"জনসচেতনতা" বিভাগের পোস্ট ক্রমানুসারে দেখাচ্ছে

নূর মোহাম্মদ নূরু

৫ বছর আগে লিখেছেন

পৃথিবীর ভয়াবহতম ঘূর্ণিঝড় ম্যারি এন এর আঘাতে দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় উপকূলকে লণ্ডভণ্ড করে দেওয়া ভয়াল ২৯ এপ্রিল আজ

আজ ভয়াল ২৯ এপ্রিল। এদিন 'ম্যারি এন' নামক ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় লণ্ডভণ্ড করে দেয় দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় এলাকায় পূরো উপকূল। লাশের পরে লাশ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ছিল চারদিকে। রাতের নিস্তব্ধতা এবং অন্ধকার ভেদ করে মুহূর্তের মধ্যে লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছিল কক্সবাজার, মহেশখালী, চকরিয়া, বাশখালী, আনোয়ারা, সন্দ্বীপ, হাতিয়া, সীতাকুণ্ড পতেঙ্গাসহ উপকূলীয় এলাকা। বিস্তীর্ণ অঞ্চল ধ্বংস্তূপে পরিণত হয়েছিল। দেশের মানুষ বাকরুদ্ধ হয়ে সেদিন প্রত্যক্ষ করেছিল প্রকৃতির করুণ এই আঘাত।পরদিন বিশ্ববাসী অবাক হয়ে গিয়েছিল সেই ধ্বংসলীলা দেখে। কেঁপে উঠেছিল বিশ্ব বিবেক। বাংলাদেশে আঘাত হানা ১৯৯১ সালের ঘূর্ণিঝড় নিহতের সংখ্যা বিচারে পৃথিবীর ভয়াবহতম ঘূর্ণিঝড় গুলোর মধ্যে অন্যতম। ১৯৯১ সালের ২৯শে এপ্রিল রাতে বাংলাদেশে-র দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত চট্টগ্রাম উপকূলে আঘাত... continue reading

৮৪৯

রাজু আহমেদ

৫ বছর আগে লিখেছেন

বাচ্চাদের স্কুলের সামনে থেকে ভাসমান খাদ্যের দোকান উচ্ছেদ করুন

 
বৈশাখের তীব্র দাবদাহের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ডায়রিয়া । পানিবাহিত রোগ হওয়ার কারনে গরম মৌসুমে ডায়রিরা প্রকোপ মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পায় । বিশেষ করে রাজধানীসহ বিভাগীয়, জেলা এবং উপজেলা শহরের হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের উপচে পড়া ভিড় দেখে অনুমান করা যায় দেশের ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা । তীব্র গরমে যারা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয় তাদের মধ্যে শিশুর সংখ্যাই বেশি । যে শিশু মায়ের বুকের দুধ খায় তাদের সংখ্যা কিছুটা কম হলেও স্কুল পড়ুয়া শিশুদের সংখ্যার সীমা নাই । হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাদের সিট সল্পতার কারনে সকল ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীকে ভর্তি করে সু-চিকিৎসা দিতে পারছেনা । গরমে বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা... continue reading

৩০৯

রাজু আহমেদ

৫ বছর আগে লিখেছেন

উৎপাদন বাড়লেও কেন শ্রমিকের ভাগ্য বদলাচ্ছে না

 
 
মানব সভ্যতার শুরুতে পৃথিবীর মানুষকে জীবিকা অর্জনের জন্য সংকটময় সংগ্রাম করতে হত । বিভিন্ন পশু পাখি শিকার ছিল তখনকার দিনের মানুষের জীবিকা অর্জনের একমাত্র উপায় । তাই শিকারকে মানুষের আদিমতম পেশা হিসেবে স্বীকার করা হয় । প্রাচীন কাল থেকে পশু-পাখি শিকারের প্রয়োজনে এবং হিংস্র জানোয়াদের আক্রমন থেকে জীবনে রক্ষা করার জন্য মানুষ একতাবদ্ধ হতে শিখে ।  তখন একতাবদ্ধ বলতে কয়েকটি পরিবারের সমষ্টিকে বুঝাতো । সমাজ ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে এর অনেক পর । একতাবদ্ধ মানুষগুলো জীবিকার প্রয়োজনেই একস্থান থেকে অন্য স্থানে ভ্রমন করত ।  তখন শিকার ধরা এবং তা থেকে জীবিকা অর্জন ছিল খুব কষ্টের । শিকার করতে যে... continue reading

