Site maintenance is running; thus you cannot login or sign up! We'll be back soon.

আহমেদ ইসমাঈল

৩ বছর আগে

জানেন তো, ঔষুধ ছাড়াও হাই ব্লাড প্রেসার কন্ট্রোল করা যায়

প্রেসার মাপার যন্ত্র হাতে বসে থাকা ডাক্তার আর তার সামনে দুরু দুরু বুক নিয়ে বসে আছেন আপনি। আপনার কপালে হয়তোবা সুক্ষ্ন রেখার মত কিছুটা ঘাম। সামনে বসা ব্যাক্তিটি নিবিড় মনোযোগের সাথে তার যন্ত্রটির প্রেসার নির্ণায়ক কাটাটির দিকে লক্ষ্য রাখছেন। সেই সাথে চেষ্টা করছেন তার স্টেথিসকোপে কিছু শোনার। এক সময় তার কাজ শেষ হলো। সাথে সাথেই আপনার প্রশ্ন, ডাক্তার সাহেব প্রেসারের অবস্থা কি? আগের মতোই নাকি কিছুটা বেড়েছে? গম্ভীর মুখে তিনি জবাব দিলেন, না তেমন কিছুনা। সামান্য বেশি (*১)। ব্যাস। শুরু হলো আপনার টেনশন। বাড়ছে প্রেসার। মানে হৃদপিন্ড থেকে সারা শরীরের দূর থেকে দূরতর প্রান্তে সরু সরু নালীকার ভেতরে দিয়ে রক্ত কণিকাগুলো অস্থির ছোটাছুটি।

 ডাক্তার যতই বলুক সমস্যা নেই, আমি ঔষুধ দিয়ে দিচ্ছি অথবা একদম টেনশন করবেন না, রেষ্ট নেবেন- আপনি কি শুনবেন? লাভ নাই, লাভ নাই ছোট সে তরী- আমারি টেনশনে গিয়াছে ভরি। না চাইলেও হাজারটা চিন্তা বিনা মেঘে বজ্রপাতের মত আপনার মাথায় এসে ল্যান্ড করবে। কেন প্রেসারটা বাড়লো? ঔষুধ কি কাজ করছেনা? খাবারে কি কোন সমস্যা হলো, ইত্যাদি ইত্যাদি। আপনি তখন স্বাভাবিকভাবেই চাইবেন আপনার আগের ব্যবহার করা ঔষুধগুলো পাল্টাতে অথবা ঔষুধের মাত্রা পরিবর্তন করতে। আচ্ছা, হাই ব্লাড প্রেসার কন্ট্রোলে ঔষুধের বিকল্প কিছু কি ভাবা যায়? এমন কিছু যা ঔষুধের চাইতেও বেশি কার্যকর?

 সম্ভব কিন্তু কাজটা খুব সহজ নয়। কারণ ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রনে যে ঔষুধগুলো বাজারে আছে, তাদের বিজ্ঞাপন এতোটাই চটকদার যে বেশিরভাগ সময় ডাক্তাররা সাত-পাঁচ না ভেবেই রোগীদের এসব ঔষুধ সাজেস্ট করেন। আসলে ভাবার বিষয় হলো, সত্যি সত্যি এই ঔষুধগুলো উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে কতটা কার্যকরী? ২০০৩ এর জুলাইতে ‘ জার্নাল অব দ্যা আমেরিকান মেডিকেল এ্যসোসেয়েশন’ এর প্রকাশিক এক প্রবন্ধে বলা হয়, তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক পূর্ন বয়স্ক লোকের উপর জরিপ চালান যারা উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন । তারা দেখতে পান যে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে বাজারে প্রচলিত ঔষুধগুলোর আসলে কোন ভূমিকাই নেই। তাহলে উপায়? ধীরে, চিন্তা করে প্রেসার বাড়ানোর দরকার নেই। আমরা বিকল্প কিছু ভাববো। তার আগে চলুন জেনে নেই উচ্চ রক্তচাপ কি এবং কেন হয়।

