Site maintenance is running; thus you cannot login or sign up! We'll be back soon.

নাসরিন ইসলাম

৩ বছর আগে লিখেছেন

ফেসবুকে বিরম্বনা কমাতে ফেক প্রোফাইল গুলো প্রতিরোধ করুন

ফেসবুকে আলাপ থেকে ভন্ধুত্ত, প্রেম ও শেষে প্রতারণা। এমন ঘটনা এখন প্রায় রোজই শোনা যায়। ফেক প্রোফাইলের আড়ালে অপরাধমূলক কাজে ভরে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া।  সতর্ক থাকুন। বোঝার চেষ্টা করুন, ফেক প্রোফাইল কিনা।
= অচেনা কাউকে বন্ধু করার আগে দ্বিতীয় বার ভাবুন। ফ্রেন্ড লিস্টে বন্ধু সংখ্যা বাড়ানোর প্রতিযোগিতায় হুটহাট কাউকে অ্যাড করবেন না। অচেনা রিকোয়েস্ট এলে প্রশ্ন করুন। জানতে চান তিনি কেন আপনাকে রিকোয়েস্ট পাঠালেন। উত্তর শুনে বিশ্বাসযোগ্য মনে হলে তবেই অ্যাকসেপ্ট করুন।
= প্রোফাইল ভাল করে পড়ুন। কী করেন, কোথায় থাকেন, কোথায় পড়াশোনা করেছেন সে বিষয়ে স্পষ্ট তথ্য আছে কিন দেখুন। কোনও সংস্থার নাম বা ইউনিভার্সিটির নাম নিয়ে সন্দেহ হলে গুগলে খুঁটিয়ে দেখুন। বয়স খুব অল্প অথচ নিজেকে প্রফেসর বা সিইও বলছেন, এমন মানুষ ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠালে অবশ্যই ভেবে দেখবেন। প্রোফাইল আকর্ষক করতে এরা অনেক কিছু করে থাকেন।
= ফ্রেন্ডলিস্ট খুঁটিয়ে দেখুন। এনার বন্ধুরা কি বেশিরভাগ স্থানীয়? নাকি বেশির ভাগই বিদেশি? যদি দেখেন বন্ধুরা অধিকাংশই বিদেশি তাহলে অবশ্যই মানুষটা সন্দেহজনক।
= মিউচুয়াল ফ্রেন্ডে চেনা বন্ধ থাকলেও সতর্ক থাকুন। চেনা বন্ধুকে জি়জ্ঞাসা করুন আপনাকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট মানুষটিকে চেনেন কিনা। বিশ্বাসযোগ্য উত্তর পেলে তবেই অ্যাড করুন।
= ফোটো খুঁটিয়ে দেখুন। বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটানোর, পরিবারের সঙ্গে ছবি রয়েছে? কেউ কি এনাকে ট্যাগ করেছে? করে থাকলে তাদের প্রোফাইল কী বলছে? ছবিগুলো কি সন্দেহজনক? প্রোফাইলে কি অত্যন্ত হ্যান্ডসাম কোনও যুবক বা সুন্দরী মহিলার ছবি? নাকি ছবি নেই? এমনটা হলে সতর্ক থাকুন।
= ঠিক কী ধরনের জিনিস পোস্ট করেন ইনি? অধিকাংশই কি কোনও ছবি বা কোটেশন? কোনও মৌলিক পোস্ট রয়েছে কিনা খুঁটিয়ে দেখুন। যদি থাকে তবে তা নিয়ে বন্ধুরা মন্তব্য করেছেন কিনা, লাইক করেছেন কিনা, শেয়ার করেছেন কিনা অবশ্যই দেখে নিন।
= যদি ইতিমধ্যেই অ্যাড করে... continue reading
Likes Comments
০ Shares

Comments (0)

