"জনসচেতনতা" বিভাগের পোস্ট ক্রমানুসারে দেখাচ্ছে

Azimul Haque

৪ বছর আগে লিখেছেন

দায় কার!

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি বিভাগের ভর্তি পরীক্ষায় মাত্র দু’জন ছাত্র উত্তীর্ন হয়েছে। প্রথম যেদিন কথাটা শোনা হয়, মনে হয়েছিল মাত্র দু’জন! এটা কীভাবে সম্ভব? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি পড়ার মতো এই মাত্র দু’জন ছাড়া কী সারা দেশে আর কোন ছাত্র ছিলনা! শিক্ষার মান দেশে কমে গেছে বলে একটি কথা প্রচলিত বটে, কিন্তু তার মানে কী এ-ই যে, মাত্র দু’জন? বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দোষ দিচ্ছে প্রচলিত শিক্ষাব্যবস্থার, আর মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর বিভিন্ন বক্তব্য হতে যা জানা যায়, তার সার কথা হচ্ছে, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রশ্নপত্র তৈরী করেছে অত্যন্ত শক্তভাবে, যেজন্য শিক্ষার্থীরা উত্তীর্ন হতে পারছেনা। বিষয়টা আসলে গভীর চিন্তারই দাবীদার।
আমাদের দেশে জিপিএ-প্রথা চালু হয় ২০০১ সালে। তার... continue reading

৩৭১

নাটের গুরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

নতুন আতঙ্ক ইবোলা ভাইরাস

পশ্চিপশ্চিম আফ্রিকায় মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়েছে ইবোলা ভাইরাস।ইতোমধ্যে ইবোলা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অনেক মানুষ মারা গেছেন।শুধু আফ্রিকা বাসীই নন, সারাবিশ্বে ইবোলা ভাইরাসের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।চলতি বছরের এপ্রিলমাস থেকে বিস্তার লাভ করে ইবোলা ভাইরাস।ভাইরাসটি এরইমধ্যে আফ্রিকার কঙ্গোতে তাণ্ডব চালিয়েছে।বর্তমানে পাশের দেশ গিনি, লাইবেরিয়া ও সিয়েরা লিওন ছেড়ে এখন এশিয়া, ইউরোপ ও আমেরিকার দিকে ধীরে ধীরে এগোচ্ছে ইবোলা।প্রতিনিয়ত এসব দেশে ইবোলায় আক্রান্ত মানুষের প্রাণহানির সংখ্যা বাড়ছে।ইবোলা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO)। পশ্চিম আফ্রিকায় বিভিন্ন শান্তিমিশনে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর সদস্যরা সহ বিভিন্ন বাহিনীর শান্তিরক্ষীরা কর্মরত রয়েছেন। যাদের মাধ্যমে বাংলাদেশেও চলে আসতে পারে এই ভাইরাস।
 
ইবোলাভাইরাসকি ?
ইবোলা... continue reading

৬৩১

অচেনা বন্ধু

৪ বছর আগে লিখেছেন

ইবোলা ভাইরাসের প্রতিষেধক.....

ইবোলা বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বড়সড় সাফল্য চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের। আবিষ্কৃত হল এই মরণ ভাইরাসের প্রতিষেধক। ইবোলার ভ্যাকসিন তৈরি করে  কানাডার গবেষকরা। কয়েকটি জটিল পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরেই এটি বাজারে ছাড়া হবে।
জানা গেছে, দীর্ঘ গবেষণার পরে এবোলার ভ্যাকসিন (ভিএসভি-ইবিওভি) তৈরি করেছেন কানাডার ন্যাশনাল মাইক্রোবায়োলজি ল্যাবরেটরি’র গবেষকরা। প্রাথমিকভাবে পশুর দেহে পরীক্ষা করা হয়েছে, যা সফল। চূড়ান্ত পর্যায়ে পরীক্ষার জন্য ভ্যাকসিনটি সুইৎজারল্যান্ড পাঠাচ্ছে কানাডা সরকার।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশিকা অনুসারে এই পর্যায়ে ভিএসভি-ইবিওভি ভ্যাকসিনগুলিকে মানব দেহে পরীক্ষা চালানো হবে। আর পরীক্ষা সফল হলে তা চিকিৎসা বিজ্ঞানের জগতে নতুন দিগন্ত খুলে যাবে। সূত্র:এইচইউজি
continue reading

