার নির্দেশ দিলেন। সাথে এও আদেশ দিলেন,যেন কেউ একাজে একে অপরকে সাহায্য না করেন। মন্ত্রীত্রয় বাদশাহর এ নির্দেশে আশ্চর্য হ’ল। কিন্তু কিছু করার নেই। রাজার নির্দেশ। তাই তারা একটি করে থলি নিয়ে বাগানে গেল। একজন মন্ত্রী বাদশাহকে খুশী করার জন্য সবচেয়ে ভালো ভালো ফল-ফলাদি দ্বারা স্বীয় থলি ভর্তি করলেন। অপরজন মনে করল বিপুল প্রাচুর্যের অধিকারী বাদশাহর তো আর এত বেশী ফল-ফলাদির প্রয়োজন নেই। তাই সে অবহেলা ও অলসতা বশতঃ ভালো-মন্দ বাছাই না করে হাতের কাছে পাওয়া... continue reading

৪৯৫

রিফাত উল্লাহ

৪ বছর আগে লিখেছেন

রাগ নিয়ন্ত্রণে ইসলামের নির্দেশনা

এক সাহাবি হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে এসে বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! আমাকে অল্প কথায় কিছু নসিহত করুন। রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন, রাগ বর্জন করো। সাহাবি কয়েকবার বললেন, আরও নসিহত করুন। প্রত্যেকবারই রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন, রাগ বর্জন করো। -বোখারি শরীফ
রাগ নেই, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল।রাগ মানবিক আবেগের অংশ বিশেষ। তবে অনিয়ন্ত্রিত রাগ মারাত্মক ক্ষতিকারক। কোনো কোনো মানুষ দ্রুত রেগে যায় এবং তাদের রাগও প্রচন্ড। এমনকি মানুষ রেগে গিয়ে হিতাহিত জ্ঞ্যান শুন্য হয়ে যে কোন অঘটন ঘটাতে পারে। এ ধরনের ব্যক্তিরা রাগের কারণে হৃদরোগ সহ নানা দৈহিক রোগেও আক্রান্ত হতে পারে।
আরেক ধরনের লোক সম্পূর্ণ বিপরীত, তারা ভারসাম্যপূর্ণ। বিবেক ও... continue reading

৫০৮

তাইজুল ইসলাম

৪ বছর আগে লিখেছেন

সুখের সংজ্ঞা

সুখ কাকে বলব সুখ জানিনা,হারাতে হারাতে যা পেয়েছি,ভাংতে ভাংতে যা গড়েছি,সবটুকু পেয়েও যা ছেড়েছি,মনে হয় গ্রহনে নয় বিসর্জনেই তাকে পাওয়া হয়। continue reading

৭১৩

সরফরাজ আহমেদ খান

৪ বছর আগে লিখেছেন

অন্ধ বিশ্বাস

মানুষের ভিতর নিজেকে এবং অন্যদের নিয়ে কিছু বিশেষ চিন্তা-ভাবনা থাকে। সেগুলোকে ছাপিয়ে যখন বিমূর্ত 'বিশেষ কিছু' পাবার জন্য নিজেকে পর্যন্ত উতসর্গ করে ফেলতে দ্বিধা করেনা, সেই চিন্তাকেই অন্ধ বিশ্বাস বলা যায়। আমাদের চলার পথে আমরা অনেক কিছুই দেখে থাকি। কিন্তু ধর্মকে যখন ইচ্ছেমত ব্যবহার হতে দেখি, কিছু মানুষের  নিজের সার্থসিদ্ধির জন্য ধর্ম যখন হাতিয়ার- সাদাহ্রন মানুষ তখন এই বিশ্বাসের খড়গের তলে বলির বকরা হয়ে যায়।
বিভিন্ন মাজার, মন্দির প্রভৃতি ধর্মীয় উপাসনালয়ের নেতৃত্ব দানকারি পুরোহিতদের অধিকাংশই এই বিশ্বাসকে নিয়ে খেলে থাকে।
এই ব্লগে কিছু একটা নিয়ে লিখতে চাইছিলাম। তাই এখন মনে এই প্রসঙ্গটি এলো। সকলের সাথে শেয়ার করলাম।
আমাদেরকে সামনে এগিয়ে যেতে... continue reading

৬৯৫

রাজু আহমেদ

৪ বছর আগে লিখেছেন

কতটা মনোবিকৃতি হলে এমনটা সম্ভব !