 রক্ত চাপ হলো এক কথায় রক্তের চাপ। রক্ত যখন হৃদপিন্ডের সংকোচন-প্রসারণের ফলে ধমনীর মধ্য দিয়ে শরীরে প্রবাহিত হয়, তখন এই প্রবাহিত রক্ত ধমনীর অভ্যন্তরীন দেয়ালে চাপের সৃষ্টি করে। এই চাপই হলো রক্তচাপ। যখন এই চাপের পরিমাণ স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হয় তখন এটাকে বলি উচ্চ রক্তচাপ। আমরা যখন বিশ্রামে থাকি এবং ধরে নেওয়া যায় শরীরের কল-কব্জাগুলো ঠিকমতোই কাজ করছে, তখন আমাদের শরীরের স্বাভাবিক রক্তচাপ সাধারণত 120/80 mmHg এর কম। আবার বয়সভেদে এর তারতম্যও হতে পারে। কিন্তু যখন ক্রমাগত কয়েক সপ্তাহের রক্তচাপের পরিমাপ 140/90 mmHg এর বেশি হবে তখন এটাকে উচ্চ রক্তচাপ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এমনিতে সারাদিনের কাজ-কর্মে রক্তচাপ কখনো বেশি হয়, আবার কখনো কম হয়। বয়সের কারণেও রক্তচাপের তারতম্য হতে পারে। আবার কিছু কিছু রোগী আছেন যখনি তারা ডাক্তারের চেম্বারে যান, তখনি তাদের রক্তচাপ বেড়ে যায়। তখন ডাক্তার হয় ঐ রোগীর বাসায় রক্তচাপ নির্নয়ের ব্যবস্থা করেন অথবা একটি বিশেষ রক্তচাপ নির্নায়ক যন্ত্র ব্যবহার করেন। এই যন্ত্র রোগীর শরীরে সারাদিন লাগানো থাকে এবং সে স্বয়ক্রিয়ভাবে প্রতি ৩০ মিনিট অন্তর রোগীর রক্তচাপ নির্ণয় করে। আসলে হঠাৎ করে একবার ব্লাড প্রেসার বেশি হলে সেটাকে উচ্চ রক্তচাপ হিসেবে চিহ্নিত করার কিছু নেই। আর এই উচ্চ রক্তচাপ নিয়ে খুব চিন্তার প্রয়োজন নেই যতক্ষন না এটি একাধারে বেশ অনেকদিন থাকে। যদি কখনো এমনটা হয় তবে আপনাকে অবশ্যই যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে। নয়তো দেখা যাবে বলা নেই, কওনা নেই হার্টখানা হঠাৎ করে কাজ-কারবার বন্ধ করে দিয়েছে। ফলাফল হার্ট এ্যটার্ক। পরিণতিতে মৃত্যুও হতে পারে। সুতরাং, এই উচ্চ রক্তচাপকে একদম অবহেলা করা যাবে না।

 বাংলাদেশে প্রায় শতকরা ১৪.৪ জন পূর্ন বয়স্ক মানুষ উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন (*২)। সারা পৃথিবীতে সংখ্যাটা আরো বেশি। তারপরেও আপনার জন্য আশার কথা হলো, প্রায় শতকরা ৮৫ মানুষই তাদের উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন করতে পারে শুধু মাত্র জীবন যাপনের পদ্ধতি পরিবর্তনের মাধ্যমে। কারণ, উচ্চ রক্তচাপের জন্য যে কারণগুলো দায়ী তার প্রায় সবই আপনার জীবন যাপনের পদ্ধতি বা অভ্যাসের সাথে জড়িত।