  • - মাসুম বাদল

    খুব খুব ভাললাগা জানালাম... emoticons

নাসরিন ইসলাম

৩ বছর আগে লিখেছেন

ভুমি কম্পের সাবধানতা

সারাদেশেই গতরাতে ভূমিকম্পের তীব্র ঝাঁকুনিতে ঘুম ভেঙ্গে গেছে অনেকের। অনেকেই এসময় নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য বাইরে ছুটেছেন। সঠিকভাবে আমাদের অনেকেরই জানা থাকে না, ভূমিকম্প হলে ঠিক করণীয় কী। ভূমিকম্পে করণীয় জানা থাকলে অনেক বিপদই পাশ কাটানো সম্ভব। জেনে নিই ভূমিকম্প কী, কেন হয় আর হলে আমাদেরই বা করণীয় কী।
* ভূমিকম্প হচ্ছে টের পেলে বা খবর পেলে সঙ্গে সঙ্গে ফাঁকা ও উন্মুক্ত স্থানে আশ্রয় নিন।
* উঁচু ভবনে থাকলে এবং বের হতে না পারলে জানালা বা দেয়ালের পাশে অবস্থান না নিয়ে শক্ত কোনো বীম, টেবিলের নিচে অবস্থান নিন।
* হতবিহ্বল না হয়ে ধৈর্য ধরে পরিস্থিতি মোকাবেলা করুন।
* বহুতল ভবনে একই জায়গায় অনেক মানুষ একসঙ্গে না থেকে ভাগ হয়ে আশ্রয় নিন।
* আপনার মুঠোফোনে ফায়ার সাভির্স এবং দরকারি মোবাইল নম্বরগুলো আগাম সতর্কতা হিসেবে আগেই রেখে দিন। বিপদের সময় আপনার কাজে লাগবে।
* দ্রুত নামার জন্য ভবন থেকে লাফিয়ে পড়বেন না।
* ভূমিকম্পের সময় সম্ভব হলে মাথার ওপর শক্তকরে বালিশ অথবা অন্য কোনো শক্ত বস্তু [কাঠবোর্ড, নরম কাপড় চোপড়ের কুণ্ডলি] ধরে রাখুন।
* গ্যাস এবং বৈদ্যুতিক সংযোগ থেকে দূরে অবস্থান নিন।
* উচু ভবন থেকে দ্রুত নামার জন্য লিফট ব্যবহার করবেন না।
* ভূমিকম্পের সময় গাড়িতে থাকলে গাড়ি খোলা জায়গায় থামিয়ে গাড়িতেই থাকুন।
* একবার ভূমিকম্পের পরপরই আরেকটা ছোট ভূমিকম্প হয় যাকে ‘আফটার শক’ বলে। নিজেকে বিপদমুক্ত ভাবতে অন্তত একঘণ্টা সময় নিন। continue reading
Likes Comments
০ Shares

নাসরিন ইসলাম

৪ বছর আগে লিখেছেন

নিমন্ত্রণে চুলের সাজ

বছরের এই সময়টা যেন অলিখিত নিমন্ত্রণের মৌসুম। একটু ঠান্ডা ঠান্ডা ভাব পড়তে শুরু করা মানেই জমকালো দাওয়াত কিংবা বিয়ের নিমন্ত্রণ। মেকআপ বা পোশাক তো ঠিক হলো, চুল সাজাতে গিয়ে বাধে বিপত্তি। কেমন স্টাইল চলছে, কোন ধরনের চুলে কেমন স্টাইল তা দেখে নিন এবার। পরামর্শ দিয়েছেন রূপবিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন। তিনি বলেন, ‘খোলা চুলই মেয়েদের বেশি পছন্দ বলে মনে হয়। আর যেহেতু শীত প্রায় চলে এল তাই এখন কোঁকড়ানো স্টাইল দেখা যাবে।’
আজকাল পোশাকের সঙ্গে চুলের স্টাইলের কোনো বাঁধাধরা নিয়ম নেই। খোলা চুল তো আছেই, তাতেও রয়েছে নানা কায়দা। সোজাসাপটা খোলা চুলে বদলে দেখা যাচ্ছে নানা বৈচিত্র্য। এ ছাড়া নানা রকম বেণি, এলোমেলো স্টাইল, কার্ল, সোজা সবই এখন চলছে। তাই চুল বাঁধতে পারেন ইচ্ছেমতো। তবে নিজের সঙ্গে যা মানানসই সেই স্টাইলকেই প্রাধান্য দিন।
মাঝারি চুলের স্টাইল
মাঝারি চুলে ইচ্ছামতো স্টাইল করা যায়। বিশেষ দিনে অনেক সময় পারলারে গিয়ে চুল বাঁধা সম্ভব না। তাই আফরোজা পারভিন বলেন, ‘চাইলে আগের দিন রাতে চুল পেঁচিয়ে রাখা যেতে পারে। পরদিন সকালে চুল খুলে দেখবেন খুব সুন্দর একটা কোঁকড়া ভাব আসবে।’
ছোট চুলের স্টাইল
ছোট চুলের স্টাইলে তেমন বৈচিত্র্য নেই, এমন কথাই প্রচলিত। তবে এখন ছোট চুলের স্টাইলেও এসেছে অনেক বৈচিত্র্য। বিভিন্ন ধরনের স্টাইলিশ ব্যান্ড দিয়েও সাজে ভিন্নতা আনা যেতে পারে। কার্ল করলেও ভালো দেখাবে।
খোলা চুলে স্টাইল
চুল খোলা রাখলে একদম সোজাসাপটা ছেড়ে না রেখে ব্লো ড্রাই করে নিন। কিংবা রোলার স্টাইলার দিয়ে হালকা কুঁকড়ে নিন। পুরো চুল স্পাইরালও করতে পারেন। ওপরের দিকে সোজা রেখে নিচের দিকে কোঁকড়া করে রাখতে পারেন।
লম্বা চুলের স্টাইল
লম্বা চুলে বেণির শোভা দেখতে দারুণ লাগে। একসময় সালোয়ার-কামিজ বা শাড়ির সঙ্গেই করা হতো বেণি। ইদানীং... continue reading
Likes Comments
০ Shares