শতাব্দীর সেরা বিস্ময় ইন্টারনেট । এ বিস্ময়কর সৃষ্টি মানুষের জীবনকে যে কতটা সহজ করেছে তা বর্ণনা করে শেষ করার নয় । মানুষের জীবনের জন্য যতকিছু প্রয়োজন তার সবটাকেই এর মধ্যে সমন্বয় করে দেয়া হয়েছে । যোগাযোগ ব্যবস্থায় এক বৈপ্লবিক ধারার সূচনা করেছে ইন্টারনেট । দূরকে এত কাছে টেনেছে যা বলে বোঝাবার নয় । ইন্টারনেটের এ ক্ষমতা দেখলে মনে পড়ে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের, ‘বিশ্ব জগৎ দেখব আমি আপন হাতের মুঠোয় পুরে’ বাণী । কবির সে আকাঙ্খাকে পূর্ণতা দিয়েছে ইন্টারনেট । কোটি কোটি মাইল দূরত্বের কোন বস্তু সম্পর্কে তথ্য জানতে চাইলেও তা জানতে মাত্র কয়েক সেকেন্ডের বেশি সময় লাগবে না ।... continue reading

৩৩১

রুদ্র আমিন

৪ বছর আগে লিখেছেন

পাপ ঘৃণা এবং পাপী (প্রতিযোগিতা ২০১৫, পর্ব - ২, ক্যাটাগরি - ৩)

যদি মৃত ব্যক্তিকে চড় মারলে কিংবা লাথি মারলে ব্যথা অনুভব করত তাহলে শাস্তি কামনা অবশ্যই করতাম।  অপরাধির শাস্তি কে না চায় ?  তার জন্য অবশ্যই শাস্তি কামনা করেছি, এমন কি এখনও যারা আছেন তাদের সবার শাস্তি কামনা করি। যারা দেশদ্রোহী রাষ্ট্রদ্রোহী জনগণের শত্রু তাদের শাস্তির জন্য প্রার্থনা করি। শুধু একজন কেনো আনাচে কানাচে এখনও যারা বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়ায় সবার শাস্তি কামনা করি। হাতে গোনা পাচঁ জন কি যুদ্ধাপরাধী বাংলাদেশের.........?
 
যদি ধর্মের কথা বিশ্বাস করি, ধর্মকে ভয় করি তাহলে মৃত ব্যক্তিকে জুতা মারা এই কাজটি আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনে করি ঠিক হয়নি......মূর্তিকে কিল ঘুষি মারলে কি প্রতিবাদ করতে... continue reading

২২ ৫১০

ম. গ. রেজওয়ান

৪ বছর আগে লিখেছেন

মৃত্যু শয্যায় আলেকজান্ডার তার সেনাপতিদের যা বলেছিলেন

 আলেকজান্ডাের নাম ানেকে্ শুনেছেন। মৃত্যু শয্যায় মহাবীর আলেকজান্ডার তার সেনাপতিদের ডেকে বলেছিলেন,
'আমার মৃত্যুর পর আমার তিনটা ইচ্ছা তোমরা পূরণ করবে। আমার প্রথম অভিপ্রায় হচ্ছে,শুধু আমার চিকিৎসকরাই আমার কফিন বহন করবেন।আমার ২য় অভিপ্রায় হচ্ছে, আমার কফিন যে পথ দিয়ে গোরস্থানে যাবে সেই পথে আমার অর্জিত সোনা ও রুপা ছড়িয়ে থাকবে আর শেষ অভিপ্রায় হচ্ছে, কফিন বহনের সময় আমার দুইহাত কফিনের বাইরে ঝুলিয়ে থাকবে।'
তার সেনাপতি তখন তাঁকে এই বিচিত্র অভিপ্রায় কেন করছেন প্রশ্ন করলেন। দীর্ঘ শ্বাস গ্রহণ করে আলেকজান্ডার বললেন, 'আমি দুনিয়ার সামনে তিনটি শিক্ষা রেখে যেতে চাই।
*আমার চিকিত্সকদের কফিন বহন করতে এই কারনে বলেছি যে যাতে লোকে অনুধাবন করতে পারে যে চিকিত্সকেরা কোন মানুষকে... continue reading

৫৮৭

ইমরান আহম্মেদ

৪ বছর আগে লিখেছেন

আল্লাহ যা করেন ভালোর জন্য করেন ।

ইসলামী মজার গল্প
আল্লাহ যা করেন ভালোর জন্যই
করেন'' ***
এক রাজার এক চাকর ছিল।
চাকরটা সবসময়
যেকোন অবস্থাতেই রাজাকে বলত,
"রাজা মশাই, কখনো মন
খারাপ করবেন না। কেননা আল্লাহ
যা করেন তার সবকিছুই নিখুঁত ও
সঠিক।"
একবার
তারাশিকারে যেয়ে নিজেরাই
এক হিংস্র প্রাণীর আক্রমণের
শিকার
হলো। রাজার চাকর
সেই প্রাণীকে মারতে পারলেও,
ততক্ষণে রাজা তার একটা আঙুল
খুইয়ে বসেছেন।
রাগে-যন্ত্রণায়,
ক্ষোভে রাজা ক্ষিপ্ত
হয়ে বলে ওঠে, "আল্লাহ যদি ভালোই
হবে তাহলে আজকে শিকারে এসে আমার
আঙুল হারাতে হতো না।"
চাকর বলল, "এতকিছুর
পরও আমি শুধু আপনাকে... continue reading

৪৮০