৭২৪

Azimul Haque

৪ বছর আগে লিখেছেন

বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির হালচাল

নীলা এবার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্বাবিদ্যালয়ে চান্স পেয়েছে। ভর্তি-কাযর্ক্রম শুরু হলেই ও ভর্তি হয়ে যাবে ওখানে। গত বছর (২০১৩ সাল) ইন্টারমিডিয়েটে জিপিএ-৪.৬০ নিয়ে পাশ করা নীলা ঐবছর কোথাও চান্স পায়নি। একবছর ভালমত কোচিং করে এবছর ও চিটাগাং, বরিশাল, সিলেট, রাজশাহীসহ অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য দরখাস্ত করেছিল। অস্বচ্ছল অভিভাবকের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়েছিল এত জায়গায় কেমন করে তারা যাবেন মেয়েকে নিয়ে। চিটাগাং, বরিশাল, সিলেটে তাঁদের কোন আত্মীয়-স্বজন নাই, কোথায় থাকবেন, কী করবেন, এই নিয়ে যখনতারানিদারূণ দুশ্চিন্তায়, তখনই চৈত্রের দাবদাহের পর একপশলা বৃষ্টির মত তাদের নিকট এল জীবনের সবচেয়ে খুশির খরবটা, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেয়েছে নীলা।
নীলার তো হোল, কিন্তু এদেশে চরম... continue reading

৬৬১

(ইবোলা ভাইরাস) - সচেতন হউন এখনই

ebola virus (ইবোলা ভাইরাস)
এখন পর্যন্ত বিশ্বে এর কোন ভেকসিন আবিস্কৃত হয়নি... !!!
>>সচেতন হউন-সচেতন হউন এখনই<<
***আফ্রিকার কিছু নিজস্ব সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্য ইবোলা ছড়িয়ে পড়ার জন্য দায়ী । আমাদের দেশে শিক কাবাব, গ্রীল-নান যে রকম লোভনীয় মজাদার খাবার ঠিক তেমনি আফ্রিকায় “বুশমিট” প্রচলিত । “বুশমিট’’ হচ্ছে আফ্রিকার জঙ্গলে পাওয়া বানর, বাদুড়, হরিণ জাতীয় প্রাণী যেগুলো শিকারীরা পুড়িয়ে বাজারে বিক্রি করে । ধারণা করা হয় ইবোলা ভাইরাসের উৎস হলো বুশমিট বা বাদুড় জাতীয় প্রাণী ।
***ইবোলা রোগীর রক্ত, দেহ নিঃসৃত যে কোন পদার্থে থাকা প্রচুর পরিমাণ জীবাণু এক সাথে অনেককে আক্রান্ত করে ।।
***যারা ইবোলার কারণ- লক্ষণ- প্রতিকার এর... continue reading

৫৩১

অচেনা বন্ধু

৪ বছর আগে লিখেছেন

ইবোলা যেভাবে ছড়ায় |

ইবোলা ভাইরাস দেহে সংক্রমিত হওয়ার দুই দিন পর থেকে রোগের উপসর্গ দেখা যায়। প্রাথমিকভাবে জ্বর, পেশিতে ও মাথায় প্রচন্ড ব্যথা শুরু হয়। তারপর বমি ও পাতলা পায়খানা হতে থাকে। কখনও কখনও গায়ে ফুসকুড়িও দেখা দেয়। লিভার ও কিডনির কার্যক্ষমতা হ্রাস হতে থাকে। একই সঙ্গে শরীরের ভেতরে, চামড়ায়, নখের গোড়া বা চোখ দিয়ে রক্তপ্রদাহ শুরু হতে পারে। রক্তের মাধ্যমে এ ভাইরাস ছড়ায়। তবে সম্প্রতি চিকিৎসকদের ধারণা, ভাইরাসটি বাতাসেও ছড়ায়। প্রাথমিকভাবে বাদুড়কে এ ভাইরাস বহনের দায় দেয়া হচ্ছে। ১৯৭৬ সালে মধ্য আফ্রিকায় ভাইরাসটি প্রথম ধরা পড়ে। এর পর আরও এক দু’বার ভাইরাসটি হানা দিলেও এবারের মতো এত মৃত্যু কখনও হয়নি। বলতে গেলে... continue reading

৩৫৫

ম. গ. রেজওয়ান

৪ বছর আগে লিখেছেন

প্রানঘাতী ইবোলা ভাইরাস: সতকর্ হোন সবাই

 
প্রানঘাতী ইবোলা ভাইরাস সারা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ছে! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ১৫ দেশের নাম প্রকাশ করেছে।
দেশগুলো হলো-
১. আইভোরিকোষ্ট ২.গিনি বিসাউ ৩.দক্ষিন সুদান ৪. টোগো ৫. বেনিন ৬. মালি ৭. ঘানা ৮. জাম্বিয়া ৯. সেনেগাল ১০. নাইজেরিয়া ১১. মৌরতানিয়া ১২. বারকিনা ফাসো ১৩. ক্যামেরুন ১৪. মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র ১৫. কঙ্গো
এটি আল্লাহর গজব। তাই আল্লাহর কাছে এই গজব থেকে মুক্তি চাই। হে মহান আল্লাহ আপনি আমাদেরকে সঠিক পথের সন্ধান দান করুন এবং এই গজব থেকে মুক্তি দান করুন।-আমিন continue reading

