২০৮০: এবং ধরে দিবানি !!

২০৮০ সালের জুনের কোন এক দিন :
মাঠে প্রচন্ড বেগে করতালি ধেয়ে যাচ্ছে !! আর মাঠ থেকে তার প্রতুত্তরে ৯০ মিটারের এক একটি ছক্কা ধেয়ে যাচ্ছে গ্যালারীতে । কিছুক্ষন পর পর “দিবানি” আর “ধরে দিবানি “ কোরাসে থর থর করে কাঁপছে মাঠে থাকা এগারো জন ব্যাক্তি ,যাদের আমন্ত্রন জানানো হয়েছিল এ ভুখন্ডে খেলার জন্য !! 
এর মধ্যে বলের সংখ্যার চেয়ে উল্লেখ যোগ্য বেশি রান করে তখন রণহুঙ্কারের দামামা বাজিয়ে বিরতিতে বাংলাদেশ নামক পরাশক্তির “বাঘের বাচ্চাদের” খানিকটা বিশ্রাম । 
বিরতির পর এবার শের-ই- বাংলাদের বোলিং এ তোপ দাগানোর প্রস্তুতি চলছে । স্কোর বোর্ড ে তখন ০ ওভার ০ রান । বোলিঙে তখন নতুন বলের বোলার যে এ বাঘের দলটির সবচেয়ে বুড়োবাঘ যার আদর আর ধমকে আর সব বাঘের বাচ্চারা নত জানু হয়ে আদেশ পালনে ব্যস্ত হয়ে পড়ে । গত শতক ধরেই শার্দুল শাবক দের আগমন নির্গমন নিয়মিত হলেও মাঠের রাজার কোনও পরিবতর্ন হয়নি আজও, অথবা পরিবর্তন চায়নি কখনো কেউই । 
দুর থেকে স্রেই বোলারের যখন রান আপ শুরু ;ঠকঠক করে কাঁপন শুরু হল অনিবার্য ভাবে ফেইস করতে নামা ওপেনারের !! ওদিকে গ্যালারিতে “ধরে দিবানি “ কোরাসে উত্তেজিত আবাল বৃদ্ধ বনিতা । বাউন্স দিয়ে স্বাগত জানাল সেই রাজা !! বাঘের রাজা ! ঠক ঠক করতে থাকা ওপেনারকে । হুক বা অন্য কিছু করতে গিয়ে কট বিহাইন্ড !! পিছনের কোন এক কিপারের হাতে । ব্যাস !! মাঠের রাজার গর্জন কেবল শুরু হল !! গায়ের জার্সির পেছনের নামটা কেবল ঘেমে উঠেছে তাও বুঝা যাচ্ছে শতবছর ধরে যেমন বুঝা গেছে বারবার 
“মাশরাফি মুর্তজা “ ।।
...................................................................................................
প্রিয় ম্যাশ !! 
হয়তো তোমার কাছে মনে হবে উপরের গল্পটি কাকতালিয় । কিন্তু না , মন থেকে বলছি ।ওহ !! মন নয় দুঃখিত প্রাণ থেকে বলছি, মাশরাফি
!! 
যতদিন থাকবে এদেশে ক্রিকেট ততদিন তুমিই বাঘেদের নেতা !! হয়তো বিদায় নেবে ধরা থেকে । তবে মাঠে কিন্তু তুমিই চিরন্তন ,,,সবাই দেখবে হাজার বছর ধরে অথবা অজুত নিজুত কোটি বছর ধরে সেই প্রিয় ম্যাশ বোলিং করছে ,,, ধরে দিবানির নেতৃত্ব দিয়ে !!
১ Likes ২ Comments ০ Share ৫৪৩ Views

Comments (2)

  • - আলমগীর সরকার লিটন

    অনেক ভাল লাগল

    শুভ  কামনা দাদা