৩৯৬

রাজু আহমেদ

৫ বছর আগে লিখেছেন

খাচ্ছি কি-খাদ্য নাকি বিষ

 
পৃথিবীতে এমন কোন জীব নেই যেটি আহার ছাড়া বেঁচে থাকতে পারে । জীবের আকার অনুযায়ী তার আহারের মাত্রা নির্ধারিত হয় । একটি তিমি মাছের যেমন প্রতিদিন কয়েক মন খাদ্য দরকার তেমনি একটি পিঁপড়ার সামন্য কয়েক টুকরার । মানুষকে তার খাদ্যাভ্যাস অনুযায়ী দু’ই ভাগে ভাগ করা যায় । কেউ প্রয়োজন মত খায় আবার কেউবা মাত্রাতিরিক্ত । অনেক মনীষী বলেছেন, ‘তোমরা খাওয়ার জন্য বাঁচ আর আমি বাঁচার জন্য খাই’ । মনীষীদের এ বাক্যেই মানুষের খাদ্যাভ্যাসের পার্থক্য স্পষ্ট হয়ে ওঠে । মানুষের জীবনে অনেক গুলো প্রেষণা থাকে । তার মধ্যে আহারকে জৈবিক প্রেষণা হিসেবে বিবেচনা করা হয় । মাত্রাতিরিক্ত না হোক অন্তত... continue reading

৪২১

নূর মোহাম্মদ নূরু

৫ বছর আগে লিখেছেন

২৬শে এপ্রিল আন্তর্জাতিক তেজস্ক্রিয় বিকীরণ সংক্রান্ত দুর্ঘটনা ও বিপর্যয় দিবস আজ

আজ ২৬ এপ্রিল আন্তর্জাতিক তেজস্ক্রিয় বিকীরণ সংক্রান্ত দুর্ঘটনা ও বিপর্যয় দিবস। পৃথিবীর ইতিহাসে এখন পর্যন্ত ভয়াবহ পারমাণবিক দুর্ঘটনা ইউক্রেনের চেরনোবিল পারমাণবিক চুল্লির বিস্ফোরণ। এর বিপদের মাত্রা ছিল সাতের মধ্যে সাত। ১৯৮৬ সালের এই দিনে সোভিয়েত ইউনিয়নের চেরনোবিল পারমাণবিক শক্তি কেন্দ্রে বিপজ্জনক দূর্ঘটনা ঘটলে ব্যাপক তেজস্ক্রিয়তা ঘটে। চেরনোবিল দুর্ঘটনা হিরোশিমায় ফেলা আণবিক বোমার চেয়ে চারশ গুণ বেশি তেজস্ক্রিয়া ছড়িয়েছিল। এই দূর্ঘটনায় আজ পর্যন্ত দুই সহস্রাধিক মানুষ নিহত হয়। একে ধরে নেওয়া হয় স্মরনকালের সবচেয়ে ভয়াবহ পারমানবিক দুর্ঘটনা। উত্তর মেরুর কাছাকাছি প্রায় সব কটি দেশেই পরমাণু বিকিরণের ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে। আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা জানিয়েছে দূর্ঘটনার সঙ্গে সঙ্গেই ৪ জন কর্মী... continue reading

৪৩৮

নূর মোহাম্মদ নূরু

৫ বছর আগে লিখেছেন

বিশ্বের ইতিহাসে ৩য় বৃহত্তম শিল্প দুর্ঘটনা সাভারের রানা প্লাজা ভবন ধসের বর্ষপূর্তিতে নিহতদের স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলি

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সকাল ৮:৪৫ এ সাভারে একটি বহুতল ভবন ধসে পড়ে। ভবনটিতে পোশাক কারখানা, একটি ব্যাংক এবং একাধিক অন্যান্য দোকান ছিল, সকালে ব্যস্ত সময়ে এই ধসের ঘটনাটি ঘটে। ভবনটিতে ফাটল থাকার কারণে ভবন না ব্যবহারের সতর্কবার্তা থাকলেও তা উপেক্ষা করা হয়েছিল। সাভার বাসস্ট্যান্ডের কাছে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশেই নয়তলা এই ভবনটি রানা প্লাজা হিসেবে পরিচিত এবং এর মালিক সোহেল রানা সাভার পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক। ২০০৭ সালে রানা প্লাজা নির্মাণ করার আগে জায়গাটি ছিল পরিত্যক্ত ডোবা। ভবন নির্মাণ করার আগে বালু ফেলে এটি ভরাট করা হয়। বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর তথ্যমতে ভবনের উপরের চার তলা... continue reading

৪৬৭

রাজু আহমেদ

৫ বছর আগে লিখেছেন

এবি সিদ্দিকী ফিরলেন, বাকিরা ফিরবে কবে ?