৪৩৬

ডাক্তার দ্যা বৈজ্ঞানিক

৪ বছর আগে লিখেছেন

গরম পানি পানের অবিশ্বাস্য ১২টি উপকারিতা

গরম পানি পানের
অবিশ্বাস্য ১২টি উপকারিতা:
১. ওজন কমবে গরম পানি শরীরের বিপাক ক্রিয়া খুব ভালভাবে সম্পন্ন করে। যার ফলে বাড়তি মেদ কমবে। তবে আরো বেশি কাজ দিবে যদি সকালে খালি পেটে গরম পানির সাথে লেবু মিশ্রিত করে পান করেন। এটা বডি ফ্যাট ভাঙতে সাহায্য করবে।
২. গলা ও নাসারন্দ্রের মধ্যে সমন্বয় সাধন করবে ঠাণ্ডা লাগা, কফ জমে যাওয়া এবং গলা ব্যাথায় গরম পানি খুব কার্যকর ভূমিকা রাখে। এটা কফ তরল করে বের করে দেয়। গলা ব্যথা কমায়। এছাড়া নাসারন্দ্রের পথ পরিষ্কার রাখে।
৩. মাসিক বাধা দূর করে গরম পানি মেয়েদের মাসিকের সমস্যা দূর করতে ভূমিকা রাখে। এটা পেটের পেশীকে শান্ত ও কোমল করে। যার ফলে মাসিকের সমস্যা দূর হয়।
৪. শরীরের বর্জ্য বের করে দেয় গরম পানি পান করলে শরীরের তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করে। ফলে ঘাম ঝরবে। ঘামের সাথেই শরীরের অনেক ধরনের... continue reading

১৭২৬

ডাক্তার দ্যা বৈজ্ঞানিক

৪ বছর আগে লিখেছেন

গরুর গোশত সম্বন্ধে জরুরি কিছু তথ্য

আমরা মোটামোটি সবাই জানি যে গরুর মাংস একটি ক্ষতিকর খাবার যা এড়িয়ে চলা উচিত। কারণ এটি কোলেস্টেরল বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। কিন্তু সত্যি কথা হলো যে, গরুর মাংসের অনেক উপকারী দিকও আছে। পরিমিত পরিমাণে সঠিক ভাবে খেলে এর থেকে যেই পরিমাণ পুষ্টি পাওয়া যায় তা সমপরিমাণ অন্য কিছু থেকে পাওয়া কঠিন। তাহলে কেন আমরা সঠিক উপায়ে খাওয়ার কথা চিন্তা না করে একে সম্পূর্ণ বর্জন করে এর খাদ্যগুন থেকে নিজেদের বঞ্চিত করবো?
>কি পরিমাণ খাওয়া উচিতঃ
দৈনিক গরুর মাংস খাওয়ার নিরাপদ মাত্রা হলো, ৩ আউন্স বা ৮৫ গ্রাম। আনুমানিক একটা কম্পিউটারের মাউস বা একটি তাসের বান্ডিলের সমান টুকরাতে এই পরিমাণ মাংস পাবেন।
>চর্বি ছাড়া... continue reading

১১১৯

নূর মোহাম্মদ নূরু

৪ বছর আগে লিখেছেন

আজ ১৬ অক্টোবর, ৩৪তম বিশ্ব খাদ্য দিবসঃ ‘পারিবারিক কৃষি: প্রকৃতির সুরক্ষা, সবার জন্য খাদ্য’ এবারের প্রতিপাদ্য

আজ ১৬ অক্টোবর, ৩৪তম বিশ্ব খাদ্য দিবস। একটি দেশের নাগরিকগণের মৌলিক চাহিদাগুলোর মধ্যে খাদ্য অন্যতম। সারা বিশ্বের মানুষের প্রয়োজনীয় খাদ্যের নিরাপত্তা, দরিদ্রতা ও পুষ্টিহীনতা দূর করে ক্ষুধামুক্ত পৃথিবী গড়ার অঙ্গিকার নিয়ে ১৯৪৫ সনের ১৬ অক্টোবর জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৭৯ সালে বিশ্ব খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (FAO) ২০তম সাধারণ সভায় হাঙ্গেরির তৎকালীন খাদ্য ও কৃষি মন্ত্রী ড. প্যাল রোমানী বিশ্বব্যাপী এই দিনটি উদযাপনের প্রস্তাব উত্থাপন করেন। এরপর ১৯৮১ সনে প্রথম আনুষ্ঠানিকতা আর প্রতিপাদ্যভিত্তিক বিশ্ব খাদ্য দিবসের উদযাপন শুরু হয়। বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে ১৯৮১ সালের ৩১ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ডাক বিভাগ ৫০ পয়সা মূল্যমানের একটি ডাকটিকেট অবমুক্ত... continue reading

৪৫৮