 প্রাণরাসায়নিক ভিত্তিতে এই কারণগুলো আলোচনা করা যাক। উচ্চ রক্তচাপের জন্য প্রথমেই আমরা দায়ী করবো আমাদের রক্তে উপস্থিত ইনসুলিনের (*৩) মাত্রাকে। যখন আপনি বেশি পরিমাণ দানাদার খাবার গ্রহন করবেন অথবা অতিরিক্ত মিষ্টি জাতীয় খাবারে অভ্যস্থ হবেন অথচ পর্যাপ্ত পরিমান ব্যায়াম করবেন না, তখনি আপনার রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা বেড়ে যাবে। উচ্চ রক্তচাপ রক্তে বেশি মাত্রায় উপস্থিত এই ইনসুলিনের সাথে সরাসরি সম্পর্কিত। অথবা যাদের ইনসুলিন রেজিস্টেন্সি (*৪) আছে তাদের জন্যও রক্তে উপস্থিত ইনসুলিন উচ্চ রক্তচাপের জন্য দায়ী। এই সকল ক্ষেত্রে যখনি রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা বাড়বে, তখনি আপনার রক্তচাপও বাড়বে। একবারে গুনাগুপাতিক পদ্ধতিতে। সুতরাং, আপনার উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনের প্রথম ধাপ হলো, রক্তে ইনসুলিনের মাত্রাকে স্বাভাবিক রাখা।

 সাধারণত যারা মোটা তারা স্বাভাবিকভাবেই কিছুটা উচ্চ রক্তচাপে ভোগেন। এই সকল উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত রোগীদের অবশ্যই মিষ্টি জাতীয় খাবার ও দানাদার খাবার এড়িয়ে চলা উচিত, অনন্ত যতক্ষন না তাদের রক্তচাপ স্বাভাবিক হচ্ছে। আর রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা স্বাভাবিক রাখার জন্য এটি একটি কার্যকর পদক্ষেপ। আমাদের শরীরে যে ইনসুলিন আছে তার একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো সে শরীরের ম্যাগনেসিয়ামগুলোকে ধরে রাখে বা সঞ্চয় করে রাখে। এই ম্যাগনেসিয়াম আমাদের শরীরে অনেক গুরুত্বপূর্ন কাজ করে। এর মধ্যে অন্যতম হলো এরা আমাদের মাংশপেশীর কোষগুলোকে, রক্তনালীকে রিলাক্স অবস্থায় রাখে। কিন্তু যখন আমাদের কোষের মধ্যে যে ইনসুলিন রিসেপ্টরগুলো আছে, তারা ভোতা হয়, মানে ইনসুলিনগুলোকে ধরতে পারেনা, তখন ইনসুলিন আর কোষের অভ্যন্তর প্রবেশ করতে পারে না। এটা আমাদের শরীরের একটা গুরুত্বপূর্ন প্রক্রিয়া। কারণ ইনসুলিনকে তার কাজ করতে হলে অবশ্যই কোষের অভ্যন্তরে প্রবেশ করতে হবে এবং সে এটা নিজে নিজে করতে পারে না। কোষের ভেতরে থাকে ইনসুলিন রিসেপ্টর। সে এই ইনসুলিনকে কোষের ভেতরে নিয়ে যায় এবং কেবল তখনি ইনসুলিন তার কাজ করতে পারে। কিন্তু রিসেপ্টরে কোন সমস্যা হলে এই কাজটা আর তখন হয় না। তখন এই কোষগুলোকে বলা হয় ইনসুলিন রেজিস্টেন্স। মানে তারা রক্তে উপস্থিত ইনসুলিন ব্যবহারে অসামর্থ্য। এই অবস্থায় ইনসুলিন আর শরীরের ম্যাগনেসিয়ামগুলোকে ধরে রাখতে পারে না। এই ম্যাগনেসিয়ামগুলো তখন ইউরিনের সাথে শরীর থেকে বের হয়ে যায়। ফলে শরীরে ম্যগনেসিয়ামের মাত্রা কমে যায়। আগেই বলেছি ম্যাগনেসিয়াম শরীরের মাংশপেশীকে, রক্তবাহী নালীকে রিলাক্স অবস্থায় বা প্রসারিত রাখে। সুতরাং, যখনি শরীরে ম্যাগনেসিয়ামের মাত্রা কমে যাবে তখনি রক্তবাহী নালীগুলো প্রসারনের বদলে সঙ্কুচিত হবে এবং এতে করে রক্তচাপ বেড়ে যাবে।