 
 
গ্রাম অঞ্চলে কয়েকবছর আগেও লুকোচুরি খেলার প্রচলন ছিল । কয়েকজন শিশু একত্রিত হলেই তারা আনন্দ করার জন্য এ খেলা খেলত । শিশুদের মধ্য থেকে একজনকে চোর বানিয়ে বাকিরা সবাই বিভিন্ন গোপন আস্তানায় লুকাতো এবং খেলার ভাষায় চোর শিশুটিকে সকলকে খুঁজে খুজে বের করতে হত । চোর শিশুটি একজন করে শিশু দেখত এবং খিলখিল করে হেসে উঠত । গ্রামাঞ্চলের এ ঐতিহ্যবাহী খেলাটি একেবারে বিলীন হয়ে না গেলেও খুব একটা প্রচলিত নেই ।  তখনকার প্রেক্ষাপট আর এখনকার প্রেক্ষাপট সম্পূর্ণ ভিন্ন । বর্তমানে গ্রামাঞ্চলে কয়েকজন শিশু একত্রিত হলেই বিভিন্ন ভিডিও গেম কিংবা মোবাইলে কার্টুন দেখতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে । আমাদের... continue reading

৪৩৮

মোঃ মাতীন পাগলা

৫ বছর আগে লিখেছেন

ভারতের সীমান্ত সম্প্রসারণ এবং অখন্ড ভারত কায়েমের স্বপ্ন

আমরা যে ভারতের কথা অহরহ উচ্চারণ করি সেই দেশটি সাংবিধানিকভাবে ভারত হিসাবে স্বীকৃত। তাহলে প্রশ্ন দাঁড়ায় ইন্ডিয়া এলো কোথা থেকে। ইন্ডিয়া কখনো ভারতের নাম ছিল না। ইংরেজ আমলে দেশটির এ নাম দেয়া হয়। ইন্ডাস বা সিন্ধু থেকে ইন্ডিয়া শব্দটির উৎপত্তি হয়েছে। আবার সিন্ধু থেকে হিন্দু শব্দটি এসেছে। হিন্দুরা ইন্ডিয়া নামের কোনো দেশকে স্বীকার করে না। তাদেরকে এ নামটি ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের শৃঙ্খলের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। অন্যদিকে মহাভারত, শ্রীমদ্ভগবৎ গীতা ও বিষ্ণু পুরাণের মতো হিন্দু ধর্মগ্রন্থ থেকে উৎসারিত হওয়ায় ভারত বা ভারতবর্ষ নামটির সঙ্গে তাদের সম্পর্ক আত্মার।
ভারত বরবারই অখণ্ড ভারত কায়েম করতে চায়। মৌর্য সম্রাট অশোক-পূর্ব ভারত কায়েম... continue reading

৮০৪

রাজু আহমেদ

৫ বছর আগে লিখেছেন

জীবনদাতা, অন্যদাতা যখন এক মুঠো অন্যের জন্য আদালতের দ্বারপ্রান্তে

 
 
 
গত ১৯শে এপ্রিল দৈনিক ইত্তেফাকে প্রকাশিত ‘এক মুঠো অন্যের জন্য আদালতের দ্বারপ্রান্তে’ শিরোনামে চোখ আটকেনি এমন পত্রিকা পাঠক হয়ত খুঁজে পাওয়া যাবে না । তবুও যারা খবরটি মিস করেছেন তাদের জ্ঞাতার্থে প্রতিবেদনটির সারাংশটি উল্লেখ করছি । চাদপূরের মিন্নত আলী ও শামছুন্নাহার দম্পতি চাঁদপুর আদালতে তার ছেলে মোঃ নুরুল আমীন ও পুত্রবধু জেসমিন আক্তারের বিরুদ্ধে পিতামাতার ভরণ-পোষণের নিশ্চয়তার জন্য মামলা করেছেন । মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, মিন্নত আলী এবং শামছুন্নাহার তাদের দীর্ঘ ৫০ বছরের বৈবাহিক জীবনে  ১ ছেলে এবং ৪ কন্যার জনক-জননী । তারা ভিক্ষা করে চার মেয়ের বিবাহ দিয়েছন এবং নুরল আমীনকে লেখাপড়া শিখিয়েছেন ।  লেখাপড়া শিখে... continue reading

৩১৯

খোন্দকার শাখাওয়াৎ হোসেন

৫ বছর আগে লিখেছেন

পাথরঘাটার যোগাযোগের প্রধান বাহন.....

পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য আমি প্রতি মাসে একবার পাথরঘাটাতে আসি। দায়িত্বের জন্যই উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন এবং গ্রামে যায়। এই এলাকার যোগাযোগের একমাত্র বাহন হলো মোটর সাইকেল। কারণ হিসাবে জানা যায় যে, এলাকার চলার পথগুলো হলো চিকিন এবং সরু । এই জন্য এলাকার সকল স'ানে মানুষ যাওয়ার জন্য মোটর সাইকেল ব্যবহার করে থাকে এবং খুব সহজে মোটর সাইকেল পাওয়া যায়। কিন'ু মোটর সাইকেল চালকদের মোটর সাইকেল চালনার উপর কোন প্রশিড়্গন নাই এবং কোন প্রকার লাইন্সেস নাই। যদি আমার নতুন কেউ এখানে আসার পরে এদের কবলে পড়লেই তার মনে হবে হয়তো স্বাভাবিক ভাবে ফেরা কঠিন। যেমন- আজকে সকালে পাথরঘাটার উদ্দেশ্য পূর্বের... continue reading

৬০৮