Comments (0)

  • - মাসুম বাদল

    লিখা চলুক অবিরাম ... 

    • - টি.আই.সরকার (তৌহিদ)

      ধন্যবাদ সুপ্রিয় মাসুম বাদল ভাই । অনুপ্রাণিত বোধ করছি আপনার মন্তব্যে ।

      ভালো থাকবেন সবসময় ।

    - সুমন সাহা

    ভালো লাগলো সুপ্রিয়।

    শুভেচ্ছা জানবেন।emoticons

    • - টি.আই.সরকার (তৌহিদ)

      ধন্যবাদ প্রিয় সুমন ভাই । ভালোলাগা জেনে তৃপ্ত হলাম ।

      শুভেচ্ছা ও শুভকামনা জানবেন ।

    - মাইদুল আলম সিদ্দিকী

    দারুণ! শুভকামনা emoticons

    • - টি.আই.সরকার (তৌহিদ)

      অনেক ধন্যবাদ সুপ্রিয় ! ভালো থাকবেন ।

    Load more comments...

নাসরিন ইসলাম

৪ বছর আগে লিখেছেন

রূপচর্চায় কাঁচা হলুদের ৯টি জাদুকরী ব্যবহার

হলুদ আমাদের প্রত্যেকের রান্নাঘরে ভীষণ সহজলভ্য একটি উপাদান। হলুদ ব্যতীত বাঙালিদের রান্না যেন কল্পনাই করা যায়না। সেই প্রাচীন কাল থেকেই হলুদ ব্যবহৃত হয়ে আসছে নানান রকম চিকিৎসায় আর সেই সাথে কাঁচা হলুদ রূপচর্চার অন্যতম উপাদান হিসেবেও ব্যবহৃত হয়ে আসছে যুগ যুগ। কাঁচা হলুদে আছে অ্যান্টি এজিং উপাদান, তাই ত্বক হতে বয়সের ছাপ দূর করতে হলুদের জুরি মেলা ভার। আবার অন্যদিকে হলুদ অ্যান্টি সেপটিক হিসাবেও চমৎকার কাজ করে, তাই ব্রণ দূর করতে বা ক্ষত সারাতেও অতুলনীয়।
আসুন জেনে নেই সৌন্দর্য চর্চায় কাঁচা হলুদের কয়েকটি অনবদ্য ব্যবহার।
ব্রণের চিকিৎসায়-
ব্রণ সারাতে হলুদের মতন চমৎকার প্রাকৃতিক উপাদান খুব কমই আছে। ব্রণের ইনফেকশন কমানো হতে শুরু করে ব্রণের দাগ দূর করা পর্যন্ত হরেক রকম ব্যবহার আছে এর। নিম্নে রইলো সেগুলোর মাঝে কয়েকটি।
১) ব্রনের প্রচুর ব্রণ ওঠে তাদের জন্য কাঁচা হলুদ জাদুর মতো কাজ দেয়। ব্রনের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে কাঁচা হলুদ বাটা, আঙ্গুরের রস ও গোলাপ জল মিশিয়ে ব্রনের উপরে লাগান। কিছু সময় পর ধুয়ে ফেলুন। ব্রণ মিলিয়ে যাবে ও ইনফেকশন হবে না।
২) কাঁচা হলুদ বেটে রস করে নিন। এই হলুদের রসের সাথে মুলতানি মাটি ও নিমপাতার রস এক সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট করে ফেস প্যাকের মতন মুখে লাগান। প্যাক শুকিয়ে এলে গোলাপজল দিয়ে আলতো হাতে ম্যাসাজ করে করে নিন এবং পানির সাহায্যে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে ব্রণের প্রকোপ কমবে।
৩) ব্রনের দাগ দূর করতে কাঁচা হলুদ ও নিমপাতা বেটে দাগের উপর লাগান। কিছুদিন লাগালে দাগ মিলিয়ে যাবে।
ত্বক উজ্জ্বল ও মসৃণ করতে-
যুগে যুগে কাঁচা হলুদ ব্যবহৃত হয়ে আসছে সুন্দর ও উজ্জ্বল ত্বক পাবার আকাঙ্ক্ষায়। তবে... continue reading
Likes Comments
০ Shares