 রক্তে সোডিয়ামের মাত্রা বৃদ্ধির ক্ষেত্রেও ইনসুলিনের ভূমিকা রয়েছে। সহজভাবে বলতে গেলে, রক্তে যতবেশি ইনসুলিন থাকবে ততবেশি সোডিয়ামও থাকবে। রক্তে সোডিয়ামের মাত্রা বাড়লে তরল পর্দাথের মাত্রাও বাড়বে এবং এই তরল পর্দাথ রক্তচাপ বৃদ্ধির সাথে জড়িত।

 তাহলে ব্যাপারটা কি দাঁড়ালো? আপনাকে উচ্চ-শর্করা যুক্ত খাবার ছাড়তে হবে। কারণ এই খাবার আপনার শরীরে স্যুগারের মাত্রা বাড়াবে যার ফলে বেড়ে যাবে ইনসুলিনের মাত্রা। এই অতিরিক্ত ইনসুলিন শুধুমাত্র উচ্চ রক্তচাপের জন্যই দায়ী নয়, এটি আপনার সিমপ্যাথেটিক নার্ভাস সিস্টেমের উত্তেজক হিসেবেও ভূমিকা রাখে। যা একজন উচ্চ রক্তচাপ আক্রান্ত রোগীর জন্য কোন ভাবেই কাম্য নয়।

 আপনি নিশ্চই ভোজন রসিক? আর যদি আপনার শরীরের ওজনটা হয় বেশি তাহলে আপনাকে একটা দু:সংবাদ দিচ্ছি। আপনাকে আপনার খাদ্যাভাস অবশ্যই এবং অবশ্যই পরিবর্তন করতে হবে সেই সাথে কমাতে হবে শরীরের বাড়তি ওজন (*৫)। কারণটা খুব সহজ। আপনি কি আপনার উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন করতে ও দীর্ঘায়ূ পেতে চান না? তাহলে এই কাজের কোন বিকল্প নেই। আসলে খাবার হলো আমাদের দেহের জ্বালানী। সব গাড়ি যেমন এক জ্বালীনিতে চলে না, তেমনি সবার জন্য একই ধরণের খাবার প্রযোজ্য নয়। এজন্য দেখা যায় কেউ উচ্চ প্রোটিন-স্বল্প শর্করা যুক্ত খাবার খেয়ে সুস্থ আছে, আবার অন্য কেউ একই খাবার খেয়ে অসুস্থ হয়ে যাচ্ছেন। এজন্য আমাদের অবশ্যই জানা উচিত ঠিক কি ধরণের খাবার আমাদের জন্য উপযোগী। শরীর সুস্থ রাখার জন্য খাদ্যমান জানা এবং সে অনুযায়ী খাদ্য গ্রহন আমাদের দেহের নির্মল সুস্থতার জন্যই প্রয়োজন। দেহের প্রয়োজন অনুযায়ী খাদ্য গ্রহনই হলো উত্তম পন্থা। গবেষণায় দেখা যায় প্রক্রিয়াজাত খাদ্য বিশেষ করে পূর্বে প্রস্তুত করা ফ্রোজেন ডিনার, চিপস, সোডা, ফ্রাইড চিকেন, কুকিস, ক্রেকারস এবং ফাস্ট ফুড সরাসরি উচ্চ রক্তচাপ বৃদ্ধির সাথে জড়িত এবং সেই সাথে দায়ী ডায়াবেটিকস এর জন্যও। এই সকল জাঙ্ক ফুড যে উচ্চ মাত্রার স্যুগার, অস্বাস্থ্যকর চর্বি এবং ফ্রুক্টোজ বহন করে সেগুলো কেবল আপনাকে অসুস্থই করবে না, বাড়াবে আপনার দেহের ওজনও।

 মানসিক চাপের সাথে উচ্চ রক্তচাপের সম্পর্ক অনেক পরিচিত একটা ব্যাপার। সাধারণত দেখা যায় যে হৃদরোগের রোগীরা তাদের রোগের প্রায় ৭০% নিরাময় করতে পারে শুধু যদি তারা জানে কি ভাবে এই মানসিক চাপ বা স্ট্রেসকে নিয়ন্ত্রন করা যায়। মানসিক নিপীড়ন যেমন ভয়, রাগ, দু:খবোধকে নিয়ন্ত্রনে রাখা আমাদের মানসিক চাপহীন প্রতিদিনের জীবনের জন্য খুবই প্রয়োজন।