Comments (0)

  • - নাসরিন ইসলাম

    খুব ভালো লেগেছে। 

    - মোঃসরোয়ার জাহান

    Darun Laglo dada

    - মাসুম বাদল

    চমৎকার, বড় ভাই...emoticons

নাসরিন ইসলাম

৪ বছর আগে লিখেছেন

ঠোঁটের কালচে ভাব দূর করে গোলাপী আভা ফুটিয়ে তুলুন ছোট্ট ১ টি কাজে

অনেকেরই মুখের ত্বকের তুলনায় ঠোঁট একটু কালচে দেখায়, যা নিয়ে আফসোস করেন প্রায়ই। মূলত খাদ্যাভ্যাসে সমস্যা, ধূমপান করা এবং অতিরিক্ত কেমিক্যাল সমৃদ্ধ লিপ প্রোডাক্ট ব্যবহারে কারণে ঠোঁট কালচে হয়ে আসে। আবার অনেকের যত্নের অভাবে ঠোঁটের উপরের চামড়া মরে ফেটে কালচে ভাব চলে আসে। কিন্তু প্রতিদিন রাতের ছোট্ট মাত্র ১ টি কাজে খুব সহজেই ঠোঁটের এই কালচে ভাব দূর করে দিতে পারেন। এবং পেতে পারেন শিশুদের মতো নরম, কোমল, গোলাপী ঠোঁট। চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক খুব সহজ পদ্ধতিটি।
যা যা লাগবেঃ
– ১ চা চামচ মধু
– ৩ চা চামচ ব্রাউন চিনি (সাধারণ সাদা চিনি হলেও চলবে)
– অর্ধেকটা লেবুর রস
– কাঠবাদামের তেল (আমন্ড অয়েল)
পদ্ধতি ও ব্যবহারবিধিঃ
– প্রথমে মধুতে চিনি খুব ভালো করে মিশিয়ে নিন যেনো চিনি কিছুটা গলে যায়। এতে করে মিশ্রণটি মসৃণ হবে।
– এরপর একটি লেবুর অর্ধেকটা চিপে তাজা রস বের করে নিন এবং মিশ্রনে দিয়ে ভালো করে নেড়ে মিশিয়ে নিন। প্রায় পেস্টের মতো হয়ে যাবে, তবে চিনি কিছুটা আস্ত থাকবে।
– প্রথমে ঠোঁট খুব ভালো করে ধুয়ে মুছে নিন। এরপর মিশ্রণটি ঠোঁটে লাগিয়ে নিন।
– এরপর প্রায় ১ মিনিট এই স্ক্রাবটি ঠোঁটে আলতো করে ঘষে নিন। খুব বেশি জোরে ঘষবেন না।
– তারপর কুসুম গরম পানিতে ধুয়ে ভালো করে মুছে নিন। সব শেষে সামান্য আমন্ড অয়েল ঠোঁটে লাগিয়ে রাখুন পুরো রাত।
– ব্যস, এই সামান্য কাজটুকু প্রতিরাতে করুন কয়েক সপ্তাহ আর এতেই আপনি পেয়ে যাবেন শিশুদের মতো নরম, কোমল, গোলাপী ঠোঁট।
– এই মিশ্রণটি বেশি তৈরি করে রেখে দিতে পারেন ফ্রিজে। অনেকটা সময় ভালো থাকবে।সহ
স্ক্রাবটির কার্যকারিতা
– চিনি খুব ভালো প্রাকৃতিক স্ক্রাব হিসেবে কাজ করে, যা আপনার... continue reading
Likes Comments
০ Shares

Comments (0)

  • - মাসুম বাদল

    স্যাল্যুট... !!! 

    • - ইফ্ফাত রুপন

      ধন্যবাদ......

           

Load more writings...