 রোদ দেখলে চোখ কুচকে ফেলেন? কালো হবার ভয়ে রোদে যেতে না চাইলে আরেকটি খারাপ খবর আছে আপনার জন্য। আপনি নিশ্চয়ই জানেন, ভাইটামিন-ডি শরীরের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। আমরা যখন সূর্যের আলো বা রোদে যাই তখন দেহে এই ভাইটামিন-ডি উৎপন্ন হয়। কিন্তু যদি না যাই? মানে আমরা যদি সূর্যের আলো থেকে নিজেদের সবসময় আড়াল করে রাখি? তখন দেহে এই ভাইটামিনটি কম উৎপন্ন হবে আর তার বদলে হরমোন গ্রন্থি থেকে বেশি পরিমাণে প্যারাথাইরয়েড হরমোন (*৬) উৎপন্ন হবে। এই হরমোন উচ্চ রক্তচাপ বৃদ্ধির জন্য দায়ী। সুতরাং প্রতিদিন কিছুটা সময় সূর্যের আলো পোহানো উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে যথেষ্ট কার্যকর।

 বিশেষজ্ঞগণ উচ্চরক্তচাপের জন্য বেশ কিছু কারণ নির্ণয় করেছেন। যেমন- অতিরিক্ত শারীরিক ওজন, খাদ্যে অধিক মাত্রায় সোডিয়ামের উপস্থিতি, অল্প পরিমাণে শারীরিক কাজ-কর্ম করা, কম পরিমাণে ফল, শাক-সবজি খাওয়া এবং খাদ্যে পটাসিয়ামের উপস্থিতি কম হওয়া। এছাড়া এলকোহলও এর জন্য দায়ী। এখন দেখুনতো, ঔষুধের চাইতে খাদ্যভাস পরিবর্তন এই ক্ষেত্রে কতটা কার্যকর। (*৭)

 বাজারে প্রায় ১০০ টিরও অধিক উচ্চ রক্তচাপ নিরোধী ঔষুধ রয়েছে। নিয়মিত ঔষুধ গ্রহনের চাইতে প্রতিদিন কিছুটা সময় শারীরিক এবং মানসিক ব্যায়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে বেশ কার্যকর। এই ব্যায়ামগুলো রোগীর শারীরিক ও মানসিক অবস্থা অনুযায়ী হওয়া দরকার। আপনি চাইলে এই বিকল্প পন্থাগুলো অনুসরণ করতে পারেন যা অনেক অনেক বেশি কার্যকর। তবে একটা কথা গুরুত্বপূর্ণ, বিকল্প পদ্ধতি অনুসরণ করুণ বা ঔষুধ গ্রহন করুন- সবটাই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী হওয়া উচিত।

 বিশ্বব্যাপী উচ্চ রক্তচাপ এক বিশাল সমস্যা। হৃদরোগ, ডায়াবেটিকস এর সাথেও এই উচ্চ রক্তচাপ সম্পর্কিত। আশা করা যায়, আমরা এই বিকল্পপন্থাগুলো অনুসরণের মাধ্যমে অনেক বেশি কার্যকরভাবে উচ্চ রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রনে রাখতে পারবো। এবং অর্জন করতে পারবো ‘হাইপারটেনশন’ বিহীন নির্মল, সুস্থ দেহ।


রেফারেন্সের জন্য দয়া করে এখানে চলে যান: http://ahamedismail.blogspot.com/2012/03/blog-post.html

০ Likes ০ Comments ০ Share ৩৯৫ Views

Comments (0)

  • - রুদ্র আমিন

    ভালো লাগলো গল্প।

    • - তানিম হক

      গল্পটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

    - এই মেঘ এই রোদ্দুর

    ভোট করলাম